খাদ্য বাছাই ও রান্নার মাধ্যমে ক্যানসার প্রতিরোধ | অন্বেষণ | DW | 17.12.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

খাদ্য বাছাই ও রান্নার মাধ্যমে ক্যানসার প্রতিরোধ

ক্যানসার মোকাবিলার নানা প্রচেষ্টার মধ্যে ক্যানসার প্রতিরোধও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়৷ শুধুমাত্র খাদ্যাভ্যাসের মাধ্যমেই এ ক্ষেত্রে যথেষ্ট কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া সম্ভব৷ এক বিশেষজ্ঞ এমন কিছু খাবার চিনিয়ে দিচ্ছেন৷

খাদ্য বিশেষজ্ঞ হিসেবে উলরিকে গোন্ডার খাদ্য বাছাইয়ের ক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারেন৷ কোন খাদ্য ক্যানসারের কারণ হতে পারে এবং কোন খাদ্য ক্যানসার থেকে রক্ষা করতে পারে, তার হদিশ তিনি জানেন৷ তিনি ‘গুড গাই' ও ‘ব্যাড গাই', অর্থাৎ ভালো ও খারাপ খাদ্য বিলক্ষণ চেনেন৷ উলরিকে বলেন, ‘‘শাকসবজির মধ্যে ব্রকোলিকে তারকা বলা চলে৷ তার মধ্যে গ্লুকোসিনেলেটস, অর্থাৎ গন্ধকের মতো উপাদান রয়েছে৷ চিবানো, কাটা অথবা রান্নার সময়ে সেগুলি বেরিয়ে আসে৷ বৈজ্ঞানিক পরীক্ষায় তার অনেক ক্যানসার প্রতিরোধী বৈশিষ্ট্য দেখা গেছে৷ তবে এই উপাদানের পরিমাণ ফুলের তুলনায় গোড়ার মধ্যে দ্বিগুণ৷ অর্থাৎ, ব্রকোলি রান্নার সময় শুধু ফুল নয়, সবটাই ব্যবহার করা উচিত৷ তার কিছু অংশ অবশ্য রান্নার সময় আবার নষ্ট হয়ে যেতে পারে৷ অর্থাৎ, ছোট করে কেটে, ভাপিয়ে নেওয়া উচিত৷ বেশি রান্না করলে সেই উপাদানের একটা অংশ আবার নষ্ট হয়ে যায়৷''

ফলের ক্ষেত্রে উলরিকে গোন্ডার রং অনুযায়ী বিচার করেন৷ উজ্জ্বল লাল ও হলুদ রংয়ের ফল তাঁর কাছে ‘গুড গাই'৷ ক্যানসারের সুরক্ষার প্রতীকী রং এগুলি৷ তিনি বলেন, ‘‘আপেলের লাল রং বা আঙুরের রংয়ের জন্য অ্যান্থোসায়ানিন দায়ী৷ আর ক্যারোটিনয়েডের কারণে কুমড়ো বা পেঁপের ভেতরের সুন্দর কমলা রং দেখা যায়৷ শুধু রঞ্জক পদার্থ নয়, ক্যানসার থেকে সুরক্ষার ক্ষমতাও এগুলির রয়েছে৷ এমন উপাদান অ্যান্টি অক্সিডেন্ট হিসেবে, এমনকি শরীরের কোষগুলিকেও সুরক্ষা দেয়৷

এসব খেলে কখনো ক্যানসার হবে না, তার কোনো গ্যারেন্টি নেই বটে, কিন্তু স্বাস্থ্যকর খাবার খেয়ে আমরা নিজেদের শরীরে সুরক্ষা গড়ে তোলার সুযোগ দিতে পারি৷ তখন শরীর নিজের শক্তিতেই ক্যানসার প্রতিরোধ করতে পারবে৷''

সুপারমার্কেটেও ভালো খাবার পাওয়া যায়৷ এ ক্ষেত্রে অবশ্য রংয়ের সঙ্গে সঙ্গে স্বাদও গুরুত্বপূর্ণ৷ উলরিকে বলেন, ‘‘এখানে আরো মসলাদার খাবারদাবার রয়েছে৷ স্বাদ অল্প ঝাল হলেই বুঝবেন, খাবারের মধ্যে গন্ধকের মতো ক্যানসার প্রতিরোধী পদার্থ রয়েছে, যেমনটা ব্রকোলির মধ্যে দেখা যায়৷ এমন অনেক খাদ্য রয়েছে৷''

উলরিকে গোন্ডার এমন আরো ‘গুড গাই'-এর খোঁজ চালাচ্ছেন৷ সম্প্রতি বাদামের গুণাগুণ নিয়ে হইচই পড়ে গেছে৷ ফাইবার ছাড়াও বাদামের আরো গুণ রয়েছে৷ তিনি বলেন, ‘‘ব্রাজিল নাট, সেলেনিয়ামের মতো বাদামের অনেক গুণাগুণ রয়েছে৷ ক্যানসার সুরক্ষার ক্ষেত্রে এগুলি খুবই কার্যকর৷ তবে সব বাদাম ও অনেক উদ্ভিদের মধ্যে পলিফেনল রয়েছে৷ বিশেষ করে কোলন ক্যানসার মোকাবিলার ক্ষেত্রে বাদামের পলিফেনলের কার্যকারিতার প্রমাণ পাওয়া গেছে৷ বাদামের সমস্যা হলো, তাতে দ্রুত ছত্রাক ধরে যায়৷ ছত্রাক ক্যানসারের কারণ হতে পারে৷ তাই গোটা বাদাম কিনে বাসায় গুঁড়া করা ভালো৷ তবে ছোট টুকরো করার পর বেশিদিন রেখে না দেওয়াই ভালো৷''

মোনিকা কোভাকসিক/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন