করোনা ভ্যাকসিনের ভূরাজনীতি | আলাপ | DW | 08.01.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

করোনা ভ্যাকসিনের ভূরাজনীতি

করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন উদ্ভাবনে পরাশক্তিদের প্রতিযোগ আমাদের মনে করিয়ে দেয় ঠান্ডা লড়াইয়ের যুগের কথা৷ এর টিকাদান কর্মসূচি নিয়ে যে ভূরাজনীতি- তা ছড়িয়েছে ভারতীয় উপমহাদেশ অবধি৷

কোভিড নাইনটিনের টিকা আমদানি-রপ্তানি প্রক্রিয়ায় আগের শতকের একাত্তর সালের মেরুকরণ যেনবা কূটনীতির অঙ্গনে৷ বাংলাদেশের পাশে ভারত৷ পাকিস্তানের পাশে চীন৷ ঢাকা টিকা কিনছে দিল্লি থেকে আর ইসলামাবাদ বেইজিং থেকে৷ উপমহাদেশের কূটনীতির এই অর্ধ শতাব্দের চিত্র উল্টে দেয়ার মতোই ঘোষণা দিয়েছিলেন সেরাম ইনস্টিটিউটের প্রধান নির্বাহী আদর পুনাওয়ালা৷ ৩ জানুয়ারি রোববার তিনি বার্তাসংস্থা এপির কাছে বলেছিলেন, ভ্যাকসিন রপ্তানিতে ভারত নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে৷
এই খবরে বাংলাদেশে অনেকটা বিনামেঘে বজ্রপাত পরিস্থিতি তৈরি হয়৷ ফেসবুকের মতো সমাজমাধ্যমে ফেটে পড়ে ঢাকার সুশীল সমাজ৷ ভ্যাকসিন নিয়ে ভারতনির্ভরতা হয় প্রশ্নবিদ্ধ৷ আসে তিস্তার পানি, পেঁয়াজ আর ইলিশের মতো পণ্যে ঢাকা-দিল্লি-কলকাতার নানা টানাপড়েনের প্রসঙ্গ৷ এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছিল বাংলাদেশের সরকারের ভেতরেও৷ ৪ জানুয়ারি সোমবার জরুরি বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক৷ ‘সুসংবাদ আছে’- সেই বৈঠকেই জানান স্বাস্থ্য সচিব আবদুল মান্নান৷ তার দাবি ছিল, ঢাকার ভারতের উপ হাইকমিশনারের সঙ্গে কথা বলেছেন৷ এভাবে নিশ্চিত হয়েছেন ভারতের নিষেধাজ্ঞার আওতায় নেই বাংলাদেশ৷

এদিকে একই দিন বিকেলে দীর্ঘ সময় ধরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) নাজমুল হাসান পাপন, কেননা, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রেজেনেকার করোনা ভাইরাসের টিকা ভারতের সেরামের থেকে বাংলাদেশের হয়ে আমদানি করবে তারা৷ নাজমুল হাসান পাপনের ভাষ্যমতে, সরকারের অনুমোদন পেলে মাসখানেকের মধ্যে টিকা চলে আসবে৷

সেই ৪ জানুয়ারি সন্ধের মধ্যেই ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর অনাপত্তি সনদ (এনওসি) দিয়ে দেয় বেক্সিমকোকে৷ এতে ফেব্রুয়ারির শুরুর দিকেই আসবে টিকা- এ ব্যাপারে নিশ্চিত হতে আসলে তখনো পারছিল না বাংলাদেশি জনতা৷ কারণ, যেখানে দুই দেশের দুই প্রধানমন্ত্রীর তথা শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদীর সাম্প্রতিক ভার্চুয়াল বৈঠকে ভ্যাকসিন নিয়ে যুথবদ্ধ থাকার ইঙ্গিত দেয়া হয়, তারপর আবার আসে নিষেধাজ্ঞার বার্তা, সেখানে আশ্বস্ত হওয়া ছিল কঠিন ব্যাপার৷ অবশ্য পরদিন ৫ জানুয়ারি মঙ্গলবারই এসেছে আশাজাগানিয়া খবর৷ খোদ সেরামের সেই সিইও আদর পুনাওয়ালা টুইট মারফত জানিয়েছেন, ভারত থেকে তাদের টিকা রপ্তানির অনুমোদন বহাল৷

করোনার টিকাদান কর্মসূচি নিয়ে মঙ্গলবার ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় দিল্লিতে যে সংবাদ সম্মেলন করেছে, সেখানেও স্বাস্থ্য সচিব রাজেশ ভূষন নিশ্চিত করেছেন নিষেধাজ্ঞার কোনো বালাই নেই৷ দিল্লির টিকা ঢাকা পাবে- এ ভরসা আপাতত করাই যায়৷

তবু একমুখী টিকানীতি কতটা গ্রহণযোগ্য? যেখানে আগাম ঘোষণা ছাড়া পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয় ভারত৷ সীমানা পার হতে দেয় না গরু৷ বছর কয়েক আগে সব ঠিক থাকার পরও তিস্তার পানি বন্টন চুক্তি থেকে শেষ সময়ে সরে আসে দিল্লি৷ ভ্যাকসিনে ঢাকার জন্য বিকল্প পথ রাখা তাই প্রয়োজন ছিল৷ সেই পথ আসলে কী হতে পারে? সুদূর পশ্চিম থেকে আনলে খরচে কুলোবে না৷ আবহাওয়ার তারতম্যে টিকা সংরক্ষণেও জটিলতা তৈরি হতে পারে৷ তাই ইউরোপ-আমেরিকার দিকে যাচ্ছে না বাংলাদেশ৷ অন্যদিকে চীন বিভিন্ন সময় আসতে চেয়েছে এখানে৷ তাদের সিনোভ্যাক বায়োটেক বাংলাদেশে ভ্যাকসিন পরখ করতে চেয়েছিল৷ কিন্তু এর খরচ ঢাকা থেকেই জোগান দিতে হতো৷ তাই রাজি হয়নি সরকার৷

অবশ্য চীনেরই আরেক প্রতিষ্ঠান আনুই জিফেইয়ের দেয়া প্রস্তাব বিবেচনায় রাখছে সরকার৷ নিজস্ব খরচেই এই প্রতিষ্ঠান টিকার পরীক্ষা চালাতে চায়৷ ভারত ঝুলিয়ে দিলে চীন থেকে টিকা আহরণ ছাড়া বাংলাদেশের হাতে এখন পর্যন্ত দৃশ্যমান আর মাত্র একটি উপায়৷ সেটা দেশীয় প্রতিষ্ঠান গ্লোব বায়োটেকের বঙ্গভ্যাক্স৷ তবে এর জন্য আরো সময় দিতে হবে৷ কারণ, ৬ জানুয়ারি বুধবার মাত্রই তারা ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের জন্য ভ্যাকসিন  উৎপাদনের অনুমোদন পেয়েছে৷ বঙ্গভ্যাক্স চূড়ান্ত হতে আরো সময় লাগবে৷ এছাড়া বৈশ্বিক স্বাস্থ্য বিষয়ক দাতাগোষ্ঠীর জোট (বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ভ্যাকসিনস অ্যান্ড ইমিউনাইজেশনস বা গ্যাভি ও কোয়ালিশন ফর এপিডেমিক প্রিপেয়ার্ডনেস ইনোভেশনসের গড়া প্ল্যাটফর্ম কোভ্যাক্স) থেকে টিকা পাবে বাংলাদেশ৷ কিন্তু তার জন্য আরো অন্তত ছয় মাস অপেক্ষা করতে হবে৷ সে পর্যন্ত তাই তাকিয়ে থাকতে হবে ভারতের দিকে৷ নয়তো চীনের দিকে হাত বাড়ানোর সময় বা সামর্থ্য কোনোটা কী হবে বাংলাদেশের? হালের ভূরাজনীতি সে ইঙ্গিত দেয় না৷ কিন্তু রাজনীতিতে আবার শেষ কথা বলে তো কিছু নেই!

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন