ক্যানাডায় বন্দুকধারীর হামলা | বিশ্ব | DW | 20.04.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ক্যানাডা

ক্যানাডায় বন্দুকধারীর হামলা

লকডাউনের মধ্যেই ক্যানাডায় বন্দুকধারীর হামলা। মৃত অন্তত ১০। ১২ ঘণ্টার চেষ্টায় গুলিবিদ্ধ আততায়ী।

ক্যানাডায় বন্দুকবাজের হামলা। মৃত ১০। যদিও পুলিশের দাবি, মৃতের সংখ্যা আরও বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, আক্রমণকারী বন্দুকবাজও পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছে। যদিও রোববার পুলিশ দাবি করেছিল, গাড়ি ধাওয়া করে ওই বন্দুকধারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ঘটনার সূত্রপাত ক্যানাডার সময় শনিবার রাতে। দেশের নোভা স্কটিয়া প্রভিন্সে আচমকাই হামলা চালায় এক বন্দুকধারী। কোনও কোনও প্রত্যক্ষদর্শীর বয়ান অনুযায়ী, একটি পুলিশের গাড়ি থেকে গুলি ছোড়া হচ্ছিল। প্রাথমিক ভাবে পুলিশও জানিয়েছিল, আততায়ী পুলিশের পোশাক পরে একটি পুলিশের গাড়ির মতো দেখতে এসইউভি নিয়ে রাস্তায় নেমেছিল। পরে অবশ্য পুলিশ জানায়, আততায়ী একটি সাধারণ গাড়ি ব্যবহার করেছিল। শনিবার রাত থেকে রবিবার সকাল পর্যন্ত লাগাতার হামলা চালায় ওই বন্দুকধারী। পুলিশ জানিয়েছে, রোববার সকালে একটি গ্যাস স্টেশনে গুলি করে মারা হয় তাকে। বন্দুকধারীর নাম গ্যাব্রিয়েল ওর্টম্যান। বয়স ৫১ বছর। দাঁতের চিকিৎসার সঙ্গে যুক্ত ছিল সে। ২০১৪ সালে স্থানীয় একটি সংবাদমাধ্যম তাঁর সাক্ষাৎকারও নিয়েছিল। কেন গ্যাব্রিয়েল এ কাজ করল, সে বিষয়ে এখনও পর্যন্ত কিছু জানায়নি পুলিশ।

রয়্যাল ক্যানাডিয়ান মাউন্টেড পুলিশের প্রধান ক্রিস লেদার জানিয়েছেন, ''আমাদের ধারণা ১০ জনের বেশি লোকের মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু এখনই নির্দিষ্ট সংখ্যা বলা যাচ্ছে না। বন্দুকবাজের গুলিতে একজন পুলিশ অফিসার নিহত এবং একজন আহত হয়েছেন।'' ক্যানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো ঘটনাটিকে 'মর্মান্তিক' বলে ব্যাখ্যা করেছেন।

কয়েক মাস আগে জার্মানিতেও বন্দুকবাজের হামলা হয়েছিল। সেই ঘটনাতেও বেশ কিছু মানুষ প্রাণ হানিয়েছিলেন। পরে জানা গিয়েছিল, ইসলামোফোবিয়া থেকেই ওই ঘটনা ঘটিয়েছিল বন্দুকবাজ। ঘটনার পরে জার্মানি জুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছিল। ক্যানাডার ঘটনাতেও একই ধরনের মানসিকতা কাজ করেছে কি না, তা নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে। যদিও দেশের প্রশাসন কিংবা পুলিশ, কেউই এখনও পর্যন্ত হামলার কারণ নিয়ে কোনও কথা বলেননি। বস্তুত, ওই আততায়ী এর আগেও এমন কোনও ঘটনা ঘটিয়েছিল কি না, সে বিষয়েও কিছু জানা যায়নি। তবে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ওই ব্যক্তি নির্বিচারে গুলি চালাতে চালাতে রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিল। বাড়ি লক্ষ্য করেও গুলি চালানো হয়।

এসজি/জিএইচ (রয়টার্স, এপি)

বিজ্ঞাপন