কাশির শব্দ জানিয়ে দেবে কোভিডের উপস্থিতি? | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 08.11.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্র

কাশির শব্দ জানিয়ে দেবে কোভিডের উপস্থিতি?

মার্কিন গবেষকদের একটি দল কোভিড চেনার বিশেষ প্রযুক্তি নিয়ে গবেষণা চালাচ্ছে৷ সফল হলে, কাশি থেকেই কোভিড সংক্রমণ ধরা পড়বে৷

‘এআই' বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তি মানুষের জীবনের অনেক কিছুই খুব দ্রুত বদলে দিচ্ছে৷ ইতিমধ্যে এআই ব্যবহার করে স্মার্টফোনে গলার আওয়াজ দিয়ে বাসার আলো-পাখা থেকে রান্নাঘরের চুলা নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে৷ এবার সেই প্রযুক্তিই ব্যবহৃত হবে কোভিড সংক্রমণের উপসর্গ বোঝার ক্ষেত্রে৷

গবেষকরা বলছেন, শিগগিরই আসতে পারে এমন অ্যাপ, যা ব্যবহারকারীর কাশির আওয়াজ শুনেই বলে দিতে পারবে তা কোভিড-সংক্রমণের লক্ষণ কি না৷

সোয়াব টেস্টের দিন শেষ?

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস ইন্সটিটিউট অফ টেকনোলজির (এমআইটি) তিনজন গবেষক জর্ডি লুগার্তা, ফেরান হুয়েটো ও ব্রায়ান সুব্রিয়ানা এমন প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছেন৷ এপ্রিল ও মে মাসে প্রায় পাঁচ হাজার ৩২০ জনের অডিও রেকর্ডিং জোগাড় করেন তারা৷ এরপর থেকেই নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে৷ কাশির আওয়াজের পাশাপাশি কথা বলার ধরনকেও পরীক্ষা করছেন তারা৷

প্রাথমিক ধাপের ফলাফল তাদের কাছে আশাজনক মনে হয়েছে৷ এখন পর্যন্ত গবেষণার ফলাফল আইইইই ওপেন জার্নাল অফ ইঞ্জিনিয়ারিং ইন মেডিসিন অ্যান্ড বায়োলজিতে প্রকাশ করেছেন তাঁরা৷ সেখানে তাঁরা বলেছেন, ‘‘প্রচলিত করোনা সংক্রমণের যে পরীক্ষা পদ্ধতিগুলি আছে, যেমন সোয়াব টেস্ট, তার সাথে তুলনা করলে দেখা যায় অডিও রেকর্ডিং পরীক্ষার এই নতুন মডেল প্রায় ৯৪ দশমিক ২ শতাংশ ক্ষেত্রেই সঠিক মূল্যায়ন করছে৷''

কিন্তু এসিম্পটোম্যাটিক বা উপসর্গহীন সংক্রমিতের ক্ষেত্রে এই পদ্ধতি ৮৩ দশমিক ২ শতাংশ ক্ষেত্রে সফল৷ গবেষকরা বলছেন, একশ শতাংশ নির্ভুল মডেলে পৌঁছতে তাদের আরো অনেক বেশি নমুনা সংগ্রহ করতে হবে৷ তবে নির্ভুল মডেলে পৌঁছলেও এই পদ্ধতি কখনোই বর্তমানে প্রচলিত পরীক্ষা পদ্ধতিকে পুরোপুরি অপ্রয়োজনীয় করে ফেলবে না৷ বরং এই পদ্ধতি মূল টেস্টের সহায়ক হিসাবেই কাজ করবে, কারণ কোভিড সংক্রমণ ধরতে সোয়াব টেস্টই সবচেয়ে বিস্তারিত ও এখন পর্যন্ত সবচেয়ে সফল৷

ফাবিয়ান শ্মিডট/এসএস

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন