করোনা আতঙ্কে ভারতে আত্মহত্যা | বিশ্ব | DW | 13.02.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

করোনা আতঙ্কে ভারতে আত্মহত্যা

করোনা ভাইরাসের প্রভাবে আরও ২৪২ জনের মৃত্যু হল চীনে। আক্রান্ত বহু। এ দিকে ভারতে আতঙ্কে আত্মহত্যা করলেন এক ব্যক্তি।

করোনা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্কের জেরে এ বার আত্মহত্যা করলেন ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের এক মধ্যবয়স্ক ব্যক্তি। ঘটনায় শোকস্তব্ধ তাঁর পরিবার। অন্য দিকে, মস্কোয় মেট্রোতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের অভিনয় করে গ্রেপ্তার এক প্র্যাঙ্কস্টার। দোষী প্রমাণিত হলে ৫ বছর পর্যন্ত হাজতবাস করতে হবে তাকে। এ দিকে চীনের পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ। করোনা ভাইরাসে এখনও পর্যন্ত এক দিনে সব চেয়ে বেশি মৃত্যুর ঘটনা ঘটল বুধবার। মারা গিয়েছেন ২৪২ জন। সব মিলিয়ে এখনও পর্যন্ত মৃত্যুর সংখ্যা ১৩৫০। শুধু বুধবারই নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ১৫হাজার মানুষ।

ভিডিও দেখুন 02:24

করোনা সামলাতে এবার রোবট

অন্ধ্র প্রদেশের চিত্তুর জেলার বাসিন্দা ছিলেন পঞ্চাশ বছরের বালাকৃষ্ণ। গত সপ্তাহে প্রবল সর্দি-কাশি নিয়ে তিরুপতির একটি হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। দিন কয়েক হাসপাতালে থাকার পরে তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়। চিকিৎসকেরা জানান, ভাইরাস সংক্রমণের জেরেই তাঁর জ্বর হয়েছিল। ওষুধে সেরে যাবে। ডয়চে ভেলেকে তাঁর পরিবার জানিয়েছে, হাসপাতালে বসেই উচ্চ রক্তচাপের রোগী বালাকৃষ্ণ বলতে শুরু করেন তাঁর শরীরে করোনা ভাইরাসের জীবাণু ঢুকেছে। বহু বোঝানো সত্ত্বেও তিনি বুঝতে চাননি। বাড়ি ফিরে নিজেকে সকলের থেকে আলাদা করে নেন তিনি। কাছে যাওয়ার চেষ্টা করলে পাথর ছুড়তে থাকেন। দিন কয়েক এ ভাবে চলার পরে গত সোমবার বাড়ির অনতিদূরে একটি গাছে গলায় দড়ি দিয়ে ঝুলতে দেখা যায় তাঁকে। সেই গাছের পাশেই তাঁর মায়ের সমাধি।

বালাকৃষ্ণের পরিবার জানিয়েছে, বরাবরই উচ্চ রক্তচাপের রোগী ছিলেন বালাকৃষ্ণ। যে কোনও বিষয় নিয়ে আতঙ্কিত হয়ে পড়তেন। করোনা ভাইরাসের খবর দেখার পর থেকেই তিনি আতঙ্কিত হয়ে ছিলেন। পরিবারকে তিনি বলতেন, কোনও ভাবেই তাঁর থেকে বাকি গ্রামে ভাইরাস ছড়াতে তিনি দেবেন না। গ্রামকে বাঁচানোর জন্য আত্মহত্যা করতেও তিনি প্রস্তুত। শেষ পর্যন্ত সে কাজই করেছেন তিনি।

বুধবার বিকেলের পরে বালাকৃষ্ণের ঘটনা সকলের গোচরে আসে। অন্ধ্র প্রশাসনের তরফ থেকে একটি বিবৃতিও প্রকাশ করা হয়েছে। যাতে বলা হয়েছে, করোনানিয়ে আতঙ্কের কোনও কারণ নেই। কেউ যেন তা নিয়ে প্যানিক না করেন।

তবে প্যানিক কেবল ভারতে নয়। করোনা আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে গোটা বিশ্বেই। আর তা নিয়ে অসৎ কাজ করতে শুরু করেছে একটি শ্রেণি। রাশিয়ার রাজধানী মস্কোর মেট্রোয় এক তরুণ দিন কয়েক আগে করোনা আক্রান্তের অভিনয় করে। ভরা মেট্রোয় আচমকাই সে পড়ে যায়। সোশ্যাল মিডিয়ায় সেই ছবি ভাইরাল হয়ে যায়। পরে জানা যায়, ওই তরুণ অভিনয় করছিল। পুলিশ সূত্রে জানানো হয়েছে, ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। দোষ প্রমাণিত হলে তার ৫ বছরের জেল হওয়ার কথা।

এ দিকে চীনের অবস্থা তথৈবচ। বুধবার করোনায় মৃত্যু হয়েছে ২৪২ জনের। হুবেই প্রদেশ কার্যত শ্মশানের চেহারা নিয়েছে। চলছে মৃত্যু মিছিল। এখনও পর্যন্ত এক দিনে সব চেয়ে বেশি করোনা আক্রান্তের খবরও মিলেছে বুধবার। নতুন করে প্রায় ১৫ হাজার মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। চীনের অন্যান্য প্রদেশ থেকেও আক্রান্তের খবর মিলছে। চীনের স্বাস্থ্য দফতরের হিসেব, এখনও পর্যন্ত সব মিলিয়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৬০ হাজার পেরিয়ে গিয়েছে। এরই মধ্যে বুধবার হুবেইয়ের কমিউনিস্ট পার্টির সম্পাদক হিয়াং শাওলিয়াংকে সরিয়ে দিয়েছে কেন্দ্রীয় কমিটি। চীনের সরকারি সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, সরানো হয়েছে উহানে দলের প্রধানকেও। করোনা ভাইরাস ছড়ানোর পরে এই প্রথম চীনের দলীয় স্তরে কোনও পরিবর্তন হল। প্রশাসনিক স্তরে অবশ্য দিন কয়েক আগেই পরিবর্তন হয়েছে। বেশ কিছু সরকারি স্বাস্থ্য আধিকারিককে কাজ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

অন্য দিকে জার্মানিতে এখনও পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১৬। বুধবার জার্মান স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইউরোপীয় পার্লামেন্টের কাছে এই খাতে অর্থ বরাদ্দের দাবি জানিয়েছেন। তাঁর বক্তব্য, করোনার সঙ্গে লড়াইয়ের জন্য সকলকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। তার জন্য অর্থ বরাদ্দ জরুরি।

এসজি/জিএইচ (এএফপি, ইন্ডিয়া টিভি, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন