কোন দিকে যাচ্ছে বাংলাদেশ? | বিশ্ব | DW | 17.11.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

কোন দিকে যাচ্ছে বাংলাদেশ?

বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে হত্যার হুমকি এবং পরে সাকিবের ক্ষমা চাওয়াকে এক অদ্ভুত পরিস্থিতি হিসেবে দেখছেন বিশ্লেষকেরা৷ তারা বলছেন বাংলাদেশ ক্রমেই তার অসাম্প্রদায়িক চরিত্র হারাচ্ছে৷ পেছনের দিকে হাঁটছে দেশ৷

পুলিশ অবশ্য এরইমধ্যে সাকিবকে ফেসবুক ভিডিওতে চাপাতি উঁচিয়ে হত্যার হুমকিদাতা সিলেটের মহসিন তালুকদারকে  গ্রেপ্তার করেছে৷ সুনামগঞ্জ থেকে র‌্যাব মঙ্গলবার সকালে গ্রেপ্তার করে৷ গত রোববার রাত ১২টার পর সে ফেসবুক লাইভে চাপাতি উঁচিয়ে সাকিবকে কুপিয়ে হত্যার হুমকি দেন৷ সাকিব মুসলমান হয়েও কলকাতা গিয়ে ‘পূজার উদ্বোধন করেছে’ এই অজুহাতে তাকে গালাগাল ও পায়ে হেঁটে ঢাকা গিয়ে হত্যার হুমকি দেন ওই যুবক৷ সোমবার ভোররাতে অবশ্য আরেকটি ভিডিওতে সে ক্ষমাপ্রার্থনা করেন৷

সাকিব আল হাসান তাকে হত্যার হুমকির বিষয়টি উল্লেখ না করে সোমবার তার ইউটিউব চ্যানেলে বলেন, ‘‘আমি নিজেকে একজন গর্বিত মুসলমান মনে করি৷ অনেকেই বলছে, আমি পূজা উদ্বোধন করেছি৷ যেটি আমি কখনোই করিনি৷ সচেতন মুসলমান হিসেবে আমি এটা করবো না৷ তারপরও হয়তো ওখানে যাওয়টাই আমার ঠিক হয়নি৷ সেটি যদি আপনারা মনে করে থাকেন তার জন্য আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত৷ ক্ষমা প্রার্থী৷ আমি আশা করবো, আপানারা এটি ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন৷ এরকম কোনো ঘটনা যেন আর না ঘটে, সেটিও আমরা চেষ্টা করবো৷’’

দুইটি বিষয় নিয়ে কয়েকজন ক্রিকেটারের সাথে যোগাযোগ করেও তাদের মন্তব্য পাওয়া যায়নি৷ তবে সাবেক ক্রিকেটার রকিবুল হাসান বলেন, ‘‘পুরো বিষয়টি সাকিবের নিজস্ব ও ব্যক্তিগত ব্যাপার ৷ এর সাথে ক্রিকেটের কোনো সম্পর্ক নাই৷ তিনি কীভাবে ভালো থাকবেন সেই সিদ্ধান্ত তার৷ এর বেশি আর কোনো মন্তব্য আমি করতে চাই না৷’’

ইসলামী চিন্তাবিদরা বলছেন, মুসলমানরা অন্য ধর্মাবলম্বীদের সঙ্গে সংহতি জানাতে তাদের ধর্মীয় অনুষ্ঠানে যেতে পারেন৷ এদে দোষের কিছু নাই৷ আর এজন্য হত্যার হুমকি দেয়া গর্হিত অপরাধ৷ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক শফিকুর রহমান বলেন, ‘‘মুসলমানরা পূজা বা অন্য ধর্ম পালন করবে না৷ কিন্তু অন্য ধর্মের অনুষ্ঠান বা পূজায় সংহতি জানাতে যেতে পারবেন৷ এতে কোনো বাধা নাই৷ আমাদের দেশের মন্ত্রী-এমপিরাও তো যান৷’’ তিনি আরো বলেন, ‘‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা এবং সবার প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশের জন্য অন্য ধর্মের অনুষ্ঠানে মুসলমানেরা যেতে পারেন৷’’

বিশ্লেষক ও মানবাধিকার কর্মীরা বলছেন, বাংলাদেশ ধীরে ধীরে তার অসাম্প্রদায়িক চরিত্র হারাচ্ছে৷ উগ্রতা বেড়ে যাচ্ছে৷ প্রকৃত ধর্মীয় শিক্ষার অভাবে যেমন এটা হচ্ছে, তেমনি রাজনৈতিক দলগুলো ভোটের রাজনীতিতে এই অপশক্তিগুলোকে প্রশ্রয় দিচ্ছে৷ মানবাধিকার কর্মী নূর খান বলেন, ‘‘সাকিবকে হত্যার হুমকি দিয়ে ওই ব্যক্তি ধর্মীয় উগ্রতার প্রকাশ ঘটিয়ছে৷ আবার সাকিব নিজেকে গর্বিত মুসলমান বলে ক্ষমা চেয়ে যে কথা বলেছেন তার মধ্যেও ভাবনার বিষয় আছে৷’’

অডিও শুনুন 00:55

মুসলমানরা অন্য ধর্মের অনুষ্ঠান বা পূজায় সংহতি জানাতে যেতে পারবেন: ঢাবি অধ্যাপক

তিনি বলেন, ‘‘আমার মনে হয় তিনি ভয়ে বা অন্য কোনো কারণে এরকম কথা বলেছেন৷ তবে আমার বিশেষভাবে মনে হয় তিনি নিজের নিরাপত্তার দিক বিবেচনা করেই ওইসব কথা বলেছেন৷ পরস্থিতি এতই খারাপ যে তিনি নিরাপত্তা ছাড়া আর কিছু ভাবতে পারছেন না৷’’

বাংলাদেশের যে ঐতিহাসিক ধারা সেই বিবেচনায় দেশ এখন পিছনের দিকে হাঁটছে বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের অধ্যাপক শেখ হাফিজুর রহমান কার্জন৷ তিনি বলেন, ‘‘শুধু সাকিব নয় আমরা প্রায়ই এরকম হত্যার হুমকি দেখি৷ বুদ্ধিজীবী, ব্লগার, ভিন্ন চিন্তার মানুষকে সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমে এরকম হুমকি দেয়া হয়৷ ইসলামের প্রকৃত শিক্ষা না থাকায় এই পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে৷ এই গোষ্ঠীর কারণে নারী নীতি বাস্তবায়ন করেনি সরকার৷ তারা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যকে মূর্তি বলে অপসারণ করতে বলছে৷’’

অডিও শুনুন 07:55

বাংলাদেশ পিছনের দিকে হাঁটছে: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক শেখ হাফিজুর রহমান কার্জন

তিনি মনে করেন, ‘‘বাংলাদেশের ৫২-এর ভাষা আন্দোলন, ৭১-এর মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস দেখলে এটা স্পষ্ট যে বাংলাদেশ পিছনের দিকে হাঁটছে৷ এখানে ধর্মীয় মৌলবাদ জেঁকে বসছে৷’’

তার মতে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সত্যিকারভাবে চর্চা না করে এটাকে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহারের কারণে এই পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে৷

তিনি সাকিব আল হাসান প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘এক ধর্মের মানুষ আরেক ধর্মের অনুষ্ঠানে যেতে পারবেন না এটা কেমন কথা? মুসলমানরা কি অমুসলমানদের সঙ্গে সম্পর্ক রাখবে না৷ মুসলমান অমুসলমান চিকিৎসকের চিকিৎসা নেবে না৷ ভারতে তো অনেক মুসলমান আছে প্রতিমা বানায়৷ সেটা তাদের পেশা৷ আবার  ভারতই গরুর মাংস রপ্তানি করে৷ সেটাও তাদের ব্যবসা৷ সাকিব আল হাসানকে হত্যার হুমকি ধর্মীয় উগ্রতার চরম বহিঃপ্রকাশ৷’’

সাকিবের ক্ষমা চাওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘তিনি অন্য কোনো ধর্মের অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন কি নেবেন না সেটা তার ব্যক্তিগত ব্যাপার৷’’

গতবছর অক্টোবরের ছবিঘরটি দেখুন....

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন