কুৎসায় দুঃখিত অভিজিৎ | বিশ্ব | DW | 21.10.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

কুৎসায় দুঃখিত অভিজিৎ

অর্থনীতিতে নোবেল পুরস্কার পাওয়ার পর থেকেই বিজেপির কুৎসা অভিজিৎ বিনায়ক ব্যানার্জির নামে৷ যেহেতু তিনি কংগ্রেসের ন্যায় প্রকল্পে তথ্য-সহযোগিতা করেছিলেন৷

শুরুটা করেছিলেন পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ৷ অভিজিৎ বিনায়ক ব্যানার্জির নোবেলপ্রাপ্তির খবরে সন্দেহ প্রকাশ করেছিলেন, যাঁর মা মারাঠি, স্ত্রী বিদেশি এবং লোকটি নিজে মার্কিন নাগরিক, তাঁকে আদৌ বাঙালি বা ভারতীয় বলা যায় কিনা৷ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বা অন্য কোনও সরকারি পদাধিকারী তখনও একটি টুইটও খরচ করেননি অভিজিতের নোবেলপ্রাপ্তি সম্পর্কে৷ বরং সোশাল মিডিয়া ভরে উঠতে শুরু করেছিল অভিজিতের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে কাদা ঘাঁটায়৷ ফলে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পীযূষ গোয়েল যখন বললেন, অভিজিৎ বামপন্থী এবং তাঁর তত্ত্বকে ভারতীয়রা বাতিল করে দিয়েছেন, তখন বোঝাই গিয়েছিল যে এটাই বিজেপির অঘোষিত নীতি৷ অভিজিতের কৃতিত্বকে খাটো করে দেখানো৷
সেই প্রেক্ষিতে বাংলার বিজেপি নেতা এবং দলের সর্বভারতীয় সম্পাদক রাহুল সিনহার মন্তব্য আদৌ অপ্রত্যাশিত নয়৷ রাহুল সাংবাদিক সম্মেলনে হাসতে হাসতে বললেন, অর্থনীতিতে নোবেল পেতে গেলে দুটো বিয়ে করা এবং দ্বিতীয় স্ত্রীর বিদেশি হওয়া অন্যতম আবশ্যিক যোগ্যতা কিনা তিনি জানেন না৷ একইসঙ্গে খোঁচা দিলেন অভিজিৎ এবং আরেক নোবেল বিজয়ী অমর্ত্য সেন–কে৷ তা হলে কি বাঙালি হিসেবে গর্ববোধের কোনও জায়গা নেই এই নোবেলপ্রাপ্তিতে?‌

অডিও শুনুন 01:28

‘অভিজিতের একটা নিশ্চিত রাজনৈতিক পক্ষপাত রয়েছে’

ডয়চে ভেলের এই প্রশ্নের জবাবে রাহুল সিনহা বললেন, অবশ্যই এটা দেশের এক প্রাপ্তি৷ কিন্তু অভিজিতের একটা নিশ্চিত রাজনৈতিক পক্ষপাত রয়েছে৷ সেখানে নোবেল পুরস্কারকে ঢাল করে অর্থনীতির তত্ত্বকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করায় তাঁদের আপত্তি৷ আর কংগ্রেসের ন্যায় প্রকল্পে অভিজিতের তথ্য–সহযোগিতা নিয়ে রাহুল সিনহার দাবি, ভারতের মানুষ তো সেই তত্ত্ব খারিজ করেছে!‌
পীযূষ গোয়েলের মন্তব্যের পর রাহুল গান্ধী টুইট করে অভিজিতের উদ্দেশে বলেছেন— এরা (‌বিজেপি)‌ঘৃণায় অন্ধ৷ একজন পেশাদার সম্পর্কে এদের কোনও ধারণাই নেই৷ আপনি যদি এদের বোঝানোর চেষ্টা করেন, তাও এরা বুঝবে না৷
আর অভিজিতের বক্তব্য, কংগ্রেস তাঁর কাছে তথ্য–সাহায্য চেয়েছিল, তাই তিনি দিয়েছেন৷ একজন পেশাদার হিসেবে৷ বিজেপি চাইলেও দিতেন৷ তিনি এবং তাঁর গবেষক দল যখন গুজরাটে বা মহারাষ্ট্রে কাজ করেন, তখন বিজেপি সরকারের সঙ্গেই কাজ করেন৷ কারণ তিনি বিশ্বাস করেন, কোনও জনকল্যাণমুখী প্রকল্পের রাজনৈতিক সীমাবদ্ধতা থাকা উচিত নয়৷ আর তাঁর যে ব্যক্তিগত চরিত্রহননের চেষ্টা চলছে, তাতে তিনি দুঃখিত৷ এছাড়া আর কিছুই বলার নেই তাঁর৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন