কারা আগে করোনা ভ্যাকসিন পাবেন তার তালিকা প্রকাশ হবে | বিষয় | DW | 14.12.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

কারা আগে করোনা ভ্যাকসিন পাবেন তার তালিকা প্রকাশ হবে

বাংলাদেশে করোনার ভ্যাকসিন আসতে পারে জানুয়ারি মাসে৷ স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছেন প্রথমে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ৫০ লাখ ডোজ টিকা আসবে৷ আর এই টিকা দেয়া হবে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে৷

বাংলাদেশের বেক্সিমকোর মাধ্যমে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের সাথে যে চুক্তি করেছে তাতে পর্যায়ক্রমে তিন কোটি ডোজ ভ্যাকসিনপাওয়া যাবে৷ আর এরজন্য ভ্যাকসিন কেনা ও বিতরণ খরচ মিলে খরচ হবে এক হাজার ৫৮৯ কোটি ৪৩ লাখ টাকা৷ প্রথম ডোজের ২৮ দিন পর দ্বিতীয় ডোজের হিসেবে প্রথম চালানের ৫০ লাখ ডোজ দেয়া যাবে ২৫ লাখ মানুষকে৷

ন্যাশনাল ভ্যাকসিন ডেপ্লয়মেন্ট কমিটির চেয়ার ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, ‘‘ভ্যাকসিন দেয়া হবে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে৷ ১০ ধরনের অগ্রাধিকার তালিকা তৈরি করা হয়েছে৷ প্রথমে এই তালিকা থেকে কারা কতজন পাবেন তাও নির্ধারণ প্রায় চূড়ান্ত হয়েছে৷ আমরা অচিরেই এই অগ্রাধিকার তালিকা প্রকাশ করব৷''

অডিও শুনুন 00:57

‘‘ভ্যাকসিন দেয়া হবে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে’’: ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা

ভ্যাকসিন বিষয়ক কর্মসূচি পরিচালিত হবে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মা, শিশু ও কিশোর স্বাস্থ্য কর্মসূচির আওতায়৷ সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচির কর্মীরা এই কার্যক্রমে অংশ নেবেন৷

কারা আগে পাচ্ছেন:

যে ১০ ধরনের জনগোষ্ঠীতে অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে তাদের মধ্যে আছেন: মুক্তিযোদ্ধা, করোনা মোকাবিলায় নিয়োজিত চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মী, সম্মুখসারির কর্মী, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাহীন জনগোষ্ঠী, বয়োজ্যেষ্ঠ জনগোষ্ঠী, দীর্ঘ মেয়াদি রোগে আক্রান্ত প্রাপ্তবয়স্ক জনগোষ্ঠী, শিক্ষা কর্মী,গণপরিবহন কর্মী৷ ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা জানান, বয়োজ্যেষ্ঠ বলতে ষাটোর্ধ বয়সের ব্যক্তিদের বোঝানো হচ্ছে৷

জানা গেছে, মুক্তিযোদ্ধা রয়েছেন দুই লাখ ১০ হাজার, সরকারি স্বাস্থ্যকর্মী রয়েছেন তিন লাখ, বেসরকারি কর্মী রয়েছেন সাত লাখ, স্বাস্থ্য নিয়ে বিভিন্ন এনজিও কর্মী রয়েছেন দেড় লাখ৷ গণমাধ্যম কর্মী রয়েছেন ৫০ হাজার৷ জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের পাঁচ হাজার৷ পুলিশ বাহিনীর সদস্য দু'লাখের ওপরে৷ ক্যানসার, যক্ষ্মা আর ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগী ধরা হয়েছে এক লাখ দুই হাজারের মতো৷ সেনাবাহিনী জন্য ধরা হয়েছে তিন লাখ৷ সংসদ সদস্যসহ জনপ্রতিনিধি ধরা হয়েছে ৭০ হাজার৷

জাতীয় টেকনিক্যাল কমিটির সদস্য বিএসএমএমইউ-এর সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলাম বলেন, ‘‘আমরা ১০ ধরনের জনগোষ্ঠীকে অগ্রাধিকার দিতে বলেছি৷ তবে তার মধ্যে জনপ্রতিনিধি ছিলো বলে আমার মনে হয় না৷ আর আমরা ওই ১০ ধরনের জনগোষ্ঠীর মধ্যে যারা করেনা সংক্রমণের ঝুঁকিতে আছে তাদের জন্য বলেছি৷ যেমন চিকিৎসক অগ্রাধিকার পাবেন৷ কিন্তু যে চিকিৎসক সরাসরি চিকিৎসা কাজে যুক্ত নন তিনি পাবেন না৷ পুলিশের কথা বলেছি৷ কিন্তু যে পুলিশ সদস্য সরাসরি ফিল্ডে কাজ করেন না তিনি পাবেন না৷''

অডিও শুনুন 03:12

Nazrul Islam Today - MP3-Stereo

অগ্রাধিকার নীতি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘করোনায় এখন পর্যন্ত বৃদ্ধরা বেশি মারা মারা গেছে৷ আর তারা আমাদের বাবা-চাচা৷ আবার যারা করোনার চিকৎসা করেন তারা সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে থাকেন৷ এপর্যন্ত ১০৯ জন ডাক্তার মারা গেছেন৷ আসল কথা হলো যাদের করোনা আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি তাদের আগে দেয়া হবে৷''

তার মতে, ‘‘বাংলাদেশে  করোনার টিকার জন্য যে অগ্রাধিকার নির্ধারণ করা হয়েছে, সারাবিশ্বেও একইভাবে করা হচ্ছে৷ আর এটা যাতে নিশ্চিত হয় তার জন্য নীতি হলো করোনা সংক্রমণ ঝুঁকি৷'' ভ্যাকসিনের আগ্রাধিকার তালিকা ও বিতরণ পদ্ধতি নিয়ে একটি পরিকল্পনা করা হয়েছে বলে জানান ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা৷ এই পরিকল্পনায় ভ্যাকসিন সংরক্ষণ, পরিবহন এবং বিতরণ কৌশলও রয়েছে৷ তিনি বলেন, ‘‘এই অগ্রাধিকারভুক্ত সবাই একবারে ভ্যাকসিন পাবেন না৷ কোন পর্যায়ে কত ভ্যাকসিন আসবে তার ওপরে নির্ভর করছে কতজন পাবেন৷ তবে অগ্রাধিকারের বাইরে সাধারণ মানুষের জন্যও ভ্যাকসিন থাকবে৷ তারাও কীভাবে পাবেন তারও একটা নিয়ম করা হয়েছে৷''

ভ্যাকসিন আসার আগেই এই সবকিছু গণমাধ্যমে প্রকাশ করা হবে বলে জানান তিনি৷

উৎপাদন থেকে পরিবহনসহ প্রতি ডোজের জন্য পাঁচ ডলার খরচ হবে৷ তবে এখানে আসার পর এক দশমিক ২৫ ডলার করে যোগ হবে৷ কিন্তু বাংলাদেশের নাগরিকরা বিনামূল্যে এই ভ্যাকসিন পাবেন৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়