ক্যাপিটল দাঙ্গার তদন্ত কমিটির সামনে ইভানকা ট্রাম্প | বিশ্ব | DW | 06.04.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্র

ক্যাপিটল দাঙ্গার তদন্ত কমিটির সামনে ইভানকা ট্রাম্প

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের উপদেষ্টা এবং কন্যা ইভানকা ট্রাম্প ক্যাপিটল ভবনে দাঙ্গার তদন্ত করা কংগ্রেসের কমিটির সামনে সাক্ষ্য দিয়েছেন৷ তার স্বামী জেরড ক্যাশনারও তদন্ত কমিটির সামনে উপস্থিত হয়েছেন৷

ছয় জানুয়ারির ক্যাপিটল দাঙ্গা নিয়ে গঠিত কংগ্রেসের কমিটির সামনে মঙ্গলবার ভার্চুয়ালি সাক্ষ্য দিয়েছেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের মেয়ে ইভানকা ট্রাম্প৷

আট ঘণ্টা মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদের কমিটির নানা প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন এই ব্যবসায়ী, যিনি ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট থাকাকালে তার উপদেষ্টা ছিলেন৷

ইভানকা অবশ্য স্বেচ্ছায় কমিটির সামনে সাক্ষ্য দিয়েছেন৷ তদন্ত কমিটি আগেই জানিয়েছিল যে ট্রাম্প সমর্থকরা ক্যাপিটল ভবনে হামলা চালালে তখন সহিংসতা বন্ধে উদ্যোগী হতে প্রেসিডেন্টকে অনুরোধ করেছিলেন ইভানকা ৷

মার্কিন ক্যাপিটল ভবনে সেই হামলায় অন্তত পাঁচজনের মৃত্যু হয়৷ ১৩০ জন পুলিশ অফিসার আক্রান্ত হন৷ ক্যাপিটলের ভিতরে ঢুকে তছনছ করে দেওয়া হয় সবকিছু৷ অ্যামেরিকার ইতিহাসে প্রথম এমন হামলার ঘটনা ঘটে৷ ডনাল্ড ট্রাম্প এবং তার ঘনিষ্ঠরা হামলায় ইন্ধন যুগিয়েছিলেন কিনা তা তদন্ত হচ্ছে এখন

তদন্ত প্রায় শেষ

কমিটি ইতোমধ্যে আটশোর মতো প্রতক্ষ্যদর্শীর সাক্ষ্য নিয়েছে, যাদের মধ্যে ইভানকা ট্রাম্পের স্বামী জেরড ক্যাশনারও রয়েছেন৷ গতসপ্তাহে তাকে ছয় ঘণ্টার মতো জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল কংগ্রেসের কমিটি৷ 

তদন্ত কমিটির ডেমোক্রেটিক চেয়ারম্যান বেনি টম্পসন মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনকে বলেন, ‘‘ইভানকা নানা প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন৷ আমি যেটা বোঝাচ্ছি তাহচ্ছে, তিনি কোনো আড্ডার ছলে নয়, বিভিন্ন প্রশ্নের সরাসরি উত্তর দিয়েছেন৷’’

‘‘তিনি নিজেই এসেছেন৷ অবশ্যই সেটার বাড়তি গুরুত্ব রয়েছে৷ আমাদের আদালতের মাধ্যমে কোনো সমন জারি করতে হয়নি,'' যোগ করেন টম্পসন৷

এদিকে, তদন্তকাজ প্রায় শেষ হয়ে গেছে বলে জানা গেছে৷ মে মাসে এসংক্রান্ত গণশুনানি অনুষ্ঠিত হবে৷

এআই/কেএম (এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন