করোনা সংকটের সঙ্গী সংগীত আর ক্রিকেট আড্ডা লাইভ | বিষয় | DW | 31.07.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

করোনা সংকটের সঙ্গী সংগীত আর ক্রিকেট আড্ডা লাইভ

পৃথিবীটা আসলেই আমাদের হাতের মুঠোয় চলে এসেছে৷ এই মহামারির সময়ে সেটা আরও বেশি করে প্রমাণ হল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এত লাইভের হিড়িকের কারণে৷

আজ থেকে ১০ বছর আগের কথাই ভাবুন৷ তখন মহামারিহলে ফেসবুক, ইউটিউব, ইনস্ট্রাগ্রামে লাইভ কল্পনাই করতে পারতো না কেউ৷ জার্মানিতে যখন করোনার সংক্রমণ শুরু হয়, সেই মার্চ মাসে আমিও বাংলাদেশ ঘুরে জার্মানিতে ফিরেছি৷ বাসায় টেলিভিশন নেই৷ বাইরে বের হওয়ার প্রশ্নই ওঠে না৷ একেবারের ঘরবন্দি৷ ফলে বিনোদনের মাধ্যম নেটফ্লিক্স, আর মাঝে মাঝে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম
করোনা যখন শুরু হয় বাংলাদেশে তখন কেউ ভাবতেই পারেনি এত দীর্ঘ সময় ধরে সবাইকে ঘরে থাকতে হবে৷ তাই প্রথম মাসে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে তেমন লাইভের ছড়াছড়ি ছিলো না৷ তবে এপ্রিল মাস থেকে অনেক ধরনের লাইভ অনুষ্ঠান শুরু হল৷
এপ্রিলে শুরু হল আমার হোম অফিস৷ ১০ মাসের বাচ্চা সাথে নিয়ে হোম অফিস নিশ্চয়ই বুঝতে পারছেন অবস্থাটা কতটা ভয়াবহ৷ ফলে অফিস-ঘরের চাপ সামলে দিন শেষে মাথা হাল্কা করার জন্য যথারীতি মজার কিছু দেখার পরিকল্পনা নিয়ে বসতাম৷



করোনার আগে লাইভ স্ট্রিমে একটা জিনিসই দেখতাম আর তাহল ক্রিকেট৷ করোনার কারণে সেই ক্রিকেটও বন্ধ৷ আর এ কারণেই এপ্রিলে তামিম ইকবাল যখন ক্রিকেটারদের সঙ্গে লাইভ আড্ডায় মেতে উঠলেন, শুরু করলাম সেটা দেখা৷ তামিম যে উপস্থাপনায় এতটা স্বতঃস্ফূর্ত কল্পনাই করিনি৷ কেননা আমরা যারা উপস্থাপনার কাজটা গত বেশ কয়েক বছর ধরে করে আসছি, তারা জানি প্রথমদিকে কতটা ক্যামেরার সামনে সাবলীলভাবে কথা বলাটা মোটেও সহজ ছিলো না৷ সেক্ষেত্রে তামিমকে একশতে অবশ্যই ৯৮ দেয়া যেতে পারে৷ বেশ মজা লেগেছিল তার সঙ্গে অন্য দেশি-বিদেশি ক্রিকেটারদের লাইভ৷ অনেক ভেতরের খবর জানা গেছে এই লাইভগুলো থেকে৷ পাশাপাশি ছিলো মজার মজার গল্প৷ বিশেষ করে মাশরাফির সঙ্গে লাইভটি ছিলো দারুণ৷


এই প্রসঙ্গে বলে রাখা ভালো সাকিব আল হাসানের সঙ্গে করোনার সময়ে সর্বপ্রথম লাইভকরেছে ডয়চে ভেলে৷ খালেদ মুহিউদ্দীনের সঙ্গে তার খোলামেলা আলাপ শুধু আমার কেনো প্রত্যেক সাকিব ভক্তের কাছেই ভীষণ ভালো লেগেছিলো৷


এরপর হর্ষ ভোগলের লাইভ শোতেও সাকিবের কথা শুনেছি, কিন্তু সাকিব ততটা স্বত:স্ফূর্ত ছিলেন না সেখানে৷
আমার মন-মেজাজ খারাপ হলে ছোট ভাই কাজী সাবিরের ফেসবুক পোস্টে চোখ বুলিয়ে নিই৷ যদি কিছু না থাকে সাবিরকে বলি ‘একটা স্ট্যাটাস দে তো'৷ সেই সাবির খেলাধূলা নিয়ে অনেক টক শো, অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেছে৷ এবার করোনার দিনগুলোতে ও শুরু করেছে নারী-পুরুষ সব ক্রিকেটারদের নিয়ে লাইভ আড্ডার অনুষ্ঠান৷ ইউটিউবে লাইভ স্ট্রিমে, ফেসবুকে ‘ক্রিকফেঞ্জি' নামের চ্যানেলে ও এই লাইভ অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করে৷


যেখানে সাবির আছে সেখানে মজার কিছু হবে না, তা তো হতে পারে না৷ সে কারণে ওর অনুষ্ঠান সময় পেলেই দেখি৷ সাবিরের শ্বশুর আবার প্রয়াত প্রখাত অভিনেতা হুমায়ূন ফরিদী৷ মে মাসে এই শক্তিমান অভিনেতার ব্যবহৃত চশমা নিলামে ওঠে৷ অকশন ফর অ্যাকশানের উদ্যোগে সেটা লাইভে নিলাম হয়৷ চশমা বিক্রির অর্থ করোনা দুর্গত মানুষদের দেয়া হয়৷ সেই লাইভ অনুষ্ঠানে সাবির, ওর স্ত্রী দেবযানী এবং হুমায়ূন ফরিদীর সঙ্গে দীর্ঘদিন যারা অভিনয় করেছিলেন তারা তাদের মজার অভিজ্ঞতা জানাচ্ছিলেন৷ এই অনুষ্ঠানটি আমি দেখতে শুরু করেছিলাম সাবিরের জন্য৷ কিন্তু হুমায়ূন ফরিদী আসলে এমন একজন মজার ব্যক্তিত্ব ছিলেন যে পুরো অনুষ্ঠানটি দেখতে বাধ্য হলাম৷

HA Asien | Amrita Parvez (DW/P. Böll)

অমৃতা পারভেজ, ডয়চে ভেলে

আমি মূলত: সংগীতপ্রেমী একজন মানুষ৷ তাই করোনার এই সময়টাতে গানের অনুষ্ঠানই বেশি দেখা হয়েছে৷ বা বলা যায় মিউজিক নিয়ে যেকোন লাইভ অনুষ্ঠান৷ পণ্ডিত রবিশংকরের জন্ম শতবর্ষ উপলক্ষ্যে এবার বিশাল কনসার্টের আয়োজন বাতিল হয়ে গেছে করোনার কারণে৷ আর তাই তার দুই মেয়ে অনুষ্কা শংকর এবং নোরা জোন্সসহ বিশ্বের বিখ্যাত মিউজিশিয়ানরা লাইভে নিজেদের বাসায় বসে একসাথে পণ্ডিত রবিশংকরকে শ্রদ্ধা জানিয়েছিলেন৷ আমাদের মত সাধারণ সংগীত পিপাসুদের জন্য যা ছিলো একটি বড় পাওয়া৷


প্রথম আলো ও বাংলা লিংকের যৌথ উদ্যোগটিও প্রশংসার যোগ্য৷ ‘ঘরে বসে শোনাবো গান' এই নামে একটি অনুষ্ঠান শুরু করেছে তারা৷ বিভিন্ন শিল্পীরা বাসায় বসেই ১০-১২ মিনিট ধরে তাদের পছন্দের গান শোনাচ্ছেন৷
কিছুদিন আগে সংগীতশিল্পী শ্রীকান্ত আচার্য্য এবং তার ছেলে দু'জনে মিলে লাইভ করলেন৷ ছেলে বাদ্যযন্ত্র বাজালো, বাবা গাইলেন৷ অসাধারণ লেগেছিলো সেই লাইভ৷
করোনার এই সময়টাতেরূপালি পর্দার মানুষগুলোযেনো ঠিক কাছের মানুষ হয়ে উঠেছে৷ এই তো কিছুদিন আগে বলিউড তারকা বিদ্যা বালান আর যীশু সেনগুপ্তর ইনস্টাগ্রাম লাইভ দেখছিলাম৷ দু'জন বাসায় বসে কথা বলছেন, যেনো ঘরের মানুষ৷


আসলে করোনার এই করুণ সময়ে নিজেদের অবসাদমুক্ত রাখতে পারাটা খুব জরুরি৷ সেটা করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি হোক বা রোগমুক্ত কেউ, সেক্ষেত্রে হাসির বা মজার কিছু অথবা গানের লাইভ অনুষ্ঠানগুলোই পারে সবার মনকে নির্ভার রাখতে৷