ক্ষমতায় ফিরলেন বরিস জনসন | বিশ্ব | DW | 13.12.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

যুক্তরাজ্য

ক্ষমতায় ফিরলেন বরিস জনসন

আসন সংখ্যা আরও বাড়িয়ে যুক্তরাজ্যে ক্ষমতায় ফিরলেন বরিস জনসন৷ এখনও পর্যন্ত ফলাফল তাতে সংখ্যা গরিষ্ঠতা পেয়ে গিয়েছে কনজারভেটিভ পার্টি৷ যার অর্থ আগামী কিছু দিনের মধ্যেই ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বিদায় নেবে যুক্তরাজ্য৷

যুক্তরাজ্যের ভবিষ্যৎ ব্রেক্সিটেই৷ নির্বাচনী প্রচারে বরিস স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন, তাঁর দল জিতলে সরকার ব্রেক্সিটেরপ্রস্তুতি শুরু করবে৷ অন্যদিকে, জেরেমি করবিনের নেতৃত্বে লেবার পার্টি জানিয়েছিল, তারা ক্ষমতায় এলে দ্বিতীয়বার ব্রেক্সিটের জন্য গণভোটের ব্যবস্থা হবে৷ জনসনেই আস্থা রেখেছেন ভোটদাতারা৷

যুক্তরাজ্যের সময়ে বৃহস্পতিবার রাত ১০টায় শেষ হয়েছে সাধারণ নির্বাচন৷ তার পর থেকেই একে একে আসতে শুরু করে বুথ ফেরত সমীক্ষা৷ তাতেই স্পষ্ট হয়ে যায়, করবিনের লেবার পার্টির ক্ষমতায় আসার কার্যত কোনও সম্ভাবনা নেই৷ বিপুল ভোটে ক্ষমতায় ফিরছেন বরিস জনসন৷ বস্তুত, যুক্তরাজ্যের ইতিহাসে শেষ এত বড় জয় পেয়েছিলেন ১৯৮৭ সালে মার্গারেট থ্যাচার৷

বুথ ফেরত সমীক্ষার ফলাফলে বলা হয়েছিল কনজারভেটিভ পার্টি পেতে পারে ৩৬২টি পর্যন্ত আসন৷ যেখানে সরকার গড়ার জন্য প্রয়োজন ৩২৬ টি আসন৷ লেবার পার্টি পেতে পারে ১৯৯টি থেকে ২০৩টি আসন৷ লিবারাল ডেমোক্র্যাটস, এসএনপি, গ্রিন পার্টির মতো সবকটি দল মিলে একত্রে পেতে পারে ৭৫ থেকে ৮০টি আসন৷ এখনও পর্যন্ত ফলাফলের যা চিত্র, তাতে কনজারভেটিভ পার্টি জিতে গিয়েছে৩৬৩টি আসন৷ লেবার পেয়েছে ২০৩৷

নিজের কেন্দ্রে জিতলেও নির্বাচনের প্রাথমিক ফলাফল দেখে লেবার নেতা করবিন দলীয় নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছেন৷ তাঁর দলের বিপর্যয় এতটাই যে, একাধিকবার জেতা প্রার্থীরাও এবার পরাস্ত হয়েছেন কনজারভেটিভদের কাছে৷ যা থেকে স্পষ্ট, যুক্তরাজ্যের জনগণ ব্রেক্সিটের সিদ্ধান্তেই অনড়৷

১০ ডাউনিং স্ট্রিটের খবর, আগামী সোমবার বরিস জনসনের মন্ত্রিসভায় সামান্য পরিবর্তন হতে পারে৷ আর সাংসদদের সামনে ব্রেক্সিট বিল পেশ করা হবে আগামী শুক্রবার৷

গত পাঁচ বছরে এই নিয়ে তৃতীয়বার নির্বাচন হল যুক্তরাজ্যে৷ প্রতিবারেই নির্বাচনের প্রধান বিষয় হয়ে উঠেছে ব্রেক্সিট৷ এ বারের নির্বাচনে জলবায়ু পরিবর্তনের মতো বিষয় নিয়ে আলোচনা হলেও প্রচারের মূল বিষয় ছিল ব্রেক্সিটই৷ বিশেষজ্ঞেরা বলছেন, ব্রেক্সিট নিয়ে আর আলোচনার অবকাশ থাকল না৷ ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে এ বার পাকাপাকি ভাবে যুক্তরাজ্যের বিদায় নিশ্চিত হল৷

এসজি/জিএইচ (ডিডব্লিউ, বিবিসি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন