কর্মীদের বর্ণবাদী আচরণ নিয়ন্ত্রণ করতে শেখাবে স্টারবাকস | বিশ্ব | DW | 18.04.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

কর্মীদের বর্ণবাদী আচরণ নিয়ন্ত্রণ করতে শেখাবে স্টারবাকস

অ্যামেরিকা জুড়ে ছড়িয়ে থাকা নিজেদের সব শাখা একদিনের জন্য বন্ধ রেখে কর্মীদের বর্ণবাদী আচরণ নিয়ন্ত্রণের বিশেষ প্রশিক্ষণ দেবে স্টারবাকস৷  

 মে মাসের ২৯ তারিখে অ্যামেরিকার ৮ হাজার শাখা বন্ধ রেখে ঐ প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে বলে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কেভিন জনসন জানিয়েছেন৷

বুধবার এক বিবৃতিতে কেভিন বলেন, ‘‘সব শাখা বন্ধ রেখেবণর্বাদী আচরণের বিরুদ্ধে প্রশিক্ষণ দেওয়া এ ধরনের উদ্যোগের প্রথম ধাপ৷ ধীরে ধীরে আমাদের প্রতিষ্ঠান ও সহযোগী প্রতিষ্ঠানের সবাইকে এ ধরনের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে৷'' 

গত বৃহস্পতিবার ফিলাডেলফিয়া রাজ্যের স্টারবাকসের একটি শাখায় দু'জন কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তি টয়লেট ব্যবহার করতে চাইলে তাঁদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করে স্টারবাকসের এক বিক্রয়কর্মী৷ পরে পুলিশ ডেকে ঐ দুই কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তিকে ধরিয়ে দেওয়া হয়৷

মোবাইলে ধারণ করা একটি ভিডিও খুব দ্রুত টুইটারে ভাইরাল হয়৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় স্টারবাকসকে বর্ণবাদের অভিযোগে অভিযুক্ত করে বর্জনের পক্ষে দ্রুত জনমত গড়ে উঠতে থাকে৷

স্টারবাকসের সিইও অবশ্য প্রথম থেকেই এ ধরনের ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করে আসছেন৷ নিগ্রহের শিকার দুই কৃষাঙ্গ ব্যক্তির কাছে তিনি ব্যক্তিগতভাবে ক্ষমাও চেয়েছেন৷

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা গেছে,কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তিরাকোনও কিছু অর্ডার না দিয়ে চুপচাপ বসে ছিলেন টেবিলে৷ পরে তাঁদের একজন টয়লেট ব্যবহার করতে চাইলে স্টারবাকসের ঐ শাখার ব্যবস্থাপক তাঁদেরকে বলেন ‘‘কিছু না কিনলে টয়লেট ব্যবহার করা যাবে না৷''  

এরপরও কৃষ্ণাঙ্গ দুই ব্যক্তি টেবিলে বসে বন্ধুর জন্য চুপচাপ অপেক্ষা করছিলেন৷ কিন্তু তাঁদেরকে সেখান থেকে চলে যেতে বলা হয়৷ তাঁরা চলে যেতে না চাইলে পুলিশ ডেকে হাতকড়া পরিয়ে তাঁদের থানায় নেওয়া হয়৷ 

এইচআই/এসিবি (ডয়চে ভেলে)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন