কোরিয়ান তারকাকে প্রেমপত্র দিতে গিয়ে ধরা খেলেন জার্মান নাগরিক | বিশ্ব | DW | 02.01.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

দক্ষিণ কোরিয়া

কোরিয়ান তারকাকে প্রেমপত্র দিতে গিয়ে ধরা খেলেন জার্মান নাগরিক

কোরিয়ার কে-পপ গার্ল, ‘টোয়াইস' ব্যান্ডের  তারকা  নায়নকে ‘প্রেমপত্র' দিতে গিয়েছিলেন এক জার্মান নাগরিক৷ বিষয়টি সামলাতে শেষ পর্যন্ত পুলিশকে হস্তক্ষেপ করতে হয়েছে৷ 

বুধবার ঘটেছে এই ঘটনা৷ টোয়াইসের ম্যানেজাররা জানিয়েছেন যে তারা পুরো বিষয়টি নিয়ে আইনি ব্যবস্থা নেবেন৷ কে-পপ সংক্রান্ত ইংরেজি ব্লগ ‘অলকেপপ' জানিয়েছে এই ঘটনা৷

এজেন্সিটি বলছে, দলটি জাপান থেকে দক্ষিণ কোরিয়া যাচ্ছে বলে খবর পান সন্দেহভাজন ব্যক্তি৷ তিনি নিজেও টিকিট কাটেন৷ এরপর বিমানে উঠে কখনো গলার আওয়াজ চড়িয়ে আবার কখনো তাঁর নিরাপত্তা দলের সঙ্গে বিবাদে জড়িয়ে নায়নের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করেন৷

কোরিয়া টাইমস জানিয়েছে, টোয়াইসের অফিসিয়াল ইনস্টাগ্রাম পেজে বিমানের ভেতরের একটি ছবিসহ ঘটনাটি প্রকাশ করার পর ফ্যানরা বিষয়টি নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন৷

‘‘দয়া করে বাড়ি ফিরে যান৷ থামুন৷ অনুরোধ করছি,'' পোস্টটিতে লেখা হয়েছিল বলে জানায় পত্রিকাটি৷ পরে অবশ্য পোস্টটি মুছে ফেলা হয়৷

দলটির ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি জেওয়াইপি এন্টারটেইনমেন্ট জানিয়েছে, কেমন করে তাদের বিমানের তথ্য প্রকাশ পেয়েছে এবং সেই টিকিট অনলাইনে বিক্রি হয়েছে তা খুঁজে দেখতে চায় তারা৷

উত্যক্তকারী সেই ব্যক্তিকে জার্মান নাগরিক বলে উল্লেখ করা হয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার পত্রপত্রিকায়৷ তার টুইটার ও ইউটিউব ঘেটে দেখা গেছে যে তিনি অনেক দিন ধরে সেখানে কে-পপ তারকা নায়নের সঙ্গে দেখা হবার বাসনা জানাচ্ছিলেন৷

ঘটনার পর তিনি দাবি করেন, তিনি নায়নকে ‘প্রেমপত্র' দিতে যাচ্ছিলেন এবং দলটির ম্যানেজাররা এ সময় তার গায়ে হাত দিয়েছেন৷

টুইটারে তিনি লেখেন, ‘‘ম্যানেজাররা কোনো কারণ ছাড়াই বিমানের ভেতর আমার ওপর আক্রমণ করেন৷ আমি শান্তভাবে নায়নকে আমার প্রেমপত্র দিতে গিয়েছিলাম৷ তখন দুইজন ম্যানেজার ঝাপিয়ে পড়েন৷ এগুলোর মানে কী?''

আরেকটি টুইটে তিনি দাবি করেন, তিনি ঐ দলটিকে কোনোভাবে উত্যক্ত করতে চাননি৷ শুধু নায়নের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করতে গিয়েছিলেন৷

নায়নের ফ্যানরা সেখানে কমেন্ট করে বলেন, ‘‘তিনি ভয় পেয়েছেন৷ আপনি থামুন৷'' নায়নকে আর না জ্বালানোর অনুরোধ করেন তারা৷

রেবেকা স্টাউডমায়ার/জেডএ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন