ক্যাথলিক স্কুলগুলোয় মুসলিম ছাত্রদেরও ধর্মের ক্লাস করতে হবে | বিশ্ব | DW | 07.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

ক্যাথলিক স্কুলগুলোয় মুসলিম ছাত্রদেরও ধর্মের ক্লাস করতে হবে

রাষ্ট্রের অর্থায়নে পরিচালিত ক্যাথলিক স্কুলগুলোয় মুসলিমদের অবশ্যই ধর্মীয় ক্লাসে অংশ নিতে হবে৷ হ্যাঁ, মামলার শুনানি না শুনেই এমন রায় জার্মানির সাংবিধানিক আদালতের৷ এতে কি প্রমাণ হয় যে, জার্মানিতে চার্চ ও রাষ্ট্র আলাদা নয়?

জার্মানির উত্তর রাইন-ওয়েস্টফেলিয়া রাজ্যে বসবাসকারী এক মুসলিম দম্পতি মার্চ মাসে আদালতে একটি আবেদন করেছিল৷ বলেছিল, রাষ্ট্রীয় অর্থায়নে পরিচালিত ক্যাথলিক স্কুলগুলোয় ধর্মীয় ক্লাসে অংশ নেয়া থেকে যেন মুসলিম ছেলে-মেয়েদের অব্যাহতি দেয়া হয়৷ জার্মানির সাংবিধানিক আদালত সেই মামলাটাকেই প্রত্যাখ্যান করে৷ আদালতের কথায়, মুসলিম সেই দম্পতি এমন কোনো শক্তিশালী যুক্তি উপস্থাপন করতে পারেননি যাতে করে আদালত মামলাটি বিবেচনায় নেয়৷

স্কুলটির পরিচালক অবশ্য ঐ অভিভাবককে আগেই জানিয়েছিলেন যে, তাঁদের সন্তান ধর্মের ক্লাস ও স্কুলের চার্চ সার্ভিসে অংশ না নিলে স্কুলে যোগ দিতে পারবে না৷ তবে শুধু সেই দম্পতির সন্তান নয়, ক্যাথলিক নয় এমন সবার ক্ষেত্রেই এই নিয়ম৷

ধর্মীয় নিরপেক্ষতা?

নর্থ রাইন-ওয়েস্টফেলিয়ার বা এনআরডাব্লিউ হলো জার্মানির একমাত্র রাজ্য, যেখানে জনসাধারণের অর্থায়নে ধর্মীয় স্কুল পরিচালিত হয়৷

আদালত নিশ্চিত করে যে, এনআরডাব্লিউ-এর একটি প্রশাসনিক আদালত তাদের রায়ে জানিয়েছে, ক্যাথলিক এবং প্রটেস্টান্ট – খ্রিষ্টানদের এই দুই অংশই তাদের মতো করে ‘পাবলিক ফান্ডেড' স্কুল পরিচালনা করতে পারে৷ এই স্কুলগুলো নাকি তাদের নিজস্ব ধর্মীয় বিশ্বাস অনুযায়ী যেমন খুশি ছাত্রদের পড়ার সুযোগ করে দিতে পারে৷ এমনকি জায়গা খালি থাকলে ক্যাথলিক নয় এমন ছাত্রদেরও পড়ার সুযোগ দিতে পারে৷ অন্যদিকে, সংবিধানের ৭ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে, ‘শিশুরা ধর্মীয় নির্দেশনা পাবে কিনা সেই সিদ্ধান্ত নেয়ার অধিকার রয়েছে বাবা-মা অথবা অভিভাবকদের হাতে৷' এ বিষয়ে বার্লিন সোশ্যাল সায়েন্স সেন্টারের গবেষক ও হিল্ডেসহাইম বিশ্ববিদ্যালয়ের পাবলিক আইন বিষয়ের অধ্যাপক মিশায়েল ভ্রাসে মনে করেন আদালতের এই রায়ে জটিলতা আছে৷ তিনি বলেন, ‘‘এটি এমন একটি বিষয়, যেখানে বিতর্কের যথেষ্ট সুযোগ আছে৷''

ইতিহাসের সমস্যা...

জার্মানির লিগ্যাল ইন্সটিটিউট অফ ইভানগেলিকাল চার্চের পরিচালক ও গ্যোটিঙ্গেন বিশ্ববিদ্যালয়ের চার্চ আইন বিভাগের অধ্যাপক হান্স হাইনিগ মনে করেন, আদালতের এই সিদ্ধান্তের পেছনে যথেষ্ট যুক্তি আছে৷

তিনি বলেন, ‘‘আদালতের যুক্তি বেশ দৃঢ় ছিল৷ যতদিন পর্যন্ত ধর্মীয় স্কুল আছে, ততদিন পর্যন্ত স্কুলগুলোকে ধর্মীয় প্রোফাইলে রক্ষার অনুমতি দেওয়া উচিত এবং ধর্মীয় নির্দেশনা এখানে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়৷''

জার্মানিতে ফেডারেল সরকারের বদলে রাজ্য সরকারের হাতে স্কুলের নির্দেশনা দেয়াসহ সব ধরনের ক্ষমতা আছে৷ নাৎসি আমলের সেই কেন্দ্রীভূত হস্তক্ষেপ থেকে স্কুলগুলোকে দূরে রাখতেই এই ব্যবস্থা৷ যদিও অধ্যাপক হাইনিগ মনে করেন, জনগণের অর্থায়নে পরিচালিত ধর্মীয় স্কুলগুলোতে বিদ্যালয়গুলির এই নিয়ম এখন অচল৷ 

... এবং রাজনৈতিক সদিচ্ছা

অধ্যাপক হাইনিগের মতে, রাজনৈতিক কাপুরুষতা ধর্মীয় শিক্ষা সম্পর্কিত সমস্যাগুলোকে আরও জটিল করছে৷ জার্মানিতে সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটরা এনআরডাব্লিউ-এর মতো বেশ কিছু রাজ্য শাসন করে৷ ‘‘অবশ্য তারা রাজ্যের ক্যাথলিক চার্চগুলোর সাথে কখনোই কোনো বিতর্কে জড়ায়নি, নাক গলায়নি স্কুলের কোনো বিষয়ে৷''

অদ্ভুত কারণে বাভেরিয়া রাজ্যে কিন্তু রয়েছে সম্পূর্ণ আলাদা নিয়ম৷ এখানকার বিশাল জনগোষ্ঠি ক্যাথলিক এবং রক্ষণশীল খ্রিষ্টান সোশ্যাল ইউনিয়ন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত, কিন্তু একইসাথে এ এলাকায় অনেক ধর্মনিরপেক্ষ স্কুল রয়েছে৷ স্কুলগুলোতে ধর্ম এবং সরকার ব্যবস্থাকে আলাদা রাখতে কর্মকর্তারা নানা কঠোর অবস্থান বজায় রেখেছেন৷ উত্তর রাইন-ওয়েস্টফেলিয়া যেটা পারেনি৷

উল্লেখ্য, জার্মানির ১৬টির মধ্যে ৮টি রাজ্যে ধর্মীয় কারণে নারী শিক্ষকদের মাথায় স্কার্ফ পরা নিষিদ্ধ৷

বেন নাইট/এএম

 

নির্বাচিত প্রতিবেদন