কৃষ্ণসাগরে রাশিয়া-যুক্তরাজ্য সংঘাত | বিশ্ব | DW | 24.06.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

রাশিয়া

কৃষ্ণসাগরে রাশিয়া-যুক্তরাজ্য সংঘাত

যুক্তরাজ্যের জাহাজ লক্ষ্য করে গুলি চালিয়েছে রাশিয়া। সতর্ক করতে গুলি বলে দাবি রাশিয়ার।

কৃষ্ণসাগরে যুক্তরাজ্যের জাহাজ লক্ষ্য করে সতর্কতামূলক গুলি চালানো হয়েছে বলে রাশিয়া দাবি করেছে। ক্রেমলিনে যুক্তরাজ্যের প্রতিনিধিকে তলব করা হয়েছে বলেও রাশিয়া জানিয়েছে। তবে যুক্তরাজ্য দুইটি বিষয়ই অস্বীকার করেছে। তাদের দাবি, রাশিয়া যা বলছে, তেমন কোনো ঘটনাই ঘটেনি।

ঘটনার সূত্রপাত বুধবার। রাশিয়ার দাবি যুক্তরাজ্য নৌসেনার জাহাজ ডিফেন্ডার ইউক্রেনের জল সীমান্ত ছাড়িয়ে রাশিয়ার জলে ঢুকে পড়েছিল। রাশিয়ার নৌসেনা তখন তাদের থামতে বলে। কিন্তু রাশিয়ার দাবি, তারপরেও জাহাজটি রাশিয়ার জলে ঢুকতে থাকে। ফলে বাধ্য হয়ে তাদের দিকে ওয়ার্নিং শট ছোড়া হয়। এরপর অবশ্য জাহাজটি রাশিয়ার জলসীমান্ত ছেড়ে চলে যায়। কেন যুক্তরাজ্য রাশিয়ার জলে ঢুকল তা নিয়ে তাদের কাছে জবাবদিহি চাওয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছে রাশিয়া। তলব করা হয়েছে রাশিয়ায় অবস্থিত যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদূতকে।

যুক্তরাজ্যের প্রতিক্রিয়া

যুক্তরাজ্য অবশ্য বিষয়টি অস্বীকার করেছে। তাদের বক্তব্য, এমন কোনো ঘটনাই ঘটেনি। যুক্তরাজ্য জানিয়েছে, আন্তর্জাতিক আইন মেনে ইউক্রেনের সমুদ্র সীমান্ত দিয়ে যাচ্ছিল ডিফেন্ডার জাহাজটি। রাশিয়ার জলসীমান্তে তা ঢোকেনি।

সংবাদসংস্থা রয়টার্সকে একটি সাক্ষাৎকার দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষামন্ত্রী। সেখানে তিনি জানিয়েছেন, রাশিয়ার বক্তব্য নিয়ে তিনি বিচলিত নন। রাশিয়া এ ধরনের ভুল অভিযোগ এবং দাবি করেই থাকে। ওই অঞ্চলে ন্যাটোর সদস্য হিসেবে যুক্তরাজ্যের জাহাজ ভূমধ্যসাগর এবং কৃষ্ণসাগরে আছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

ইউক্রেনের প্রতিক্রিয়া

রাশিয়ার দাবি নস্যাৎ করে দিয়েছে ইউক্রেন। তাদের দাবি, কৃষ্ণসাগরে ক্রিমিয়া অঞ্চলে নিজেদের আধিপত্য প্রতিষ্ঠা করতে উঠে পড়ে লেগেছে রাশিয়া। ফলে ওই অঞ্চলে তারা সবসময়ই নিজেদের দাপট দেখানোর চেষ্টা করে। রাশিয়া যুক্তরাজ্যের জাহাজ নিয়ে যে দাবি করেছে, তা সম্পূর্ণ মিথ্যা বলেও জানিয়েছে ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। বরং রাশিয়াকেই পাল্টা সচেতন হতে বলেছে তারা।

ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বক্তব্য, কৃষ্ণসাগর অঞ্চলে ন্যাটো এবং ইউক্রেনের নতুন করে সমঝোতা করা দরকার। নইলে ওই অঞ্চলে রাশিয়ার আগ্রাসন বন্ধ করা যাবে না। বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, যুক্তরাজ্যের জাহাজ লক্ষ্য করে ওয়ার্নিং শট ছোড়া অজুহাত মাত্র। রাশিয়া আসলে এই ঘটনার মধ্য দিয়ে ক্রিমিয়া বিতর্ক আবার সামনে আনতে চেয়েছে।

এসজি/জিএইচ (রয়টার্স, এএফপি, ডিপিএ)

সংশ্লিষ্ট বিষয়