কে বুদ্ধিজীবী | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 09.07.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সংবাদভাষ্য

কে বুদ্ধিজীবী

সহজ জ্ঞানে, সাধারণ ভাবে বুদ্ধিকে উপজীব্য করে যারা জীবিকা নির্বাহ করেন তাদের বুদ্ধিজীবী বলা হলেও বিষয়টা এত সরল নয় আসলে৷ আদর্শিক ভাবে এমন একদল ব্যক্তিকে বুদ্ধিজীবী বলে ভাবা হয়, যারা সমাজ নিয়ে জটিল চিন্তা করেন৷

শাহনাজ মুন্নী, সাংবাদিক

শাহনাজ মুন্নী, সাংবাদিক

সমসাময়িক ঘটনাবলী নিয়ে মননশীল বিশ্লেষণ ও গবেষণা করেন এবং যাদের বিশিষ্ট ভাবনা চিন্তা সমাজকে প্রভাবিত করে৷ বুদ্ধিজীবীরা তাদের সময়ের নৈতিক চেতনাকে বিনির্মাণ করেন, সমাজ ও রাজনীতিকে নিবিড় পর্যবেক্ষণ করেন এবং স্বাধীনভাবে নিজেদের চেতনা অনুযায়ী এসব বিষয়ে মতামত দেন৷ যিনি বুদ্ধিজীবী, ধরে নেয়া হয়, তিনি হবেন মানবিক, গণতান্ত্রিক, মুক্তমনা এবং জনগণ ও সমাজের মঙ্গলকামী৷ তিনি হবেন অন্যায় অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদি, আধিপত্যবাদ ও আগ্রাসনের বিরোধী৷ তিনি কথা বলবেন জনগণের পক্ষে, থাকবেন শান্তি, ন্যায়, কল্যাণ ও সত্যের সঙ্গে৷

কারা প্রকৃত বুদ্ধিজীবী- এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজেছেন বিশ্বের বড় বড় পণ্ডিত ও চিন্তাবিদেরা৷ ইতালীয় চিন্তাবিদ গ্রামসি লিখেছিলেন, ‘সব মানুষই বুদ্ধিজীবী, কিন্তু সব মানুষই সমাজে বুদ্ধিজীবীর কাজ করে না৷' তার মতে, সমাজে অনেকে আছেন যারা ঐতিহ্যগতভাবেই বুদ্ধিজীবী যেমন, শিক্ষক, যাজক, পুরোহিত, ইমাম৷ আরেক দল আছে অর্গানিক বুদ্ধিজীবী, যারা সবসময়ই নিজ নিজ শ্রেণীগত অবস্থানে থেকে জগতকে ব্যাখ্যা করেন৷ তারা পুঁজিবাদী অর্থনীতি, সংস্কৃতি ও রাজনীতি বিশ্লেষণের মাধ্যমে চেষ্টা চালান জনমতকে প্রভাবিত করতে৷ 

ফরাসি দার্শনিক জুলিয়েন বেন্দা মনে করেন, প্রকৃত বুদ্ধিজীবী তারাই যারা জাগতিক লাভের উর্ধ্বে উঠে নিঃস্বার্থ এবং আপোষহীন জ্ঞানচর্চায় ব্যস্ত থাকেন৷ সত্য উচ্চারণে তারা থাকেন নির্ভীক, এমনকি সত্য প্রকাশের জন্য প্রাণ সংশয়ের মতো ঝুঁকি নিতেও তারা দ্বিধা করেন না৷ বরং জাতির সংকটে নিজের জীবনকে তুচ্ছ জ্ঞান করেন৷      

আরেক দার্শনিক এডওয়ার্ড সাঈদের মতে বুদ্ধিজীবী এমন একজন ব্যক্তি যিনি স্বাধীনতা ও ন্যায় বিচারের পক্ষে একটি নির্দিষ্ট বার্তা, একটি দৃষ্টিভঙ্গী ও একটি সুচিন্তিত মতামত জনগণের সামনে তুলে ধরেন৷ কোনো প্রতিবন্ধকতাই তাকে সত্য প্রকাশ থেকে বিচ্যুত করতে পারে না৷

বর্তমান বিশ্বের অন্যতম সেরা চিন্তাবিদ বুদ্ধিজীবী নোয়াম চমস্কি বুদ্ধিজীবির দায়বদ্ধতা প্রসঙ্গে আরো পরিস্কারভাবে বলেছেন, ‘‘বুদ্ধিজীবীর দায়িত্ব হচ্ছে রাষ্ট্র ও সরকারের মিথ্যাগুলোকে জনগণের সামনে উন্মোচন করা৷’’

তার মতে,  বুদ্ধিজীবীরা যুক্তিভিত্তিক চিন্তা ভাবনা অনুসরণ করে রাষ্ট্র ও সরকারের বিভিন্ন সিদ্ধান্ত ও কাজের চুল চেরা বস্তুনিষ্ঠ বিশ্লেষণ করবেন এবং সেসব নিয়ে কথা বলবেন৷ তারা জনগণের পক্ষে থেকে সত্যকে অনুসন্ধান করবেন এবং তা জনগণের সামনে প্রকাশ করবেন৷ এই বুদ্ধিজীবীরা যে কোন পেশারই হতে পারেন৷ অধ্যাপক, গবেষক, ইতিহাসবিদ, সাংবাদিক, শিল্পী, কবি, সাহিত্যিক, বিজ্ঞানী, শিল্পবোদ্ধা, আইনজীবী বা হতে পারেন রাজনীতি আলোচকও৷

তবে বুঝতে হবে, বুদ্ধিজীবী কোন উপাধি নয়, পেশাও নয়, এমনকি এটি স্বভাবজাত বিষয়ও নয় বরং অনেকটাই হয়ে ওঠার ব্যাপার৷  জ্ঞানে, কর্মে, মননে, চিন্তায় এবং তার প্রকাশের চর্চার মাধ্যমে একজন ব্যক্তি ধীরে ধীরে বুদ্ধিজীবী হয়ে ওঠেন৷   

বুদ্ধিজীবীরা শক্তি ও ক্ষমতার বাইরে থেকে রাষ্ট্র ও সমাজের সমস্যাগুলি নিয়ে নিরপেক্ষভাবে আলোচনা করেন, বিরাজমান ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন এবং সমাধানের পথ নির্দেশনা দেন৷ এর মাধ্যমে সমাজে তাদের গ্রহণযোগ্যতা তৈরি হয় এবং তারা গণব্যক্তিত্ব হিসেবে সমাজে সম্মান পান৷

তবে ক্লাসিক যুগের আদর্শবাদী নির্ভীক বুদ্ধিজীবীদের সম্মানের সেই জায়গাটা নড়বড়ে হয়ে গেছে বহু আগে থেকেই৷ মূলত বুদ্ধিজীবীরা যখন থেকে তাদের দায়িত্বের স্বরূপ ভুলে, নিজেদের স্বাধীন ও শক্তিশালী মতপ্রকাশের অবস্থান থেকে পিছু হটলেন, যখন থেকে তারা চোখের সামনে অন্যায়-অবিচার ঘটতে দেখেও নীরব থাকলেন এবং নীতি নৈতিকতা ভুলে ক্ষমতাসীনদের অন্যায় আচরণের সাথে সুর মেলালেন তখন থেকেই মূলত তাদের অসম্মানের শুরু৷

১৯৭২ সালে আহমদ ছফা তার ‘বুদ্ধি বৃত্তির নতুন বিন্যাস’ গ্রন্থে তীব্র ভাষায় বাংলাদেশের বুদ্ধিজীবীদের সুবিধাবাদিতা বিষয়ে খোলামেলা সমালোচনা করেন৷ ৪৭ এর দেশভাগ থেকে শুরু করে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ - পর্যন্ত ২৪ বছরে এ অঞ্চলের বুদ্ধিজীবীরা কিভাবে মানসিক দাসত্ব ও দৈন্যের চর্চা করেছেন তা ছফা তথ্য উপাত্তসহ তুলে ধরেন৷ সেই সময় তার একটি কথার খুব প্রচলন হয়েছিল৷ সেটা হচ্ছে, ‘‘বুদ্ধিজীবীরা যা বলতেন, তা শুনলে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না৷ এখন যা বলছেন সেটা শুনলে বাংলাদেশের সমাজ কাঠামোর আমূল পরিবর্তন ঘটবে না৷’’

আহমদ ছফার মতে , বাংলাদেশের বুদ্ধিজীবীরা সুবিধাবাদি৷ তারা নিজেদের আখের গোছাতেই বেশি ব্যস্ত, সমাজের কল্যাণ সাধন তাদের উদ্দেশ্য নয়৷ মানুষের অধিকার ও স্বাধীনতার পক্ষে তারা নিজেদের জ্ঞান বুদ্ধি ব্যয় করতে আগ্রহী নন৷ নিজের স্বার্থের বাইরে তারা একচুলও নড়েন না৷  

বুদ্ধিজীবীর ইংরেজি প্রতিশব্দ ইন্টেলেকচুয়াল এর অপভ্রংশ ‘আঁতেল’ বহুদিন ধরেই বিদ্রুপার্থে এদেশে বুদ্ধিজীবীদের উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হয়৷ অনেকে একে ‘গালি’ হিসেবেও দেখেন৷ জনমনে ধারণা ‘আঁতেল’রা খামোকাই সহজ বিষয়কে কঠিন করে তুলতে পারদর্শী আর নিজের যতটা বুদ্ধি আছে তারচে বেশি প্রদর্শনের চেষ্টায় তৎপর৷ 

সবচে যেটা উদ্বেগজনক, বুদ্ধিজীবীতার মর্যাদাপূর্ণ অবস্থানটাই এখন যেন বহুলাংশে পাল্টে গেছে৷ অধিকাংশ জনগণ বুদ্ধিজীবী ধারণাটিকে নেতিবাচক অর্থে ব্যবহার করে থাকেন৷ অন্যভাবে বলতে গেলে মানুষের কাছে বুদ্ধিজীবী শ্রেণীর সর্বজনীন গ্রহণযোগ্যতা ও বিশ্বাসযোগ্যতা প্রায় নেই বললেই চলে৷ এর কারণ, বর্তমানে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সাথে সম্পৃক্ততার উপর নির্ভর করে বুদ্ধিজীবীর পরিচয়৷ ফলে দলীয় বুদ্ধিজীবীদের দেখা যায়, যারা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই প্রশ্নহীন, নিস্ক্রীয়, নীরব৷ আবার তাদেরই কেউ কেউ হয়তো রাষ্ট্রযন্ত্রের ভাড়াটে বুদ্ধিজীবী হিসেবে রাষ্ট্রীয় সকল পদক্ষেপের পক্ষে সভা সেমিনার ও টেলিভিশনের টক শোতে ওকালতি করে যান৷ 

ভিডিও দেখুন 60:12

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধে কার লাভ, কার ক্ষতি?

শিক্ষবিদ ও সমাজ বিশ্লেষক আবুল কাশেম ফজলুল হক সম্প্রতি এক সাক্ষাতকারে যথার্থই বলেছেন, ‘‘স্বাধীন বাংলাদেশে স্বাধীন চিন্তার চর্চা নেই৷ আত্মবিক্রীত বুদ্ধিজীবীরা কেবল অর্থ বিত্ত আর ক্ষমতার ধান্দায় লিপ্ত থাকেন৷’’ 

বাংলাদেশের বাস্তবতায় আমরা কি সেরকমই দেখছি না? ‘বুদ্ধিজীবী’ নামধারীরা অনেকেই ব্যক্তিগত লাভ-ক্ষতির স্বার্থে অবলীলায় নিজেদের নৈতিকতা বিসর্জন দিচ্ছেন৷ অনেকে যুক্ত হয়েছেন সাম্প্রদায়িকতা এবং শ্রেণী স্বার্থ রক্ষার সংকীর্ণ কার্যক্রমের সাথে৷ অনেকেই স্বেচ্ছায় সরকারি নীতি স্বার্থ ও এজেন্ডা বাস্তবায়নের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছেন ৷

বাংলাদেশে এখন সত্যিকারের মুক্তবুদ্ধির চর্চাকারীদের খুঁজে পাওয়াই ভার, যারা আছেন তারাও নানা ধরনের চাপে অনেকটাই কোনঠাসা৷ এরই মধ্যে পুরনো পৃথিবীকে প্রায় ওলট-পালট করে দিয়ে এসেছে সোশাল মিডিয়ার যুগ৷ যেখানে প্রায় প্রত্যেকেই বিভিন্ন ঘটনায় প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে নিজস্ব বিচার বিবেচনার আলোকে মতামত দিয়েছন৷ নিজ নিজ জ্ঞান-বুদ্ধির আলোকে স্বতন্ত্র ব্যক্তিগত চিন্তা ভাবনার প্রকাশ ঘটাচ্ছেন৷ এর ফলে এখন ‘বুদ্ধিজীবী'র প্রাচীন ধারণাটিই প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়ছে৷ কে বুদ্ধিজীবী, আর কে নয় তা আসলে নির্ধারণ করবে কে? সমাজে সর্বব্যাপী মানসিক দাসত্ব, দীনতা ও আপোষকামিতার বিরুদ্ধে গিয়ে যথার্থ মৌলিকতার স্ফুরণ ঘটবে কীভাবে?

এক্ষেত্রে আহমদ ছফার কথাগুলোকেই আবার স্মরণ করি, ‘‘মানসিক দাসত্বের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের কাজটা হৈ হৈ করে হওয়ার কথা নয়৷ এতে প্রয়োজন সুন্দরতম ধৈর্য্য, মহত্তম সাহস, তীক্ষ্ণতম মেধা এবং প্রচণ্ড কূল ছাপানো ভালবাসা, যার স্পর্শে আমাদের জনগণের কুঁকড়ে যাওয়া মানসিক প্রত্যঙ্গে আশা আকাঙ্খা জাগবে এবং সাহস ফণা মেলবে৷’’

‘বুদ্ধিজীবী’ কোনো নাজেল হওয়া ব্যক্তি বা বস্তু নয়৷ সমাজ থেকেই বুদ্ধিজীবী উঠে আসেন এবং তার কর্ম, সৃজনশীলতা ও দায়িত্ববোধের প্রকাশ ঘটিয়েই তিনি অনেকের মধ্যে পৃথক হয়ে উঠেন৷ তবে বর্তমান নিয়ন্ত্রণকামী, অসহিষ্ণু সমাজ ও রাষ্ট্রব্যবস্থায় বুদ্ধিবৃত্তিক নির্ভীক কন্ঠ শুনতে পাওয়ার প্রত্যাশা এক ধরনের দুরাশা বৈকি৷ জানি না, এই ডামাডোলে বুদ্ধিজীবীর কাল একেবারেই বিলুপ্ত হতে চলেছে কি না!

তথ্যসূত্র :

১. বুদ্ধিজীবীর দায়/ আজিজুল রাসেল/ এনটিভি অনলাইন/৯ মার্চ, ২০১৫

২. বুদ্ধিবৃত্তির নতুন বিন্যাস/ আহমদ ছফা / মুক্তধারা ১৯৭২

৩. বিশেষ সাক্ষাতকার : আবুল কাশেম ফজলুল হক/ প্রথম আলো/ ৪ জুলাই, ২০২১

৪. আমাদের সময় ও তার প্রেক্ষিত বোঝার জন্য নোম চমস্কি যেভাবে সাহায্য করেন/ মুহম্মদ গোলাম সারওয়ার/ শুদ্ধস্বর/ অক্টোবর ১, ২০১৯৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন