ক্রিকেট পাগল ভারতে মার্কিন ফুটবল? | খেলাধুলা | DW | 01.04.2012
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

খেলাধুলা

ক্রিকেট পাগল ভারতে মার্কিন ফুটবল?

যা’কে যুক্তরাজ্যে বলে রাগবি, তারই মার্কিন সংস্করণ হল এই অ্যামেরিকান ফুটবল৷ যে কারণে আদত ফুটবলকে অ্যামেরিকায় বলে ‘সকার’, যা এই সেদিনও মোটামুটি মেয়েদের খেলা বলেই সেখানে পরিচিত ছিল৷

New England Patriots wide receiver Wes Welker (83) is stopped by New York Giants linebackers Jacquian Williams, left, and Michael Boley during the second half of the NFL Super Bowl XLVI football game, Sunday, Feb. 5, 2012, in Indianapolis. (Foto:Mark Humphrey/AP/dapd)

Super Bowl 2012

অবশ্য সকার যে শুধু মেয়েদের খেলা নয়, বেকহ্যাম অ্যান্ড কো. সেটা বোঝানোর আপ্রাণ প্রচেষ্টা করে চলেছেন৷ মার্কিন সকার দলও এখন বিশ্বকাপে একটা পরিচিত মুখ৷ কিন্তু ভারতে ক্রিকেট যা, মার্কিন মুলুকে অ্যামেরিকান ফুটবলের মর্যাদা ঠিক সেই রকম৷ সঙ্গে আছে বেসবল ও বাস্কেটবল৷

এলিট ফুটবল লিগ অফ ইন্ডিয়া বা ইএফএলআই'এর নাম ১২০ কোটি ভারতীয়দের মধ্যে ক'জন শুনেছেন, বলা শক্ত৷ আগামী নভেম্বরে প্রথমে ১২টি দল নিয়ে ভারতে অ্যামেরিকান ফুটবলের এই লিগ চালু করার স্বপ্ন দেখেছেন মার্কিন মুলুকের অনেক মহারথী, যেমন অভিনেতা মার্ক ওয়ালবার্গ, সুপার বোওল জেতা প্রাক্তন কোয়ার্টার ব্যাক কার্ট ওয়ার্নার; এছাড়া মার্কিন এনএফএল'এর একাধিক কোচ, যেমন ফিলাডেলফিয়া ঈগলস'দের প্রাক্তন কোয়ার্টার ব্যাক রন জায়োর্স্কি, শিকাগো বেয়ার্স'দের প্রাক্তন কোচ মাইক ডিটকা, হল অফ ফেম'এর ওয়াইড রিসিভার মাইকেল আর্ভিন, যিনি ড্যালাস কাউবয়'দের হয়ে খেলতেন৷

United States' Megan Rapinoe, 2nd left, scores her side's 2nd goal during the group C match between the United States and Colombia at the Women’s Soccer World Cup in Sinsheim, Germany, Saturday, July 2, 2011. (Foto:Marcio Jose Sanchez/AP/dapd)

মার্কিনীদের মতে সকার নাকি মেয়েদের খেলা!

এদের উদ্দেশ্যটা কি? হঠাৎ ভারতের উপর এদের নজর পড়ল কি করে? ভারতে বছরে যে ২৪১ কোটি ডলারের বিজ্ঞাপনের বাজার, গতবছর তার এক-চতুর্থাংশই টেনেছে ক্রিকেট৷ ওদিকে কোটিপতি ও হলিউড অভিনেত্রীরা ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের দলগুলির আংশিক মালিকানা পেতে আকুল৷ ইএফএলআই'এর প্রতিষ্ঠাতা সানডে জেলার বলছেন, ‘‘প্রথমত টিভি টাইম পেতে এশিয়ায় বিভিন্ন ধরণের স্পোর্টের মধ্যে কোনো প্রতিযোগিতা নেই বললেই চলে৷ দ্বিতীয়ত, যেহেতু ক্রিকেট ছাড়া ভারতে আর কোনো পন্থা নেই, তাই আমরা সুবৃহৎ চেহারার, শক্তিশালী, ক্ষিপ্র সব অ্যাথলিটদের পাচ্ছি খেলোয়াড় হিসেবে৷'' তাই ইএফএলআই'এর ট্যালেন্ট স্কাউটরা রাগবি, কুস্তি ও ভলিবলের খেলোয়াড়দের মধ্যে ভবিষ্যতের অ্যামেরিকান ফুটবল মল্লদের খোঁজ চালাচ্ছে৷

মে মাসে কলকাতার সল্ট লেক স্টেডিয়ামে অ্যামেরিকান ফুটবলের ট্রায়াল রান শুরু হচ্ছে৷ পাকিস্তান, শ্রীলংকা এবং বাংলাদেশ থেকেও দল আসবে৷ নভেম্বর থেকে শুরু রীতিমাফিক মরশুমে খেলবে দিল্লি, মুম্বই, কলকাতা, ব্যাঙ্গালোর, হায়দ্রাবাদ, চেন্নাই, পুনে, রাজস্থান ও পাঞ্জাব৷

মনে রাখা দরকার, খোদ এনএফএল কিন্তু ১৬ বছরের ব্যর্থ প্রচেষ্টার পর তাদের ইউরোপীয় প্রতিযোগিতার অন্ত ঘটিয়েছে ২০০৭ সালে, কেননা ইউরোপ হল ফুটবলের রাজ্য, মার্কিন মুলুকে যা'কে বলে কিনা সকার৷

প্রতিবেদন: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী/এপি
সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন