কলকাতার পেশাদারদের শখ ফোটোগ্রাফি | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 07.01.2011
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সমাজ সংস্কৃতি

কলকাতার পেশাদারদের শখ ফোটোগ্রাফি

কলকাতা মহানগরীর ব্যস্ত পেশাদারদের অনেকেরই প্রিয় শখ এখন ফোটোগ্রাফি৷ অবসর সময়ে এরা ক্যামেরা হাতে বেরিয়ে পড়েন সাবজেক্টের খোঁজে৷

Casio, CeBIT, Hannover, Information, digital, camera, ডিজিটাল, ক্যামেরা, কল্যাণ, ছবি,

ডিজিটাল ক্যামেরার কল্যাণে ছবি তোলা এখন সহজ এবং আগের থেকে কম সময়সাপেক্ষ

কলকাতার ধর্মতলার মেট্রো চ্যানেলের যে জায়গাটায় আজকাল প্রায় রোজই কোনও না কোনও রাজনৈতিক দলের জমায়েত থাকে, সেখানেই দেখা হয়ে গেল পুরনো পরিচিত এক ডাক্তার বাবুর সঙ্গে৷ কলকাতার ব্যস্ততম অ্যানাসথেটিস্টদের একজন, ডাঃ নির্মল হালদার, সদ্য কেনা ক্যামেরা হাতে ছবি তুলে বেড়াচ্ছেন৷ একটু আগেই কিনেছেন অত্যাধুনিক ডিজিটাল এস এল আর-টি, সেটাই পরখ করে দেখছেন৷ কেমন লাগছে নতুন ক্যামেরা? ডাঃ হালদার জানালেন, মনে হচ্ছে, এবার থেকে যা দেখবেন, পছন্দ হলে সবই সঙ্গে রেখে নেবেন, অর্থাৎ ক্যামেরায়৷

ব্যস্ত ডাক্তারবাবুর এই ছবি তুলতে বেরিয়ে পড়া কোনও ব্যতিক্রমী ঘটনা নয়৷ বরং ব্যস্ত পেশাদাররা অনেকেই আজকাল ছবি তোলাকে খুব সিরিয়াস এক অবসরযাপন হিসেবে বেছে নিয়েছেন৷ এদের অনেকেই চমৎকার ছবি তোলেন৷ অনেকে ভাল ছবি তুলবেন বলে কোনও ফটোগ্রাফিক ক্লাবের সদস্য হয়ে গেছেন৷ আবার কেউ কেউ ছবি তোলার সূত্র ধরে পাখি বা বন্যপ্রাণীর অনুরাগী হয়ে গেছেন৷ পরিচয় দিতে অনিচ্ছুক, বহুজাতিক সংস্থা আইবিএম-এর কর্মী, পরিচিত এক তথ্য-প্রযুক্তি পেশাদার যেমন জানালেন যে, পাখির ছবি তুলতে তুলতে তিনি নিজেই এখন ছোটখাট একজন পক্ষী বিশারদ হয়ে গেছেন৷ তবে ছবি তোলার জন্য বেরিয়ে পড়ার সুযোগ কালেভদ্রে আসে৷ যেমন বললেন ডাঃ নির্মল হালদার৷

আসলে ডিজিটাল ক্যামেরার কল্যাণে ছবি তোলাটা এখন তুলনায় সহজ, এবং তার থেকেও বড় কথা, আগের থেকে অনেক কম সময়সাপেক্ষ হয়েছে৷ সম্ভবত সেই কারণেই ব্যস্ত পেশাদারদের প্রিয় নেশা হয়ে উঠছে ফটোগ্রাফি৷

প্রতিবেদন: শীর্ষ বন্দ্যোপাধ্যায়

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী

সংশ্লিষ্ট বিষয়