কুড়িগ্রামে ‘বিবস্ত্র করে’ সাংবাদিক নির্যাতন | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 14.03.2020

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

কুড়িগ্রামে ‘বিবস্ত্র করে’ সাংবাদিক নির্যাতন

অনলাইন সংবাদমাধ্যম বাংলা ট্রিবিউনের কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি আরিফুল ইসলাম রিগ্যানকে রাতের আঁধারে তুলে নিয়ে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে৷

পুলিশ ছাড়া আনসার নিয়ে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা দরজা ভেঙে আরিফুলের বাসায় ঢোকেন৷ এরপর তাকে মারধর শুরু করেন৷ পরে জেলা প্রশাসনের কার্যালয়ে নিয়ে ‘বিবস্ত্র' করে নির্যাতন করা হয়৷ তার ভিডিও ধারণ করা হয়েছে৷ শুক্রবার রাতে কুড়িগ্রামে এমন ঘটনা ঘটেছে৷ 

আরিফুলের স্ত্রী মোস্তারিমা সরদার নিতু ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘কেন আমার স্বামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে আমরা জানি না৷ দরজা ভেঙে ৭/৮ জন বাসায় ঢোকে৷ এরপরই পেটাতে শুরু করে৷ কী অপরাধ জানতে চাইলে আরো বেশি মারতে থাকে৷ এক পর্যায়ে টিনের বেড়া ভেঙে ওকে নিয়ে যায়৷ প্রথমে তো আমরা জানতামই না, কারা নিয়ে গেছে? ধরার সময় শুধু বলেছে, তুই অনেক জ্বালাইছিস৷ পরে আমি কারাগারে দেখা করি৷ তখন সে দাঁড়াতেই পারছিল না৷ আমাকে বলল, বিবস্ত্র করে পিটিয়েছে৷ দুটি কাগজেও স্বাক্ষর নিয়েছে৷’’ 

আরিফুলকে আটক অভিযানে নেতৃত্ব দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রিন্টু বিকাশ চাকমা৷ তিনি স্থানীয় সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘‘অভিযানের সময় তার কাছ থেকে আধা বোতল মদ ও দেড়শ গ্রাম গাঁজা পাওয়া গেছে৷ এই অপরাধ তিনি স্বীকার করায় তার এক বছরের জেল ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে৷'' তবে আরিফুলের স্ত্রী মোস্তারিমা এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, ‘‘বাসাতে তারা কোন তল্লাশি করেনি৷’’ 

‘শুধু বলেছে, তুই অনেক জ্বালাইছিস’ (প্রতীকী ছবি)

কুড়িগ্রাম প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও একুশে টেলিভিশনের কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি আতাউর রহমান বিপ্লব ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘গত বছরের মাঝামাঝি আরিফুল একটা রিপোর্ট করেছিলেন, জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভীন একটি পুকুর সংস্কার করে নিজের নামে নামকরণ করতে চেয়েছিলেন৷ ওই সংবাদের পর তার উপর ক্ষুব্ধ ছিলেন ডিসি৷ এছাড়া সম্প্রতি জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন অনিয়ম নিয়ে রিপোর্ট করতে চেয়েছিলেন আরিফ৷ এ বিষয়ে জানতে পেরে জেলা প্রশাসকের অফিস থেকে তাকে বেশ কয়েকবার ডেকে নিয়ে সতর্ক করা হয়৷ এসব কারণে ডিসি তার উপর ক্ষুব্ধ ছিলেন৷ আর তার বিরুদ্ধে মাদকের যে অভিযোগ দেওয়া হয়েছে তা আদৌ সত্যি নয়৷ আরিফুল মদ বা গাঁজা তো দূরে থাক সিগারেটও খান না৷ শুধুমাত্র প্রতিহিংসার কারণেই তাকে মধ্যরাতে গ্রেফতার ও সাজা দেওয়া হয়েছে ৷ আমরা বলেছি, ২৪ ঘন্টার মধ্যে তাকে ছেড়ে না দিলে কঠোর আন্দালন গড়ে তোলা হবে৷’’

শনিবার সকালে বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর সাংবাদিক মহল থেকে তীব্র প্রতিবাদ জানানো হয়৷ বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়৷ জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছেন, ‘‘আরিফুলের ওপর যদি অন্যায় হয়ে থাকে, তবে অবশ্যই জেলা প্রশাসককে প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হবে৷ কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নয়৷ মধ্যরাতে মোবাইল কোর্ট ও সাজা কোনও কিছুই আইনসম্মত নয়৷ ডিসি বলেই সে আইনের ঊর্ধ্বে নয়৷’’

এরপরই জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে রংপুরের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনারকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে৷ শনিবারই কমিটির সদস্যরা আরিফুলের স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন৷

সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী শাহদীন মালিক ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আধা বোতল মদ আর দেড়শ গ্রাম গাঁজার জন্য মধ্যরাতে যেভাবে অভিযান চালানো হয়েছে তা অস্বাভাবিক৷ যেহেতু আরিফুলের কাছে ক্ষতিকর কিছু ছিল না, তাহলে ভোর পর্যন্ত মোবাইল কোর্ট অপেক্ষা করতে পারত৷ কিন্তু তারা যেভাবে ধরে ডিসি অফিসে নিয়ে সাজা দিয়েছে তা স্বাভাবিক নয়৷ এখানে অবশ্যই আইনের ব্যত্যয় হয়েছে৷’’

ঘটনার পর থেকে ডয়চে ভেলের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভীনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি৷ তবে তিনি স্থানীয় সাংবাদিকদের কাছে বলেছেন, ‘‘আইন প্রয়োগের ক্ষেত্রে ‘গ্যাপ' থাকলে দেখা হবে৷ টাস্কফোর্সের অভিযান ছিল৷ এটা ম্যাজিস্ট্রেট পরিচালনা করেছে রেগুলার শিডিউলের অধীনে৷ সঙ্গে মাদকদ্রব্য অধিদফতরের লোক, পুলিশ, আনসার ছিল৷’’

পুকুর নিজের নামে নামকরণ করা সংক্রান্ত প্রতিবেদনের কারণে ক্ষুব্ধ হয়ে আরিফুলের বিরুদ্ধে এরকম পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘এটা তো এক বছর আগের ঘটনা৷ আর রিপোর্টটিও মিথ্যা৷ এরকম কিছু হলে তো তখনই হতো৷ আর এই রিপোর্টের জন্য তো সে স্যরি বলেছে৷ আমরা ভিনডিকটিভ (প্রতিহিংসাপরায়ণ) না৷’’ 

তবে জেলা প্রশাসকের এই বক্তব্যের সত্যতা মেলেনি৷ পুলিশ ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এই অভিযানের সঙ্গে তাদের কোন সম্পৃক্ততা নেই৷ পুলিশ জানিয়েছেন, এই অভিযানে তাদের সম্পৃক্ততা ছিল না৷ 

রংপুরের বিভাগীয় কমিশনার কে এম তারিকুল ইসলাম স্থানীয় সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘‘ইতোমধ্যে একজন অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার কুড়িগ্রামে চলে গেছেন বিষয়টি তদন্ত করতে৷ অবশ্যই টাস্কফোর্স গঠন ও মোবাইল কোর্ট পরিচালনার একটি টাইম ফ্রেম দেওয়া আছে৷ সেটি অমান্য করা সরকার ও প্রশাসনের জন্য বিব্রতকর৷’’ 

‘সাংবাদিকরা হয়রানির শিকার হলে মামলা নিচ্ছি’

৫ দিন নিখোঁজ সাংবাদিক, জানেন না স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী 

গত মঙ্গলবার থেকে নিখোঁজ রয়েছেন পক্ষকাল পত্রিকার সম্পাদক শফিকুল ইসলাম কাজল৷ এর আগে সোমবার মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য সাইফুজ্জামান শিখর রাজধানীর শেরে বাংলা নগর থানায় একটি মামলা করেন৷ সেই মামলায় মানবজমিন সম্পাদক মতিউর রহমান, রিপোর্টার আল আমিনসহ ৩২ জনকে আসামি করা হয়েছে৷ এই মামলার তিন নম্বর আসামি শফিকুল৷ শুক্রবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন তার স্ত্রী৷ তার নিখোঁজের বিষয়ে বংশাল থানায় জিডিও করেছে তার পরিবার৷ সাংবাদিক সংগঠনের পক্ষ থেকে আন্দোলনও করা হচ্ছে৷ পত্রিকায় এ সংক্রান্ত সংবাদও ছাপা হয়েছে৷

অথচ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, এমন একজন সাংবাদিক নিখোঁজ তিনি জানেন না৷ তিনি বলেন, ‘‘এখানে ফেক নিউজও হয়৷ মতিউর রহমান চৌধুরীর বিরুদ্ধে যে মামলা সেখানে তো ওই এমপি সাহেব তো তার কাছে প্রমান চেয়েছেন এমনটাই লিখেছেন৷ সাংবাদিকরা হয়রানির শিকার হলে আমরা তো মামলা নিচ্ছি, তদন্ত করে ব্যবস্থাও নিচ্ছি৷’’

ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের সময়ও কয়েকজন সাংবাদিক আক্রান্ত হয়েছেন৷ পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করা হয় কয়েকজনকে৷ এই ঘটনায় কয়েকজনকে র্যাব গ্রেফতার করে৷ তবে অধিকাংশই ধরা ছোঁয়ার বাইরে রয়েছেন৷

মানবাধিকার সংগঠনগুলোর হিসাব অনুযায়ী, ১৯৯৬ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ২২ বছরে বাংলাদেশে ৩৫ জন সাংবাদিক হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন৷ সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরোয়ার-মেহেরুন রুনি হত্যাকাণ্ডে ৮ বছরে ৭১ বার পেছানোর পরও জমা পড়েনি তদন্ত প্রতিবেদন৷ এই পরিস্থিতি নেতিবাচক বার্তা দিচ্ছে৷ ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন থেকে বিবৃতি দিয়ে বলা হয়েছে, সাংবাদিক নির্যাতনের বিচার হয় না বলেই নির্যাতনের মাত্রা বেড়ে গেছে৷ 

নির্বাচিত প্রতিবেদন