কাতার ও মধ্যপ্রাচ্য সংকটের সমাধান করবেন ট্রাম্প? | বিশ্ব | DW | 08.09.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

কাতার

কাতার ও মধ্যপ্রাচ্য সংকটের সমাধান করবেন ট্রাম্প?

অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক মঞ্চে তেমন সাফল্য না পেয়ে পররাষ্ট্র নীতির ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য কাজ করে দেখাতে চাইছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ কাতার সংকটের পাশাপাশি মধ্যপ্রাচ্য সংকটের সমাধানে উদ্যোগ নিতে চাইছেন তিনি৷

গত জুন মাসে কাতার ও সৌদি আরবের নেতৃত্বে কিছু দেশের মধ্যে যে রাজনৈতিক সংকট শুরু হয়েছে, এখনো তার সমাধানের কোনো সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না৷ একাধিক নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও কাতার চাপের মুখে নতি স্বীকার করেনি৷ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প দুই পক্ষের মধ্যে বোঝাপড়া করাতে তৎপর হয়ে উঠতে চান৷ বিবাদমান দেশগুলির প্রতিনিধিদের হোয়াইট হাউসে ডেকে তিনি মধ্যস্থতা করতে চান৷ কাতারের প্রতিনিধিরা এমন বোঝাপড়ার জন্য প্রস্তুত, বলেন ট্রাম্প৷

সৌদি আরবের সঙ্গে অ্যামেরিকার ‘দারুণ সম্পর্ক' রয়েছে, তাই সুযোগ পেলে তিনি মধ্যস্থতার দায়িত্ব নিতে চান৷ ওয়াশিংটন সফররত কুয়েতের রাষ্ট্রপ্রধান সাবাহ আল আহমেদ আল-সাবাহ-র সঙ্গে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প এই ইঙ্গিত দিয়েছেন৷ পারস্য উপসাগরীয় দেশগুলির গোষ্ঠী জিসিসি-র মধ্যে আবার ঐক্য আনার উপর জোর দিয়েছেন তিনি৷ সন্ত্রাসবাদ সহ একাধিক চ্যালেঞ্জের মোকাবিলায় বর্তমান বিবাদ অন্তরায় হয়ে উঠছে বলে মনে করেন ট্রাম্প৷

কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মহম্মদ বিন আবদুলরহমান আল-তানি বলেছেন, মধ্যস্থতার ক্ষেত্রে কোনো পূর্বশর্ত থাকলে চলবে না৷ বিশেষ করে সৌদি নেতৃত্বে জোট যে ১৩টি দাবি পেশ করেছে, তা কাতারের পক্ষে পুরোপুরি মেনে নেওয়া কখনোই সম্ভব নয়৷ বর্তমান মধ্যস্থতাকারী দেশ কুয়েতের রাষ্ট্রপ্রধান শেখ সাবাহ-ও বলেছেন, সব দাবি মেনে নেওয়া সম্ভব না হলেও এর একটা বড় অংশের মীমাংসা করা সম্ভব৷ তিনি আরও বলেন, দুই পক্ষের মধ্যে যুদ্ধের পরিস্থিতি এড়ানো সম্ভব হয়েছে৷

কাতার সংকটের পাশাপাশি মধ্যপ্রাচ্য সংকট নিয়েও আশা প্রকাশ করেছেন ট্রাম্প৷ অতীতে একের পর এক মার্কিন প্রশাসন এ ক্ষেত্রে কিছু অগ্রগতি সত্ত্বেও শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হলেও তিনি মনে করেন, অবশ্যই শান্তির সম্ভাবনা রয়েছে৷ ট্রাম্প প্রশাসনের কর্মকর্তারা মনে করছেন, সরাসরি ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনিদের মধ্যে আলোচনায় অগ্রগতি কঠিন হলেও সৌদি আরব ও ইসরায়েলের মধ্যে সম্পর্কের উন্নতির মাধ্যমে এক আঞ্চলিক সমাধানসূত্র খুঁজে পাওয়া যেতে পারে৷ তবে ট্রাম্প দ্বিরাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানসূত্রের প্রতি আগ্রহ না দেখানোর ফলে ফিলিস্তিনিরা হতাশা প্রকাশ করেছে৷

এসবি/ডিজি (রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়