কার্ডিফে হ্যাটট্রিক হলো না | বিশ্ব | DW | 08.06.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯

কার্ডিফে হ্যাটট্রিক হলো না

কার্ডিফে আগের রাতে বৃষ্টি হয়েছে, সকালে দেখা গেছে মেঘ-রোদের লুকোচুরি খেলা, সঙ্গে ছিল তীব্র বাতাস৷ এমন পরিস্থিতিতে টসে জিতলে যে -কোনো দলই বোলিং বেছে নিতো৷ মাশরাফিও তাই করেছেন৷

কিন্তু বোলাররা কন্ডিশনের সুবিধা কাজে লাগাতে পারেননি৷ ফলে কার্ডিফে ১০৬ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ দল৷ আর এই হারের পেছনে দায়ী করা হচ্ছে টাইগারদের দুর্বল বোলিং এবং ফিল্ডিংকে৷ শুরুতে ব্যাট করে ইংলিশরা ৩৮৬ রানের যে পাহাড় গড়েছিল, তা ব্যাটসম্যানদের পক্ষে টপকানো ছিল কার্যত অসম্ভব৷ তা সত্ত্বেও সাকিব-মুশফিকের বড় জুটি এবং সাকিবের সেঞ্চুরি খানিকটা আশা জাগিয়েছিল৷ কিন্তু ইংলিশদের নিয়ন্ত্রিত বোলিং দ্রুতই সেই আশা মিইয়ে দিয়েছে৷

ইংলিশ ব্যাটসম্যানদের মধ্যে জেসন রয় ১৫৩, জস বাটলার ৬৪  ও জনি বেয়ারস্টো ৫১ রান করেছেন৷ সাইফুদ্দিন ও মিরাজ দু’টি করে উইকেট নিয়েছেন৷ 

শনিবার সকালে টস জিতে প্রতিপক্ষকে ব্যাট করতে পাঠান বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি৷ কারণ হিসেবে বলেন যে, গেল দু’দিন উইকেট ছিল ঢাকা৷ তাই বোলাররা প্রথম ঘন্টায় সুবিধা পাবেন৷ 

ম্যুভমেন্টের সুবিধা পেতে তাই দলের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ব্যক্তিটির হাতেই বল তুলে দেন তিনি৷ সাকিব আল হাসানও প্রথম ওভারে মাত্র এক রান দিয়ে অধিনায়কের আস্থার জবাব দিলেন৷

পরের ওভারে মাশরাফি নিজেই এলেন৷ তিনিও করলেন মোটামুটি একটি ওভার৷ কিন্তু যতই সময় গড়াতে লাগল, দুই ইংলিশ ওপেনিং ব্যাটসম্যান জেসন রয় ও জনি বেয়ারস্টো মারমুখি হতে লাগলেন৷ বিশেষ করে রয় কাউকেই ছেড়ে কথা বললেন না৷ আর ফ্ল্যাট উইকেটটিও শুনছিল না বোলারদের কথা৷ 

১৫ ওভারেই স্বাগতিক দেশটির সংগ্রহ শতরান পেরোয়৷ দলীয় সংগ্রহ ১২৮ রানের মাথায় এই জুটি ভাঙ্গেন মাশরাফি৷ সাজঘরে ফেরান বেয়ারস্টোকে ব্যক্তিগত ৫১ রানে৷ কিন্তু তাতে রানের চাকা থামেনি আয়োজকদের৷ ৯২ বলে ব্যক্তিগত সেঞ্চুরি তুলে নেন রয়৷ ৫টি ছয় ও ১৪টি চারে সাজানো ১২১ বলে ১৫৩ রানের ইনিংসটি থামে মিরাজের বলে৷ সে ওভারের প্রথম তিনটি বলে তিনটি ছয় মেরে চতুর্থ বলে ক্যাচ দেন রয়৷ 

এরপর শুরু হয় জস বাটলারের ঝড়৷ ৪৪ বলে ৬৪ রান করে সৌম্য সরকারের হাতে ধরা পড়েন তিনি৷ বোলার ছিলেন সাইফুদ্দিন৷ এই ডানহাতি পেসার এর আগে জো রুটকেও ফিরিয়েছেন৷ 

উইকেট ব্যাটসম্যানদের পক্ষে থাকায় লম্বা ব্যাটিং লাইনআপ নিয়ে ইংলিশরা এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারালেও রানের গতি সচল রাখেন৷ শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেটে ৩৮৬ রানের বিরাট সংগ্রহ দাঁড় করান তারা৷ 

শুধু এই বিশ্বকাপই নয়, ইংলিশদের জন্য এটি যে কোনো বিশ্বকাপেই সবচেয়ে বড় ইনিংস৷ এছাড়া টানা সাত ওয়ানডেতে তিনশ’র ওপরে রান করে বিশ্বরেকর্ডই করে ফেলেছে তারা৷ 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন