কে হচ্ছেন শ্রীলংকার পরবর্তী প্রেসিডেন্ট? | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 16.11.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

শ্রীলংকা

কে হচ্ছেন শ্রীলংকার পরবর্তী প্রেসিডেন্ট?

শ্রীলংকায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোট দিয়েছেন দেশটির মানুষ৷ কে হবেন দেশটির পরবর্তী রাষ্ট্রপতি এ নিয়ে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে চলছে বিশ্লেষণ৷

পডুজানা পেরামুনা দল থেকে মনোনীত প্রেসিডেন্ট প্রার্থী গোতাভায়া রাজাপাকসে

পডুজানা পেরামুনা দল থেকে মনোনীত প্রেসিডেন্ট প্রার্থী গোতাভায়া রাজাপাকসে

নতুন প্রেসিডেন্ট শ্রীলংকার ভূরাজনৈতিক কৌশলের উপর প্রভাব রাখবেন বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা৷

এক নজরে নির্বাচনের খুঁটিনাটি

  • বিভিন্ন দলের মোট ৩৫জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দীতা করছেন৷ এটি শ্রীলংকার ইতিহাসে সর্বোচ্চ সংখক প্রার্থী৷ সর্বশেষ নির্বাচনে মোট প্রার্থী ছিল ২২ জন৷

  • প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন দুজন বৌদ্ধ ধর্মীয় নেতা, চারজন মুসলিম ধর্মীয় নেতা ও একজন নারী

  • দেশটির ভোটার সংখ্যা প্রায় ১৬ মিলিয়ন৷

  • নির্বাচনে জয়ী হতে হলে একজন প্রার্থীকে শতকরা ৫০ ভাগের বেশী ভোট পেতে হবে৷

  • বর্তমান প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী কেউই প্রার্থী নন৷ শ্রীলংকার ইতিহাসে এমন ঘটনা প্রথম৷

  • আগামী বছর দেশটির জাতীয়সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে৷

 

তীব্র প্রতিযোগিতায় প্রার্থীরা

মোট ৩৫জন প্রার্থী থাকলেও প্রতিযোগিতায় এগিয়ে আছেন মূলত দুজন প্রার্থী৷ তাঁরা হলেন শ্রীলংকা পডুজানা পেরামুনা দল থেকে মনোনীত গোতাভায়া রাজাপাকসে আর ন্যশনাল ডেমোক্র্যাটিক দলের সজিত প্রেমাদাসা৷

নির্বাচনকে সামনে রেখে এ দুজন অন্যান্য রাজনৈতিক দলের সমন্বয়ে বড় দুটি জোট গড়তে সমর্থ হয়েছেন৷ তবে রাষ্ট্রপতি হিসেবে ভোটাররা কাকে বেছে নিবেন এ বিষয়ে কোন ধারণা করতে পারছেন না বিশ্লেষকরা৷

বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী সিংহল গোষ্ঠীর কাছে বেশ জনপ্রিয় গোতাভায়া রাজাপাকসে৷ সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহিন্দ রাজাপাকসের ছোট ভাই গোতাভায়া রাজাপাকসে ২০০৯ সালে তামিল বিদ্রোহীদের দমণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন৷

গত এপ্রিলের বোমাহামলার পর সংখ্যাগরিষ্ঠ সিংহল গোষ্ঠীর সদস্যরা প্রেসিডেন্ট হিসেবে এমন একজনকে দেখতে চাইছেন যিনি দেশের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার বিষয়ে কৌশলগত সমাধান দিতে পারবেন৷

নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে সিংহল গোষ্ঠীর প্রথম পছন্দ গোতাভায়া রাজাপাকসে, ডয়চে ভেলেকে বলেন হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক এবং শ্রীলংকার ওপেন ইউনিভার্সিটির প্রফেসর ড. হারশানা রাম্বুকএয়েলা৷

তবে তাঁর বিরুদ্ধে গুম, খুনসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগও রয়েছে, যেটি প্রতিযোগিতায় তাঁকে কিছুটা পেছনে ফেলতে পারে, বলেন তিনি৷

অন্যদিকে সজিত প্রেমাদাসা দারিদ্রদূরীকরণসহ উন্নয়নমূখী প্রকল্পের জন্য ভোটারদের কাছে বেশ জনপ্রিয় বলে জানা গেছে৷ বর্তমান সরকারের গৃহায়ণমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বপালনরত প্রেমাদাসা তাঁর রাজনৈতিক ইশতেহারে দারিদ্রবিমোচনের বিষয়াদিকে বেশি গুরুত্ব দিতে দেখা গেছে৷

তবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা বলছেন প্রেসিডেন্ট হতে হলে দেশটির সংখ্যালঘু মুসলিম ও খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের ভোট পাওয়াটাও জরুরি৷

এপ্রিলের বোমা হামলার পর এ দুই সম্প্রদায়ে মধ্যে এক ধরনের অবিশ্বাস জন্ম নিয়েছে আর যে কারণে এ সংখ্যালঘুরা মূলত কোন প্রার্থীর উপর রাজনৈতিক আস্থা রাখবে সে বিষয়টি অনুমান করা যাচ্ছে না৷

সতর্ক  ভারত ও চীন

ভৌগলিকভাবে শ্রীলংকা একটি গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে থাকায় দির্ঘদিন ধরেই নয়া দিল্লি ও বেইজিং কলম্বোতে নিজেদের রাজনৈতিক অবস্থান শক্তিশালী করার প্রতিযোগীতায় ন্যাস্ত৷

২০০৫ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত মাহিন্দ রাজাপাকসের শাসনামলে শ্রীলংকার রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক খাতে চীনের সরব উপস্থিতি দেখা গেছে৷

তবে ২০১৫ সালে মাইথ্রিপালা সিরিসেনা ক্ষমতায় আসার পর এ সম্পর্কে ভাটা পড়তে দেখা গেছে৷

এদিকে গোতাভায়া রাজাপাকসে ইতোমধ্যে ঘোষণা দিয়েছেন যে, তিনি ক্ষমতায় আসলে বেইজিংয়ের সাথে সম্পর্ক উন্নয়নে কাজ করবেন৷

এ বিষয়ে ড. হারশানা ডয়চে ভেলেকে বলেন রাজাপাকসে ক্ষমতায় আসলে তা ভারত-শ্রীলংকার রাজনৈতিক সম্পর্কে কি প্রভাব পড়বে সেটি দেখার বিষয় কেননা তিনি বেইজিং ঘেঁষা রাজনীতিবিদ হিসেবেই পরিচিত৷

তবে রাষ্ট্রপতি হিসেবে প্রেমাদাসা ভারত ও পশ্চিমা দেশগুলোর সাথে সম্পর্ক উন্নয়নে জোর দেবেন বলে মনে করেন অনেকেই, বলেন তিনি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন