খণ্ডচিত্র জুড়ে সৃষ্টির আনন্দে মিডিয়া শিল্পী | অন্বেষণ | DW | 01.09.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

খণ্ডচিত্র জুড়ে সৃষ্টির আনন্দে মিডিয়া শিল্পী

মিডিয়া শিল্পী বলে কাকে? তারা হলেন এমন সব শিল্পী, যারা ফিল্ম-টেলিভিশনের সিকোয়েন্স ও সাউন্ডট্র্যাকের টুকরো-টাকরা মিলিয়ে নতুন শিল্পকর্ম সৃষ্টি করেন – ভিডিও হিসেবে – যেমন বার্লিনের বিয়র্ন মেলহুস৷

বার্লিনের প্রেনৎসলাউয়ার ব্যার্গ এলাকার একটি ভিতর-বাড়ি৷ শিল্পীর ডেরায় স্বাগত জানানো হলো৷ শুধুমাত্র আমাদের জন্য বিয়র্ন মেলহুস আর তাঁর স্টাইলিস্ট ইউলিয়া নয়েনহাউসেন স্টোরে গিয়ে খুঁজে-পেতে তিন দশকের ফিল্ম প্রোডাকশানের পোশাক বার করে নিয়ে এসেছেন৷ তার মধ্যে কোনটা ওঁদের বিশেষ পছন্দ? ইউলিয়া বললেন, ‘‘সব ক'টাই দারুণ৷''

মেলহুস কখনো প্লেমোবিলের কায়দায় যমজ সাজছেন; কখনো বা তিনি একটা ‘স্মার্ফ' পুতুল, যা মেরিলিন মনরো-র মতো গাইতে পারে; কখনো সুপারম্যান, কখনো এলভিস প্রেসলি – এমন সব চরিত্র, যাদের চেনা যায়, যারা পপ কালচারের অঙ্গ৷

বিয়র্ন মেলহুসের সাজগোজের ধরনটা একটু অন্যরকম:‘‘একজন ঠিকঠাক সুপারম্যানের ঠিকঠাক একটা প্যান্ট লাগে, আর লাগে একটা ভদ্র মতন বেল্ট৷ – সুপারম্যানের কেপটা কিন্তু আসলে একটা প্যান্ট৷ ওটা কেপ-এর মতো করে বেঁধে খুব ভালো ওড়া যায়৷''

কিন্তু মেলহুস এই সাজপোশাক পরে ওড়বার আগে কিছু প্রস্তুতির প্রয়োজন: যার ভিত্তি হলো বিভিন্ন ফিল্মের সাউন্ডট্র্যাক৷ নানা ফিল্ম বা টেলিভিশন অনুষ্ঠান আর পপ গানের সংলাপ ও সংগীতের টুকরো মিশিয়ে একজন সুরকারের মতন একটা নতুন স্বরলিপি সৃষ্টি করেন মেলহুস৷

ভিডিও-র কাহিনি সৃষ্টির কাজ চলে সাউন্ডট্র্যাক তৈরির পাশাপাশি৷ বিয়র্নের ভাষায়: ‘‘এ কাজের অনেকটাই হল জমানো, বা ঘন করা৷ এই যে ‘মাস-মিডিয়া' থেকে নানা উপাদান বার করে নিয়ে সেগুলোকে একটা নতুন আঙ্গিকে দেখা ও পরিবেশন করা, এই কম্প্রেশান থেকেই আমরা যেভাবে পরস্পরের সঙ্গে কথা বলি, অথবা বলার চেষ্টা করতে গিয়ে ব্যর্থ হই, তার উদ্ভট দিকটা সৃষ্টি হয়৷''  

আমাদের খেলো, আত্মকেন্দ্রিক, ভোগ-সর্বস্ব দুনিয়াকে আমাদের চোখের সামনে তুলে ধরেন মেলহুস৷ তাঁর কাজে ক্রমেই আরো বেশি রাজনৈতিক চেতনা ও মন্তব্য ঢুকে পড়েছে৷ বিয়র্ন বলেন, ‘‘মিডিয়ায় যা ঘটছে, তা দেখলে আমার রাগ হয়৷ সমাজে যা ঘটছে, তা দেখলে আমার রাগ হয়৷ এই দুনিয়া যে ক্রমেই আরো বেশি করে আত্মরতি ও আত্মাভিমানে ডুবে যাচ্ছে, তা দেখলে আমার রাগ হয়৷''

এবার বিদায় নেওয়ার পালা৷ বিয়র্ন বললেন, ‘‘অনেক হয়েছে, অনেক দেখা হয়েছে, এবার আপনারা আসুন... তবে আসার জন্য অনেক ধন্যবাদ!''

কাটিয়া ল্যুবার/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়