কিমের সাথে বৈঠকে না বসার ঘোষণা ট্রাম্পের | বিশ্ব | DW | 24.05.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

উত্তর কোরিয়া

কিমের সাথে বৈঠকে না বসার ঘোষণা ট্রাম্পের

উত্তর কোরিয়া প্রতিশ্রুত পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষা কেন্দ্রের সুড়ঙ্গ ধ্বংস শুরু করলেও অ্যামেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দেশটির প্রেসিডেন্ট কিম জং-উনের জুনের সম্ভাব্য শীর্ষ বৈঠকটি বাতিল করেছেন৷

উত্তর কোরিয়া তাদের পুঙ্গি-রি পারমাণবিক কেন্দ্রের তিনটি সুড়ঙ্গে বৃহস্পতিবার বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে বলে কেন্দ্রটি পরিদর্শনে যাওয়া বিদেশি সাংবাদিকরা জানিয়েছেন৷ তাঁরা জানান, পুঙ্গি-রি পারমাণবিক কেন্দ্রের পাহারাদার, সেনা ও কর্মীদের ব্যারাকের সামনেই সকালে ও বিকালে কয়েক ঘণ্টাব্যাপী বিস্ফোরণের মাধ্যমে সুড়ঙ্গগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে৷

তবে এর কিছুক্ষণ পরই অ্যামেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দেশটির প্রেসিডেন্ট কিম জং-উনের সাথে জুনের সম্ভাব্য শীর্ষ বৈঠকটি বাতিল করেন এক চিঠির মাধ্যমে৷   

প্রসঙ্গত, এ পরীক্ষাকেন্দ্রেই ছয়টি পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছিল উত্তর কোরিয়া৷ দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের মানটাপ পর্বতের নীচে খোঁড়া কয়েকটি সুড়ঙ্গ নিয়েই এ কেন্দ্রটি গড়ে তোলা হয়েছিল৷

উত্তর কোরিয়ার এ পদক্ষেপের ফলে আগামী১২ জুন সিঙ্গাপুরে ট্রাম্প ও কিম জং উনের আলোচ্য বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাবনা আরও প্রবল হওয়ার কথা থাকলেও, হয়েছে ঠিক উলটো৷

পারমাণবিক  কেন্দ্র ধ্বংস শুরুর কিছুক্ষণ পরেই অ্যামেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলছেন, দুই দেশের বৈঠক নিয়ে কিম জং-উনের সাম্প্রতিক বিদ্বেষী মন্তব্যের কারণে তিনি জুনের বৈঠকটি করবেন না৷ 

বৃহস্পতিবার হোয়াইট হাউজের এক চিঠিতে ট্রাম্প বলেন, “সেখানে আপনার সঙ্গে মিলিত হতে আমি খুব উদগ্রীব ছিলাম। তবে দুঃখজনক, আপনার সাম্প্রতিক বিবৃতিতে তীব্র ক্ষোভ ও প্রকাশ্য শত্রুতা প্রকাশিত হওয়ায় আমি মনে করছি, এই সময়ে দীর্ঘ পরিকল্পিত এই বৈঠক সঠিক হবে না।”

এদিকে একদল রাজনৈতিক বিশ্লেষক বলছেন, উত্তর কোরিয়ার এ সুড়ঙ্গ ধ্বংসের ব্যাপারটি আসলে একটা কৌশল৷ কেননা তাদের পারমাণবিক কর্মসূচি যথেষ্ট এগিয়েছে এবং এখন আর পরীক্ষার প্রয়োজন নেই৷ কেউ কেউ আবার বলছেন, ২০১৭ সালেই ঐ কেন্দ্রটিতে পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষার সময় কিছু অংশ ধসে পড়ে তা ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছিল৷

কেন্দ্রটি ধ্বংস করে ফেলা দেখতে নিরপেক্ষ কোনো অস্ত্র পরিদর্শক নয়, বরং বাছাই করা ২০ জনের মতো বিদেশি সাংবাদিক ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন৷

এ বছরের শুরুতেই পারমাণবিক পরীক্ষা ও কোরীয় উপত্যকায় ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা স্থগিতের ঘোষণা দেয় উত্তর কোরিয়া৷

অবশ্য ১৯৯৪ সালেও একটি সমঝোতার আলোকে উত্তর কোরিয়া এ ধরনের ঘোষণা দিয়েছিল৷ পরবর্তীতে আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থা সফলভাবে সেখানে পর্যবেক্ষণ কাজও চালায়৷ কিন্তু ২০০২ সালে সেই সমঝোতা ভেস্তে যাওয়ার পর, পিয়ংইয়ং কেন্দ্রটি আবারো চালুর ঘোষণা দেয় এবং ২০০৫ সালে আত্মরক্ষার জন্য পরমাণু অস্ত্র উৎপাদন শুরু করে৷

এইচআই/ডিজি (এপি, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন