কুর্দি গণভোটের ফলে ইরাকের ঐক্য বিপন্ন? | বিশ্ব | DW | 26.09.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ইরাক

কুর্দি গণভোটের ফলে ইরাকের ঐক্য বিপন্ন?

সোমবার ইরাকি কুর্দিস্তানে স্বাধীনতার প্রশ্নে গণভোটের ফলে তুরস্ক, ইরান ও সিরিয়াসহ অনেক দেশ গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে৷ বৃহত্তর কুর্দিস্তান আন্দোলনের আশঙ্কায় নতুন করে আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা বিপন্ন হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে৷

ইরাকের উত্তরে কুর্দিস্তান এলাকা সেই সাদ্দাম হুসেনের আমল থেকেই স্বায়ত্তশাসনে অভ্যস্ত৷ এবার পাকাপাকিভাবে স্বাধীন কুর্দি রাষ্ট্র ঘোষণা করতে চায় কুর্দি নেতৃত্ব৷ সেই লক্ষ্যে গণভোটে বিপুল সংখ্যক মানুষ ভোট দিয়েছেন বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে৷ সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ স্বাধীন কুর্দিস্তানের পক্ষে রায় দেবেন বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে৷ তবে এই গণভোট কার্যকর করার কোনো আইনি বাধ্যবাধকতা নেই৷

ইরাকে কুর্দিস্তান আঞ্চলিক সরকারের প্রধান মাসুদ বারজানি এই গণভোটকে হাতিয়ার করে ইরাকের সরকারের সঙ্গে স্বাধীনতা নিয়ে আলোচনা করবেন বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে৷ বারজানি স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, গণভোটে ইতিবাচক রায় পেলে বাগদাদের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমেই তিনি সেই সিদ্ধান্ত কার্যকর করার চেষ্টা করবেন৷

কুর্দি এলাকার এক টেলিভিশন চ্যানেলের সূত্র অনুযায়ী প্রায় ৭৮ শতাংশ ভোটার তাঁদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন৷ কুর্দিস্তানের বাইরে ইরাকের উত্তরে কিছু অংশেও এই গণভোট আয়োজন করা হয়েছে৷ আইএস-এর বিরুদ্ধে সংগ্রামের কারণে সেসব এলাকা আপাতত কুর্দি বাহিনীর দখলে৷ কুর্দিদের একটা বড় অংশ স্বাধীনতার পক্ষে ভোট দিলেও আরব ও তুর্কমেন সংখ্যালঘু সম্প্রদায় এমন পদক্ষেপের বিরোধিতা করছে৷ স্বাধীনতার পক্ষে রায় দেবার জন্য তাদের উপর চাপ সৃষ্টি করা হয়েছে বলেও অভিযোগ উঠেছে৷ সোমবার ভোট গ্রহণের সম্ভবত ৭২ ঘণ্টা পর ফলাফল জানা যাবে৷

এই গণভোটকে কেন্দ্র করে আন্তর্জাতিক স্তরেও বিপুল তৎপরতা দেখা যাচ্ছে৷ কারণ, ইরাকি কুর্দিস্তান সত্যি স্বাধীনতা অর্জন করতে পারলে ইরান, তুরস্ক ও সিরিয়াসহ প্রতিবেশী দেশগুলিতে ছড়িয়ে থাকা কুর্দি সংখ্যালঘু সম্প্রদায়গুলিও একে একে সেই রাষ্ট্রে যোগ দিতে পারে৷ তাই তুরস্কসহ একাধিক দেশ এই গণভোটের তীব্র বিরোধিতা করে আসছে৷ তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেচেপ তাইয়িপ এর্দোয়ান কুর্দিস্তান থেকে বহির্জগতে পেট্রোলিয়াম সরবরাহের পাইপলাইন বন্ধ করে দেবার হুমকি দিয়েছেন৷ এমনকি ইরাকি কুর্দিস্তানে সামরিক হামলার হুমকিও দিয়েছেন তিনি৷

ইরাকের প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল-আবাদি কুর্দিস্তান অঞ্চলের গণভোটকে অসাংবিধানিক আখ্যা দিয়েছেন৷ তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি ছাড়াই এই গণভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে৷ তাই ইরাকি সরকার ও আন্তর্জাতিক সমাজসহ কেউই তার ফলাফল মেনে নেবে না৷ এদিকে ইরাকি সেনাবাহিনী তুরস্কের সেনাবাহিনীর সঙ্গে সীমান্তে বড় আকারের মহড়া শুরু করেছে৷

ইরান ও সিরিয়াও এই গণভোটের তুমুল সমালোচনা করেছে৷ ইরান ইরাকি কুর্দিস্তানের সঙ্গে বিমান যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে৷ যৌথ সীমান্তও বন্ধ করে দিয়েছে সে দেশের কর্তৃপক্ষ৷ গৃহযুদ্ধে বিধ্বস্ত সিরিয়ার প্রশাসনও এই গণভোটের ফলাফল মেনে নেবে না বলে জানিয়েছে৷

মার্কিন প্রশাসনও ইরাকি কুর্দিস্তানে গণভোটের বিরোধিতা করেছে৷ ইরাকের ঐক্য ও অখণ্ডতা বজায় রেখে আইএস-এর বিরুদ্ধে সংগ্রামকেই বেশি গুরুত্ব দিতে চায় ট্রাম্প প্রশাসন৷

এসবি/এসিবি (রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন