করোনা ভাইরাস এবং বাংলাদেশ | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 23.03.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

করোনা ভাইরাস এবং বাংলাদেশ

বিশ্বজুড়ে এখন সবচেয়ে বড় আতঙ্কের নাম করোনা ভাইরাস। বাংলাদেশে গত ৮ মার্চ প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্তের ঘোষণা আসে। এখন পর্যন্ত আক্রান্ত ৩৩, মারা গেছেন তিন জন।

এছাড়া, কিশোরগঞ্জের ভৈরবে রোববার ইটালিফেরত এক ব্যক্তি করোনার লক্ষণ নিয়ে মারা গেছেন। তার নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। চীনের উহান থেকে সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়া এই ভাইরাস১৩ হাজার মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে, আক্রান্ত প্রায় দুই লাখ।

করোনা ভাইরাসের কোনো টিকা এখনো আবিষ্কার হয়নি; নেই কোনো চিকিৎসাও। বাঁচার একমাত্র উপায় আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শ এড়িয়ে চলা। এজন্য সব দেশ থেকে আসা জনগণকে বাড়িতে থাকতে বলা হচ্ছে। করোনা ভাইরাস বহন করতে পারেন এমন ব্যক্তিদের কোয়ারান্টিনে এবং শরীরে আক্রান্তের লক্ষণ দেখা দিলে আইসোলেশনে থাকতে বলা হচ্ছে।

করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় এখন পর্যন্ত কী কী করেছে বাংলাদেশ:

উহানফেরতদের কোয়ারান্টিনে:

চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের পর সেখান থেকে ফিরিয়ে আনা বাংলাদেশিদের বিমানবন্দরের কাছে আশকোনা হজক্যাম্পে ১৪ দিন কোয়ারান্টিনে রাখা হয়। তখন তারা হজক্যাম্পে নানা অসুবিধার কথা তুলে ধরেছিলেন।

বাকি বিদেশফেরতদের জন্য ব্যবস্থা নেই:

চীনের সীমানা ছাড়িয়ে করোনা ভাইরাস নানা দেশে ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে। কিন্তু চীন ছাড়া বাকি দেশ থেকে আসা মানুষজনদের বিমানবন্দরে থার্মাল স্ক্যানারে শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করেই ছেড়ে দেওয়া হয়। বিদেশ থেকে আসা লোকজনও শরীরের তাপমাত্রা স্বাভাবিক দেখাতে বিমানবন্দরে পৌঁছানোর আগে নানা ওষুধ খেয়ে নেন। তারপর হোম কোয়ারান্টিনে না থেকে তারা স্বাভাবিক চলাফেরা করেন।

৮ মার্চ প্রথম রোগী শনাক্তের ঘোষণা:

এদিন সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট-আইইডিসিআর থেকে তিনজনের করোনা ভাইরাস সংক্রমণ শনাক্তের ঘোষণা দেওয়া হয়। যাদের দুইজন ইটালিফেরত এবং তাদের একজনের মাধ্যমে আরেক নারী আক্রান্ত হয়েছেন। আইইডিসিআর থেকে হটলাইন চালু করা হয়

প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা: ৮ মার্চের পর প্রতিদিনই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকে।আক্রান্তরা বিদেশফেরত কারো সংস্পর্শে এসেছেন।

প্রথম মৃত্যু:

গত ১৯ মার্চ সত্তরোর্ধ্ব এক ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান। তিনি অ্যামেরিকা প্রবাসী একজনের সংস্পর্শে এসেছিলেন। কয়েক দিন পরে আরো একজন

সত্তরোর্ধ্ব ব্যক্তি মারা যান, যিনি বিদেশি কারো সংস্পর্শে আসেননি বলে দাবি তার স্বজনদের।

তবে কি সামাজিক সংক্রমণ শুরু হয়ে গেছে: ঢাকার টোলারবাগে ২১ মার্চ মারা যাওয়া বৃদ্ধের ঘনিষ্ঠজন আরেক বৃদ্ধ পরদিন মারা গেছেন। তিনি করোনা আক্রান্ত ছিলেন বলে পুলিশ নিশ্চিত করেছে। এদিকে টোলারবাগের বৃদ্ধকে জরুরি চিকি‍ৎসা দেওয়া একজন চিকিৎসক করোনা পজেটিভ হয়েছেন। বৃদ্ধকে চিকিৎসা দেয়া আরো তিন চিকিৎসক, ১২ জন নার্স ও তিন হাসপাতালকর্মী হোম কোয়ারান্টিনে আছেন। অসুস্থ বোধ করায় হাসপাতালটির পরিচালক নিজেও হোম কোয়ারান্টিনে। বৃদ্ধের সংস্পর্শে এসেছেন এলাকার আরো কয়েকজন অসুস্থ বলে সংবাদমাধ্যমে খবর এসেছে।

সরকারের উদ্যোগ:

করোনার কারণে মুজিব শতবর্ষের অনুষ্ঠান আগেই বাতিল করা হয়েছে।বন্ধ করে দেয়া হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। জনগণকে বিনা প্রয়োজনে ঘর থেকে বের না হওয়ার এবং পরিচ্ছন্নতার বিধি মেনে চলার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। বিদেশফেরতদের ১৪ দিন বাধ্যতামূলক হোম কোয়ারান্টিনে থাকার নির্দেশ দিয়েছে সরকার। না হলে জরিমানার ব্যবস্থা আছে। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম তার ফেসবুক আইডিতে রোববার ঠিক মত হোম কোয়ারান্টিনে না থাকলে পাসপোর্ট জব্দের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।

সেনাবাহিনীর দায়িত্বে বিদেশফেরতদের কোয়ারান্টিন:

ইটালিতে করোনা সংক্রমণ মারাত্মকভাবে ছড়িয়ে পড়ায় দলে দলে প্রবাসী দেশে ফিরতে শুরু করেন। কোয়ারান্টিনে যাওয়া নিয়ে ইটালি প্রবাসীদের সঙ্গে কর্তৃপক্ষের বাকবিতণ্ডা ও ভাংচুরের পর আশকোনা হজক্যাম্প এবং উত্তরা দিয়াবাড়ির রাজউকের ফ্ল্যাট প্রকল্প এলাকার কোয়ারান্টিনের দায়িত্ব সেনাবাহিনীর হাতে দেয়া হয়। বিমানবন্দরে প্রয়োজনীয় পরীক্ষার পর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যাদের কোয়ারান্টিনে পাঠাবে তাদের সেনাবাহিনীর হাতে তুলে দেওয়া হবে।

২৫ মার্চ ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী:

দেশজুড়ে করোনা ভাইরাস আতঙ্কের মধ্যে আগামী ২৫ মার্চ জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসের সব অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে।

নতুন পাসপোর্ট আবেদন নেওয়া বন্ধ:

বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে আঙুলের ছাপ নিতে হয় বিধায় করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি বিবেচনায় বাংলাদেশে নতুন পাসপোর্টের আবেদন গ্রহণ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে যেহেতু আঙুলের ছাপের প্রয়োজন নাই তাই পাসপোর্ট রি-ইস্যু বা সংশোধন কাজ অব্যাহত থাকবে।

রোগ শনাক্তে অপর্যাপ্ততা, নেই পিপিই:

একমাত্র আইইডিসিআর ছাড়া বাংলাদেশে আর কোথাও করোনা ভাইরাস সংক্রমণ পরীক্ষা করা যায় না। এমনকি হাসপাতালে চিকিৎসাকর্মীদের নিরাপত্তার জন্য জরুরি পার্সোনাল প্রোটেক্টিভ ইকুইপমেন্ট-পিপিই নেই। এ অবস্থায় দেশের হাসপাতালগুলোতে আতঙ্ক বিরাজ করছে। জ্বর, নিউমোনিয়া বা শ্বাসকষ্টের লক্ষণ

নিয়ে কোনো রোগী এলে তাদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে না। এতে যেমন বিনা চিকিৎসায় রোগীমৃত্যুর ঘটনা ঘটছে, তেমন না জেনে করোনা আক্রান্ত রোগীকে সেবা দিতে গিয়ে চিকিৎসরা করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হচ্ছেন।

গুজব ও আতঙ্ক:

করোনা ভাইরাস নিয়ে শুধু বাংলাদেশ নয় বরং পুরো বিশ্ব আজ গুজব আর আতঙ্কে আক্রান্ত। গুজবে বিশ্বাস করে একদিকে রাতের অন্ধকারে মানুষ থানকুনি পাতা খুঁজে খাচ্ছে, অন্য দিকে গোমূত্র খেয়ে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। আতঙ্কে মানুষ বাজার খালি করে পণ্য কিনে বাড়িতে মজুদ করছে। এর সুযোগে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী পণ্যে দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন। বিপাকে পড়েছে নিম্ন আয়ের মানুষ।

কয়েকটি এলাকা লকডাউন:

করোনা ভাইরাসে মৃত্যুর পর রাজধানীর টোলারবাগ এলাকার ৪০টি বাড়ি লকডাউন করে দেয়া হয়েছে। ওই এলাকার বাকি বাসিন্দারা স্বেচ্ছায় হোম কোয়ারান্টিনে আছেন। এছাড়া ১৯ মার্চ বিকাল থেকে মাদারীপুরের শিবচর লকডাউন ঘোষণা করা হয়। আরো কয়েকটি এলাকা লকডাউন করার খবর পাওয়া গেছে।

গণস্বাস্থ্যের আবিষ্কার:

‘গণস্বাস্থ্য র‌্যাপিড ডট ব্লট' নামে করোনা ভাইরাস শনাক্তের একটি টেস্ট কিট আবিষ্কারের ঘোষণা দিয়েছে গণস্বাস্থ্য। যেটির দাম রাখা হবে ২০০ টাকা। আগামী তিন সপ্তাহের মধ্যে নতুন কিট বাজারে সরবরাহ করতে পারবেন বলে জানিয়েছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রধান ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

এসএনএল/কেএম

বিজ্ঞাপন