কাশ্মীরে জাতিসংঘের প্রতিনিধি যাওয়া উচিত, মন্তব্য ফিনল্যান্ডের | বিশ্ব | DW | 07.11.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

কাশ্মীরে জাতিসংঘের প্রতিনিধি যাওয়া উচিত, মন্তব্য ফিনল্যান্ডের

ফিনল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পেকা হাভিস্তো সম্প্রতি ভারত সফরে এসে একটি সাক্ষাৎকারে বলেন এই কথা৷ তাঁর মতে, নতুন দিল্লির পক্ষ থেকেই এমন উদ্যোগ নেওয়া উচিত৷

ভারতের জনপ্রিয় পত্রিকা ‘দ্য হিন্দু’কে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে ফিনল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী কাশ্মীরের মর্যাদা বদল নিয়ে কথা বলেন৷ শুধু তাই নয়, সম্প্রতি কাশ্মীর ঘুরে সেখানের অবস্থা স্বাভাবিক, এমন দাবি করেছে ইউরোপিয়ান সংসদের একদল সাংসদ৷ সেই দাবির সত্যতা বিষয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে কাশ্মীরে জাতিসংঘের প্রতিনিধি দল আনার প্রস্তাব রাখেন তিনি৷

তাঁর মতে, ‘‘যারা কাশ্মীরে যাচ্ছেন ও সেখানকার পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলছেন, আমি তাদের সমালোচনা করছি না৷ কিন্তু আমার মতে, যারা কাশ্মীরের ইতিহাস সম্বন্ধে অবগত আছেন, তাদেরই এ বিষয়ে কথা বলা উচিত৷ ব্যক্তিগতভাবে আমি জাতিসংঘের সাথে সংশ্লিষ্ট ছিলাম বহু দিন৷ তাই জাতিসংঘের পর্যবেক্ষণকেই আমার নিরপেক্ষ মনে হয়৷’’

কাশ্মীর ভারত-পাক ইস্যু, কোথায় ফিনল্যান্ড?

কাশ্মীরের মর্যাদা বদলের ঘটনার পরই ফিনল্যান্ড সফরে গিয়েছিলেন ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুব্রহ্মণ্যম জয়শঙ্কর৷ সেখানে কাশ্মীরের পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার আশ্বাস দিয়েছিলেন তিনি, জানান হাভিস্তো৷ সেই সাক্ষাতেও জাতিসংঘের পক্ষ থেকে নিরপেক্ষ প্রতিনিধি দলে আনার প্রস্তাব দিয়েছিলেন হাভিস্তো৷ তিনি বলেন, ‘‘আমার এই কথা প্রতিবারই আমি জয়শঙ্করকে বলেছি, কিন্তু এই বিষয়ে এখনও কিছু করা যায়নি৷’’

ফিনল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মতে, কাশ্মীর সমস্যার সমাধান তখনই সম্ভব যখন দুই পক্ষ সংলাপে আগ্রহী হবেন৷ তৃতীয় কোনো পক্ষ সেই সংলাপে তখনই আসতে পারে যখন দুই পক্ষ তাতে রাজি হবেন৷ বর্তমানে কাশ্মীর বিষয়ে ভারত ও পাকিস্তানের সম্পর্ক নেই, মত হাভিস্তোর৷

জাতিসংঘের হয়ে সুদানের দারফুরে শান্তিচুক্তি লাভে হাভিস্তো ছিলেন অগ্রণী ভূমিকায়৷ কাশ্মীর সমস্যার সমাধানেও ফিনল্যান্ডের ভূমিকা কেমন হতে পারে, প্রশ্ন করা হয় হাভিস্তোকে৷ উত্তরে তিনি বলেন, ‘‘ভারতের সাথে আমাদের অনেক দিনের সম্পর্ক৷ কাশ্মীরের মতো অন্যান্য দীর্ঘমেয়াদী সমস্যার ক্ষেত্রে আমরা দেখেছি কীভাবে ফিনল্যান্ডের পিসকিপাররা সেখানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন৷ দুই পক্ষ সংলাপে আগ্রহী হয়ে তৃতীয় পক্ষকে আমন্ত্রণ জানালে তখন তা বিবেচনা করা যাবে৷’’

সম্প্রতি জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল ভারত সফরে যান ও কাশ্মীর উপত্যকার স্বাভাবিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন৷ হাভিস্তোও ম্যার্কেলের সাথে সুর মিলিয়ে বলেন, ‘‘পরিস্থিতি স্বাভাবিক নয়, তা স্পষ্ট৷ দোকানপাট বন্ধ, মানুষ কাজে যাচ্ছেন না, চাষ করছেন না৷ তার মানে অর্থনৈতিক উন্নয়নও থেমে আছে৷ এটাও ভাবনার বিষয়৷’’

ফিনল্যান্ডের মন্ত্রীর মন্তব্যে কোনো উত্তর এখনও ভারতীয় কর্তৃপক্ষ দেয়নি৷ জাতিসংঘের প্রতিনিধি আনা নিয়েও কোনো উচ্চবাচ্য করেনি ভারত৷

এসএস/কেএম (দ্য হিন্দু)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন