কান্নায় ভেঙে পড়লেন রোহিঙ্গারা | বিশ্ব | DW | 07.09.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

কান্নায় ভেঙে পড়লেন রোহিঙ্গারা

মিয়ানমার থেকে নির্যাতনের মুখে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীরা কাঁদছেন৷ তাঁরা কক্সবাজারের কুতুপালং ক্যাম্পে তুরস্কের ফার্স্ট লেডিকে পেয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন৷ তুলে ধরেন নির্মম নির্যাতনের কথা৷ তাঁদের পাশে দাঁড়াতে আবেদন জানান৷

বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গা শরণার্থীদের অবস্থা দেখতে বৃহস্পতিবার কক্সবাজারের কুতুপালং শরণার্থী ক্যাম্পে যান তুরক্কের ফার্স্ট লেডি এমিন এর্দোয়ান এবং দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসোগলু৷ তাঁদের সঙ্গে ছিলেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী৷

দুপুর দেড়টার দিকে উখিয়ার কুতুপালংয়ে পৌঁছে রোহিঙ্গাদের নিবন্ধিত ক্যাম্প ও অস্থায়ী ক্যাম্প পরিদর্শন করেন তাঁরা৷ ক্যাম্পগুলো সরেজমিন দেখার সময় রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশুদের সঙ্গে তাঁরা কথা বলেন৷ শোনেন তাঁদের দেশত্যাগের পিছনে নির্মমতার কথা৷ হত্যা ও নির্যাতনের কথাও৷

অডিও শুনুন 02:04
এখন লাইভ
02:04 মিনিট

‘তুরস্কের ফার্স্ট লেডি রোহিঙ্গাদের পাশে থাকার আশ্বাস দেন’

কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মুখপাত্র ইউনূস আরমান নিজেও তুরস্কের ফার্স্ট লেডির সঙ্গে কথা বলেন৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘যাঁরা নির্যাতিত হয়েছেন, যাঁদের পরিবারের সদস্যরা হত্যার শিকার হয়েছেন, এমন রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সঙ্গে তিনি কথা বলেছেন৷ ঘটনার বর্ননা দেয়ার সময় রোহিঙ্গারা কান্নায় ভেঙে পড়েন৷ ফার্স্ট লেডি নিজেও এ সময় আবেগে কেঁদে ফেলেন৷ তিনি রোহিঙ্গাদের পাশে থাকার আশ্বাস দেন৷ দেন সমস্যা সমাধানে আন্তরিকভাবে চেষ্টার আশ্বাসও৷’’

কুতুপালং নিবিন্ধিত ক্যাম্পে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলার পর তুরস্কের ফার্স্ট লেডি প্রায় দুই কিলোমিটার কাদামাটির রাস্তা পায়ে হেঁটে বালুখালি অনিবিন্ধিক রোহিঙ্গা ক্যাম্পে যান৷ সেখানেও তিনি কথা বলেন রোহিঙ্গাদের সঙ্গে৷ দেড় ঘণ্টা পরিদর্শন শেষে পরে তুরস্কের তুরস্কের ফার্স্ট লেডি এমিন এর্দোয়ান ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসোগলু সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন কক্সবাজারে৷ ঐ ব্রিফিং-এ উপস্থিত সাংবাদিক শেখ শাহরিয়ার জামান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘তুরস্কের ফার্স্ট লেডি বলেছেন, রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশ যা করছে তা অত্যন্ত প্রশংসনীয়৷ এই মানবিক বিপর্যয় থেকে রোহিঙ্গাদের রক্ষা করতে তুরস্ক বরাবর বাংলাদেশের পাশে থাকবে৷ রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশে তুরস্কের সহায়তা অব্যাহত থাকবে৷''

অডিও শুনুন 05:06
এখন লাইভ
05:06 মিনিট

‘রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশ যা করছে তা প্রশংসনীয়’

তিনি আরো বলেন, ‘‘আমরা ৩০ লাখ শরণার্থীকে আশ্রয় দিয়েছি এবং আমরা এ বিষয়ে সচেতন৷ তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রোহিঙ্গা বিষয়ে বিশ্বের বিভিন্ন সংস্থা ও জাতিসংঘের সঙ্গে আলোচনা করছেন৷ আমরা আমাদের রোহিঙ্গাদের জন্য আর্থিক সহয়তা অব্যাহত রাখবো৷''

তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসোগলু বলেন, ‘‘রোহিঙ্গারা অত্যন্ত অমানবিক পরিস্থিতির মধ্যে রয়েছে৷ বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের জন্য যা করছে, সেজন্য তুরস্কের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ৷ তুরস্ক রোহিঙ্গাদের সহায়তায় বাংলাদেশের পাশে থাকবে৷ ভবিষ্যতেও এ সমর্থন অব্যাহত থাকবে৷''

তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘‘প্রেসিডেন্ট এর্দোয়ান রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছেন৷ আগামী শনিবার কাজাকিস্তানের রাজধানী আস্তানাতে ‘অর্গানাইজেশন অফ ইসলামিক কান্ট্রি'-র একটি শীর্ষ সম্মেলন হবে৷ সেখানে রোহিঙ্গা বিষয়ে আলোচনা হবে৷ এছাড়া দু'সপ্তাহ পর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ অধিবেশনের আলোচনার সাইডলাইনে রোহিঙ্গা বিষয়ে একটি বৈঠক হবে৷ সেখানে জাতিসংঘের বর্তমান মহাসচিব, সাবেক মহাসচিব কোফি আনান, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের শীর্ষ নেতাদেরকে অংশগ্রহণের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে৷''

ভিডিও দেখুন 02:13
এখন লাইভ
02:13 মিনিট

সহিংসতার শিকার মিয়ানমারের রোহিঙ্গারা

তিনি বলেন, ‘‘আমাদের প্রেসিডেন্ট মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চির সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন৷ আমরা তাঁদের প্রতি সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানিয়েছি৷ সবাইকে সঙ্গে নিয়ে আমাদের এর সমাধান খুঁজে বের করা দরকার৷''

এদিকে জাতিসংঘের সর্বশেষ প্রতিবেদনে বলা হয়, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সহিংসতা থেকে বাঁচতে  বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গার সংখ্যা তিন লাখে পৌঁছাতে পারে৷ ১২ দিন আগে শুরু সহিংসতায় এরইমধ্যে ১ লাখ ৪৬ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশের সীমান্ত অঞ্চলে কাজ করা জাতিসংঘের কর্মীরা৷ বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচির বাংলাদেশ অঞ্চলের প্রধান দীপন ভট্টাচার্য জানয়েছেন, এতে ভয়াবহ খাদ্য সংকট হতে পারে৷ ইউএনএইচসিআর বলছে, মিয়ানমার থেকে সর্বশেষ সহিংসতায় বাংলাদেশে এ পর্যন্ত এক লাখ ২৩ হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থী এসেছে৷

রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশের আর কী করণীয় বলে মনে হয়? লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়