কেশবিন্যাসকারী, কাঙ্খিত পেশা হলেও মজুরি খুব কম | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 06.09.2014
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

কেশবিন্যাসকারী, কাঙ্খিত পেশা হলেও মজুরি খুব কম

জার্মানিতে অল্প বয়সি নারীদের পছন্দের তালিকায় একেবারে প্রথম দিকে যে পেশাটির নাম করা যায়, তা হলো নাপিত বা নরসুন্দরের পেশা৷ অনেক তরুণীই আজকাল স্বপ্ন দেখেন মানুষের কেশ পরিচর্যা করার, কাট-ছাট এবং রং দেওয়ার৷

জার্মানিতে অল্প বয়সি নারীদের পছন্দের তালিকায় একেবারে প্রথম দিকে যে পেশাটির নাম করা যায়, তা হলো নাপিত বা নরসুন্দরের পেশা৷ অনেক তরুণীই আজকাল স্বপ্ন দেখেন মানুষের কেশ পরিচর্যা করার, কাট-ছাট এবং রং দেওয়ার৷

ধোয়া, কাটা, শুকানো, অনেক বছর ধরেই মেয়েদের পছন্দের পেশার তালিকায় শীর্ষ স্থানে রয়েছে চুল কাটা বা কেশ বিন্যাসের কাজ৷ বর্তমানে ২৫ হাজার শিক্ষানিবিশ রয়েছেন এই পেশায়৷ আর তাঁদের অধিকাংশই নারী৷ তবে ইদানীং এই পেশা নতুনদের আর আকৃষ্ট করতে পারছে না৷ এর প্রধান কারণ, এতে মজুরি খুব কম৷ তবে কেউ কেউ এখনও আগ্রহ নিয়ে চুল কাটার প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন৷

রেবেকার গল্প

রেবেকা সিমার কিছুটা উত্তেজনা অনুভব করছেন৷ গত অক্টোবর থেকে প্রতি দুই সপ্তাহ পর পর তাঁর ‘ক্লায়েন্ট' ক্যার্স্টিন টেসকের চুল কাটা ও মেকআপের কাজটি করেন তিনি৷ আজ অবশ্য একটি বিশেষ দিন৷ শিক্ষানবিশির পরীক্ষার আগের দিন৷ অনেক কিছু করতে হবে৷ ক্যার্স্টিন টেসকে তাঁর মডেল৷ রেবেকার ভাষায়, ‘‘আজ চোখের পাপড়ি রং করবো, ভুরু প্লাক করবো৷ আগামীকালের জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে যে৷''

প্রক্রিয়াটা চলে ৪৫ মিনিটের মতো৷ রং মিশিয়ে পাপড়িতে লাগানো হয়৷ চুল ধুয়ে শুকিয়ে ঠিকঠাক করা হয়৷ কয়েক মাস ধরে মডেল ক্যার্সিন তাঁর চুল বাড়তে দিয়েছেন৷ পরীক্ষকদের সামনে চুল কাটতে হবে শিক্ষানবিশি রেবেকার৷ ক্যার্সিন টেসকেও রেবেকার কাজে সন্তুষ্ট৷ তিনি বলেন, ‘‘দু'বার আমার চুল রং করেছেন রেবেকা৷ আর কাজটা যে কত সুন্দর হয়েছে, তা আমি লক্ষ্য করেছি৷ এ ব্যাপারে আমার কোনো সংশয় নেই৷'' তিন বছর ধরে রেবেকা চুল কাটার স্কুলটিতে কাজ শিখছেন৷ প্রথম দিকে কাজটা সহজ ছিল না৷ শুরুতে পুতুলকে মডেল করে কাজকর্ম শিখেছেন৷ কেন না, মানুষের ওপর কাজ শেখা সহজ নয়৷

তবে রেবেকার অসুবিধা হয়নি৷ বৃত্তিমূলক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির বেড়া পার হয়েছেন অবলীলায়৷ রসায়ন বিষয়টি সহজ ছিল না৷ রং মেশানো, রাসায়নিক পদার্থ নিয়ে কাজ করা শিখেছেন রেবেকা৷ সেলুন চালানো, চুল কাটার কৌশল ইত্যাদি তাঁকে আনন্দ দিয়েছে৷ এই তিনটি বছর তাঁর প্রয়োজন ছিল, বলেন ২০ বছর বয়সি এই তরুণী৷

Ausbildungsberuf Friseur

রেবেকা সিমা

রেবেকার প্রশিক্ষণকারী শার্লটে শ্মিটগাল এই প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘একেক জন একেক বিভাগে পারদর্শী৷ তবে আমাদের এখানে সবাই সবকিছু করেন৷ মেয়েদের কাট, পুরুষদের কাট, বাচ্চাদের কাট, চুল কোঁকড়ানো ইত্যাদি৷ তবে কারো কারো প্রিয় বিভাগও রয়েছে৷'' সাবেক পূর্ব জার্মানির লাইপৎসিগ অঞ্চলে শিক্ষানবিশের সংখ্যা গত ১০ বছরে অর্ধেকে দাঁড়িয়েছে৷ কমিউনিস্ট আমলে নাপিত বা নরসুন্দরের পেশার জন্য বেশ দক্ষতার প্রয়োজন হতো৷ শিক্ষানবিশির পদও ছিল কম৷ হাতের কাজ শেখার ব্যাপারে তরুণরা এখন তেমন আগ্রহী হচ্ছেন না৷ তাই এই ধরনের কাজকে আকর্ষণীয় করার চিন্তাভাবনা করছেন সংশ্লিষ্টরা৷

এছাড়া নরসুন্দরের কাজে বেতনও অত্যন্ত কম৷ সব মিলিয়ে মাসে ১,০০০ ইউরোরও কম বেতনে জীবিকা নির্বাহ করতে হিমশিম খেতে হয় তাঁদের৷ জার্মান সরকার ন্যূনতম মজুরি নির্ধারণ করার ক্ষেত্রে এই ধরনের পেশার দিকেই নজর রেখেছে৷ আগস্ট মাস থেকে রেবেকা সিমার ঘণ্টায় ৭.৫০ ইউরো পাবেন৷ প্রশিক্ষণ শেষ হওয়ার আগেই একটি কাজের চুক্তি পেয়ে গিয়েছেন তিনি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন