কর্পোরেট-রাজনৈতিক চক্রে মিডিয়া, বের হওয়ার পথ নেই | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 08.05.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

কর্পোরেট-রাজনৈতিক চক্রে মিডিয়া, বের হওয়ার পথ নেই

কর্পোরেটই তো চালায় মিডিয়াকে৷ ভারতে অবশ্য কর্পোরেটের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে রাজনৈতিক নেতারা৷ তারাও প্রচুর চ্যানেল বা কাগজের মালিক৷

সংবাদপত্র, নিউজ চ্যানেল, পত্রিকা, ডিজিটাল নিউজ প্ল্যাটফর্ম সবই হলো ব্যবসা, নিখাদ ব্যবসা৷ আর পাঁচটা ব্যবসার মতো এখানেও মন্ত্র একটাই, প্রডাক্ট বেচতে হবে৷ বিজ্ঞাপন পেতে হবে৷ লাভের কড়ি ঘরে আনতে হবে৷ ঘরের খেয়ে বনের মোষ তাড়ানোর জন্য কেউ বড় আকারে খবরের কাগজ করেন না৷ সাংবাদিকতাও নয়৷ তবে অন্য ব্যবসার সঙ্গে ফারাকটা হলো, মিডিয়া জনমত গঠন করতে পারে, কোনো একদিকে ঘুরিয়ে দিতে পারে, যেটা আর পাঁচটা ব্যবসা পারে না৷ আর তাই কর্পোরেট, রাজনৈতিক নেতাদের নজর পড়েছে মিডিয়ার উপর৷ এই সব কর্পোরেটের কাছে মিডিয়া প্রধান ব্যবসা নয়, এটা হলো সহায়ক ব্যবসা৷

এখন ভারতের মিডিয়ার জগতে বাস্তব ছবিটা হলো, বেশিরভাগ মিডিয়া সংস্থার মালিক হয় কর্পোরেট বা রাজনৈতিক নেতা৷ ভারতে নিউজ টেলিভিশনের সব চেয়ে বড় চেইন হলো টিভি১৮৷ প্রায় প্রতিটি প্রধান ভাষায় টিভি১৮-র নিউজ চ্যানেল আছে৷ তার মালিক মুকেশ আম্বানির গোষ্ঠী রিলায়েন্স৷ নিজেদের টিভি চ্যানেল ছাড়াও প্রচুর মিডিয়া গোষ্ঠীর শেয়ার কিনে রেখেছে আম্বানির রিলায়েন্স৷

দিল্লির অন্যতম প্রধান ইংরাজি সংবাদপত্র হিন্দুস্তান টাইমস, যার মালিক বিড়লা শিল্পগোষ্ঠীর শোভনা ভারতীয়া৷ উত্তর প্রদেশে তাদের বড় কারখানা আছে৷ তার ও তার স্বামী অনেক শিল্প সংস্থার মালিক৷

দেশের অন্তত ছয়টি ভাষায়  খবরের কাগজ, পত্রিকা, নিউজ টেলিভিশন চ্যানেল, পডকাস্ট, ডিজিটাল নিউজ, অনলাইন গানের প্ল্যাটফর্ম, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট মিলিয়ে বিশাল ব্যবসা বেনেট কোলম্যান অ্যান্ড কোম্পানির, যার মালিক জৈন পরিবার৷ তারা এখন সংবাদপত্র জগতের সব চেয়ে বড় কর্পোরেট সংস্থা৷ তবে তাদের কাছে সংবাদপত্রের ব্যবসাই প্রধান৷ এছাড়া তারা শিক্ষা সংস্থার মালিক৷

হিন্দি সংবাদপত্রের জগতে অন্যতম বড় নাম দৈনিক জাগরণ, যার মালিক বিজেপি-র সাংসদ ছিলেন৷  তাদেরও সুগার মিল সহ অন্য নানা ধরনের ব্যবসা আছে৷ পাইয়োনিয়ারের সাবেক সম্পাদক ও সাবেক মালিক চন্দন মিত্র বিজেপি-র সাংসদ ছিলেন, পরে অবশ্য তিনি তৃণমূলে যোগ দেন৷ ওড়িশায় সাবেক মুখ্যমন্ত্রী নন্দিনী শতপথির ছেলে তথাগত শতপথি কিছুদিন আগে পর্যন্ত বিজেডি-র সাংসদ ছিলেন৷ তিনি একটি সংবাদপত্র চালান৷ দক্ষিণ ভারতের এক মুখ্যমন্ত্রীর পরিবার একটি বড় সংবাদপত্র গোষ্ঠীর মালিক৷

তামিলনাড়ুতে ডিএমকে নেতা মুরোসলি মারান রাজ্যের প্রধান টিভি নেটওয়ার্কের মালিক৷ সাবেক কংগ্রেস সাংসদ রাজীব শুক্লার স্ত্রী অনুরাধা প্রসাদ নিউজ ২৪-এর মালিক৷ তিনি আবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদের বোন৷ ইন্ডিয়া নিউজের মালিক আবার কংগ্রেস নেতার ছেলে৷ মহারাষ্ট্রের লোকমতের মালিক কংগ্রেসের সঙ্গে যুক্ত৷

কর্পোরেটের হাতে, রাজনৈতিক নেতার হাতে মিডিয়ার মালিকানা থাকা মানে, ক্ষমতায় যে দল থাকবে, সেই দলের হয়েই সেই সব মিডিয়া কথা বলবে৷ কর্পোরেটের পক্ষে অসুবিধাজনক কোনো খবর দেখানো বা ছাপা হবে না, হলেও গুরুত্বহীনভাবে হবে৷

Goutam Hore

গৌতম হোড়, ডয়চে ভেলে

বছর কয়েক আগে দেশের অন্যতম প্রধান ইংরেজি টিভি চ্যানেল থেকে আমার বন্ধু অকাল অবসর নিল৷ ইনপুট এডিটরের গুরুত্বপূর্ণ পদ থেকে৷ কেন? বন্ধুর যুক্তি, ‘‘আর পারছিলাম না৷ মানসিক চাপ এতটাই প্রবল হচ্ছিল যে, তার প্রভাব শরীরের উপর পড়ছিল৷’’ কেমন মানসিক চাপ? বন্ধুর ব্যাখ্যা, ‘‘ফতোয়া ছিল, দিনের আসল খবর অসুবিধাজনক হলে দেয়া যাবে না৷ অন্য চাঞ্চল্যকর খবরের খোঁজ করতে হবে৷’’  দিনের পর দিন, মাসের পর মাস, বছরের পর বছর এই চাপ নেয়া তার পক্ষে সম্ভব হয়নি৷ তাই অবসর৷ এখন তার আর্থিক পরিস্থিতি খারাপ হয়েছে, কিন্তু মানসিক দিক দিয়ে পুরো চাঙ্গা৷

খবরের কাগজ বা চ্যানেল চালাতে প্রচুর অর্থ লাগে৷ আর সেই অর্থ আসে বিজ্ঞাপন থেকে৷ ১২ পাতার একটা রঙিন খবরের কাগজের প্রতিটি কপির জন্য অন্ততপক্ষে ছয়-সাত টাকা খরচ হয়৷ তা বিক্রি হয় চার টাকায়৷  হকারদের কমিশন বাদ দিয়ে হাতে থাকে দুই টাকা ২০ পয়সার মতো৷ ফলে ক্ষতি ছাপিয়ে লাভ করতে গেলে বিজ্ঞাপন চাই৷ ভারতে বেসরকারি বিজ্ঞাপন তো আছেই৷ আর আছে বিপুল পরিমাণে সরকারি বিজ্ঞাপন৷ কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারের বিজ্ঞাপন৷ অভিযোগ, যে সরকারের বিরুদ্ধে লেখালিখি হবে বা টিভিতে খবর হবে, সেই সরকার বিজ্ঞাপন বন্ধ করে দেয়৷ এটা না কি মোটামুটি সব সরকারের ক্ষেত্রেই সত্যি৷ রাহুল গান্ধী কেঁদে ভাসিয়ে দেন, কংগ্রেসের খবর টিভিতে দেখানো হয় না বলে৷ খবরের কাগজে ছাপা হয় না বলে৷ তিনি একটা সময় প্রতিটি সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ করতেন, বিজেপি ও কেন্দ্রীয় সরকারের চাপে না কি এই অবস্থা৷ তিনি স্লোগান দিলেন, ডরো মত৷

কিন্তু লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলের পর দেখা গেল,  তার স্লোগান এবং তিনি দুটোই  ভেসে গেছে৷ লক্ষীলাভের পিছনে না ছুটলে বাঁচবে কেমন করে? বাণিজ্যে বসত করে লক্ষ্মী৷ সেই বানিজ্য করতে গেলে সরকারি বিজ্ঞাপন দরকার৷ কর্পোরেটের স্বার্থ, রাজনৈতিক দলের স্বার্থ দেখা দরকার৷ এই চক্র থেকে মিডিয়ার বেরিয়ে আসা কঠিন, প্রায় অসম্ভব৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়