ক্যানাডা থেকে মাংস আমদানিতে চীনের নিষেধাজ্ঞা | বিশ্ব | DW | 26.06.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

ক্যানাডা থেকে মাংস আমদানিতে চীনের নিষেধাজ্ঞা

জাল সনদের অভিযোগ এনে ক্যানাডা থেকে মাংস আমদানি বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে চীন৷ অভিযোগ খতিয়ে দেখছে ক্যানাডা৷ এর ফলে দুই দেশের কূটনৈতিক বিরোধ আরো তীব্র হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে৷

ক্যানাডায় নিযুক্ত চীনা দূতাবাস তাদের ওয়েব সাইটে জানিয়েছে, মাংস পরীক্ষায় দেখা গেছে পশুর স্বাস্থ্য সনদ জাল করা হয়েছে৷ তাই মাংসের অর্ডার বাতিল করা হয়েছে৷

চীনের দাবি, ক্যানাডা থেকে আমদানি করা শূকরের মাংস পরীক্ষায় রেক্টোপামাইন উপাদান পাওয়া গেছে৷ যা পৃথিবীর অনেক দেশেই নিষিদ্ধ৷

২৫শে জুন ওয়েবসাইটের ওই বিবৃতিতে আরো বলা হয়, ‘‘দেশের সাধারণ ক্রেতাদের নিরাপত্তা কথা ভেবে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে৷ রপ্তানি সনদ বাতিলেরও অনুরোধ জানানো হয়েছে ক্যানাডা সরকারকে৷''

সাধারণত পশুর মোটা তাজায় ব্যবহার হয় রেক্টোপামাইন৷ চিন এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নে উপাদানটির ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধা৷ যদিও যুক্তরাষ্ট্রে অবাধে ব্যবহার হয়৷

আফ্রিকান সোয়াইন ফ্লু মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়লে চীনের লাখ লাখ পশু মারা যায়৷ আর তাতেই পৃথিবীর সবচেয়ে জনবহুল দেশটিতে মাংসের দাম বেড়ে যায়৷ সেই বিষয়টিও ক্যানাডা থেকে মাংস আমদানি বন্ধে প্রভাব ফেলতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷

ক্যানাডার কৃষিমন্ত্রী ম্যারি-ক্লাউড বিবেয়াও বলেছেন, সংকট নিরসনে চিনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ করছে ক্যানাডা খাদ্য ও তদন্ত সংস্থা (সিএফআইএ)৷ সংস্থাটি ‘অননুমোদিত রপ্তানি সনদের‘ বিষয়ে নিশ্চিত হয়েছে বলেও জানান কৃষিমন্ত্রী৷

এক বিবৃতিতে, ক্যানাডার কৃষিমন্ত্রী আরো জানান, তদন্তের কারিগরী দিকগুলো নিয়ে কাজ করার পাশাপাশি আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে তা অবগত করছে সিএফআইএ৷ শুধু চীনের ক্ষেত্রেই এমনটি ঘটেছে, কিন্তু অন্য দেশগুলোতে রপ্তানি সনদে কোনো ঝামেলা নেই বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়৷ এএফপি জানিয়েছে, বিষয়টি নিয়ে রয়েল কানাডিয়ান মাউন্টেড পুলিশও তদন্তে নেমেছে৷

এদিকে, কিছুদিন আগে ক্যানাডায় গ্রেপ্তার হয়েছেন চীনের টেক জায়ান্ট হুয়াওয়ের আর্থিক বিভাগের প্রধান মেন ওয়াংঝো৷ ইরানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা লংঘনের অভিযোগে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ এর মধ্যে, দুই দেশের মধ্যে আবারো মাংস নিয়ে বিতর্ক শুরু হলো৷ ওয়াংঝোর দাবি তিনি অন্যায় কিছু করেননি এবং বেইজিংও তাঁর মুক্তির দাবি জানিয়েছে৷

ওই ঘটনার জবাবে, দুই কানাডীয় নাগরিককে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে আটক করেছে চিন৷ এছাড়া মাংস আনা বন্ধের আগেই কানাডা থেকে ক্যানোলার মতো বিভিন্ন পণ্য আমদানিও বন্ধ রেখেছে চীন৷

সপ্তাহান্তে জি-২০ সম্মেলনে  অংশ নিতে জাপান যাচ্ছেন কানাডিয়ান প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো৷ সেখানে চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের কথা ভাবছেন ট্রুডো৷

এএফপি, রয়টার্স, এপি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন