কেটে ফেলা চুল দিয়ে ছবি এঁকে বাজিমাত | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 23.03.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ফিলিপাইন্স

কেটে ফেলা চুল দিয়ে ছবি এঁকে বাজিমাত

ছিল বেড়াল, হয়ে গেল রুমাল৷ তেমনই ফেলে দেয়া চুল থেকে ক্যানভ্যাসে ছবি৷ বব-মাশরুম, স্টেপস কিংবা লেয়ারস-নানা কায়দায় কেটে ফেলার পর ফেলে দেয়া চুল থেকে শিল্পকর্ম বানিয়ে ফেললেন ফিলিপাইন্সের এক সেলুনের মালিক৷

ফিলিপাইন্সের সান খুয়ান শহরের একটি সেলুনের মালিক জেস্টনি গার্সিয়া৷ চুল কাটার জন্য যখনই কারো মাথায় ক্লিপার লাগান, তখনই নতুন কোনো শিল্পের ভাবনা তার মাথায় চলে আসে৷ একটা পাতলা তুলি এবং আঁঠার সাহায্যে সেলুনের মেঝেতে পড়ে থাকা চুল দিয়ে সাদা-কালো ক্যানভ্যাসে তিনি ফুটিয়ে তোলেন ছবি৷ দুই থেকে পাঁচ ঘণ্টার মধ্যে প্রিয় কোনো সংগীত শিল্পী অথবা অভিনেতার প্রতিকৃতি ফুটে ওঠে তার ক্যানভাসে৷

বছর বত্রিশের এই ব্যক্তি বছরের আট মাস নাবিক হিসেবে কাজ করেন৷ ভেসে বেড়ান জাহাজে, তাই প্রয়োজনমতো তুলি কিংবা রং পান না৷ তাতে কী? শিল্পের ইচ্ছাটাই তো আসল৷ কেটে ফেলে দেয়া চুল দিয়ে দিব্যি ক্যানভাসে ফুটিয়ে তোলেন ছবি৷ প্রথমে আয়না দেখে নিজেকেই আঁকতে শুরু করেছিলেন৷ পরে তারকাদের ছবি আঁকা শুরু করেন তিনি৷

নিজের সেলুনের থেকে সমুদ্রেই বেশি সময় কাটাতে হয় তাকে৷ তাই নিজের চুল কিংবা দাড়িই বেশি ব্যবহার করেন ছবি আঁকার জন্য৷ অনেক সময় মাথার পাশ থেকে অতিরিক্ত চুলও কেটে ফেলেন তিনি কিংবা হয়তো জুলপির অংশ৷ ছবি যে তাকে আঁকতেই হবে৷

তিনি বলেন, ‘‘আমার জন্য হতাশা থেকে বেরিয়ে আসার একমাত্র উপায় শিল্প৷’’ এই শিল্পের কিন্তু কদরও রয়েছে৷ তার আঁকা ছবি কিন্তু বিক্রিও হয়৷ এই জন্যই হয়ত বলে, জীবনের ধন কিছুই যায় না ফেলা৷

আরকেসি/এসিবি (রয়টার্স)