কিমের কাছে শি, ট্রাম্পের কাছে কী? | বিশ্ব | DW | 20.06.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

উত্তর কোরিয়া

কিমের কাছে শি, ট্রাম্পের কাছে কী?

চীনের প্রেসিডেন্ট উত্তর কোরিয়ায় বিরল সফর শুরু করেছেন৷ মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠকের ঠিক আগে এই সফর কোরীয় উপদ্বীপে শান্তির সম্ভাবনাকে আবার উজ্জ্বল করে তুলছে৷

উত্তর কোরিয়ার শীর্ষ নেতা কিম জং উন সাম্প্রতিক কালে আন্তর্জাতিক মঞ্চে যথেষ্ট সমীহ আদায় করতে পেরেছেন৷ বেশ কয়েকবার চীন সফরের পাশাপাশি দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্টের সঙ্গে একাধিক সাক্ষাতের ঘটনা কোরীয় উপদ্বীপে শান্তির সম্ভাবনা বাড়িয়ে দিয়েছে৷ তাছাড়া মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প তাঁর সঙ্গে দু-দুবার বৈঠক করায় তাঁর গুরুত্ব আরও বেড়ে গেছে৷ রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুটিন ও কিম জন উন রাশিয়ায় মিলিত হয়েছেন৷ বিদেশের মাটিতে এই সব কূটনৈতিক সাফল্য সত্ত্বেও উত্তর কোরিয়া এখনো কার্যত একঘরে রয়ে গেছে৷ আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞার কারণে সে দেশের অর্থনীতি বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে৷ ১৪ বছর পর খোদ পিয়ং ইয়ং শহরে চীনের প্রেসিডেন্টের সফর সে দেশের মানুষকে কিছুটা আশার আলো দেখাতে পারে, এমনটাই চেয়েছিলেন কিম জং উন৷

বৃহস্পতিবার চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং রাষ্ট্রীয় সফরে প্রথম বার উত্তর কোরিয়ায় পা রাখলেন৷ পররাষ্ট্রমন্ত্রীসহ এক বড় প্রতিনিধিদলও তাঁর সঙ্গে এসেছে৷ উত্তর কোরিয়ার নেতার আমন্ত্রণে তিনি দুই দিন সে দেশে থাকবেন৷ রাষ্ট্র হিসেবে অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে উত্তর কোরিয়া চীনের উপর পুরোপুরি নির্ভরশীল৷ কিন্তু কোরীয় উপদ্বীপে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের প্রক্রিয়ায়  অগ্রগতির অভাবে জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা এখনো তুলে নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না৷ ফলে চীনও সে দেশকে পুরোপুরি সাহায্য করতে পারছে না৷ গত ফেব্রুয়ারি মাসে ভিয়েতনামে ট্রাম্প-কিম শীর্ষ বৈঠক ব্যর্থ হওয়ায় অচলবস্থা কাটছে না৷ এই অবস্থায় শি জিনপিং তাঁর সফরের মাধ্যমে কিছুটা অগ্রগতির চেষ্টা করছেন৷ আগামী ২৮শে জুন জাপানে জি-টোয়েন্টি শীর্ষ বৈঠকে তিনি  ডনাল্ড ট্রাম্প-এর সঙ্গে সাক্ষাত করবেন৷ পর পর কিম ও ট্রাম্প-এর সঙ্গে আলোচনার সুযোগের সদ্ব্যবহার করতে চান তিনি৷

ফেব্রুয়ারি মাসে বৈঠক ব্যর্থ হবার পর ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার বিষয়ে তেমন আগ্রহ দেখান নি৷ তবে কিম জং উন সম্পর্কে তাঁর সম্পর্কের উষ্ণতা অটুট রয়েছে৷ গত সপ্তাহে ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার নেতার কাছ থেকে ‘সুন্দর' ও ‘উষ্ণতা ভরা' একটি চিঠি পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন৷ ট্রাম্প কিম জং উন-এর সঙ্গে তৃতীয় শীর্ষ বৈঠকের সম্ভাবনা উড়িয়ে দেন নি৷ বর্তমান জটিলতা কাটাতে ইতিবাচক কিছু ঘটতে চলেছে বলেও তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন৷ চীনের প্রেসিডেন্ট  সরাসরি মধ্যস্থতাকারী হিসেবে সেই সমাধানসূত্র খোঁজার চেষ্টা করছেন কিনা, সেই বিষয়টি এখনো স্পষ্ট নয়৷

চীনের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের চলমান বাণিজ্য যুদ্ধও এই রসায়নের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে৷ ট্রাম্প ও শি-র মধ্যে ব্যক্তিগত সুসম্পর্কও এই সংঘাত এড়াতে সাহায্য করে নি৷ উত্তর কোরিয়ার উপর নিজস্ব প্রভাবের মাত্রা তুলে ধরে বেইজিং ওয়াশিংটনকে সে দেশের উপর মাত্রাতিরিক্ত চাপ সম্পর্কে সতর্ক করে দিতে পারে৷

এসবি/কেএম (ডিপিএ, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন