কাশ্মীর সীমান্তে গোলাগুলি, নিহত ৪ | বিশ্ব | DW | 02.03.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

কাশ্মীর

কাশ্মীর সীমান্তে গোলাগুলি, নিহত ৪

শনিবার রাতে কাশ্মীর সীমান্তে পাকিস্তান ও ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে গুলিবিনিময় হয়েছে৷ এতে দুই দেশের ৪ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন৷

কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা ডিপিএ জানিয়েছে, শনিবার রাতে পাকিস্তান ও ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে ব্যাপক গুলিবর্ষণ হয়৷ গত এক সপ্তাহে কাশ্মীর অঞ্চলে তৈরি হওয়া উত্তেজনার মধ্যে দুই পক্ষই বেশ কয়েকবার নিয়ম ভেঙ্গে একে অন্যের দিকে গুলি ছোঁড়ে৷

শনিবার রাতের গোলাগুলিতে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুঁচ এলাকায় দুই শিশুসহ ২৪ বছর বয়সী এক নারী নিহত হয়েছেন৷ পুলিশ ডিপিএ'কে জানিয়েছে যে, ঐ নারীর স্বামীও গুরুতর আহত হয়েছেন৷

অন্যদিকে, পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের কোটলিতে এক বালকের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে৷ এছাড়া আরো তিনজন আহত হয়েছেন৷ সব মিলিয়ে নিহত ৪ জন ছাড়াও ১১ জন আহত হবার খবর পাওয়া গেছে৷

গত এক সপ্তাহের উত্তেজনার প্রেক্ষিতে যুদ্ধের দুই পরমাণু শক্তিধর দেশের মধ্যে যুদ্ধের আশঙ্কা করেছিলেন কেউ কেউ৷ কিন্তু শুক্রবার ভারতীয় বিমান বাহিনীর সদস্য উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমানকে ইসলামাবাদ ছেড়ে দেবার পর সেই উত্তেজনা হ্রাস পেয়েছে বলে মনে করছেন অনেকেই৷ অথচ এর কয়েক ঘন্টা পরই সীমান্তে এই গোলাগুলি হলো৷

বুধবার ঐ পাইলট বিমান নিয়ে পাকিস্তানি সীমানায় পাকিস্তানি বিমানের সঙ্গে ডগফাইট করতে থাকলে এক পর্যায়ে তাঁর বিমান গুলিবিদ্ধ হয়৷ তিনি আটক হন৷

এর একদিন আগে ভারতীয় বিমান বাহিনী দাবি করে যে, তারা পাকিস্তানি সীমানায় ঢুকে জঙ্গি আস্তানায় হামলা করেছে৷ তারা পরে জানায় যে, কাশ্মীরে গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর বহরে হামলার জবাবে এই বিমান হামলা চালানো হয়েছে৷ কাশ্মীরে সেই হামলার দায় স্বীকার করে পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গি গোষ্ঠী ‘জৈশ-ই-মোহাম্মদ'৷ সেই হামলায় অন্তত ৪২ ভারতীয় আধা-সামরিক সেনা নিহত হয়েছিল, যা ১৯৮৯ সালে কাশ্মীরে বিদ্রোহ শুরুর পর থেকে ভারতীয় বাহিনীর উপর সবচেয়ে বড় হামলা৷

ভারত পাকিস্তান ভাগ হবার পর থেকেই কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছে৷ এ নিয়ে তিনবার যুদ্ধও করেছে তারা৷ ২০০৩ সালে তারা সেখানে যুদ্ধবিরতির একটি চুক্তি সই করে, যদিও এ সীমান্তে প্রায়ই থেকে থেকে উত্তেজনা ছড়ায়৷

জেডএ/এআই (ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন