করোনায় সিদ্ধান্ত নেন আমলারা, চিকিৎসকরা সাইড লাইনে | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 12.06.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

করোনায় সিদ্ধান্ত নেন আমলারা, চিকিৎসকরা সাইড লাইনে

করোনা প্রতিরোধ ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশে চিকিৎসকদের গুরুত্ব নেই৷ গুরুত্বপূর্ণ হলেন আমলারা৷

করোনা প্রতিরোধ ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশে চিকিৎসকদের গুরুত্ব নেই (Reuters/M.P. Hossain)

পরীক্ষার জন্য ঢাকার একটি টেস্টিং সেন্টারের সামনে মানুষের অপেক্ষা৷

বাংলাদেশে শুরু থেকেই করোনা চিকিৎসা এবং স্বাস্থ্য ব্যবস্থা নিয়ে কোনো ‘এপিডেমিক প্রজেকশন মডেল’ তৈরি করা হয়নি৷ ফলে জানা নেই কত আক্রান্ত হতে পারে, কতগুলো হাসাপতাল লাগবে, কত বেড লাগবে, কতগুলো আইসিইউ বেড লাগবে, লাগবে কতগুলো টেস্টিং সেন্টার৷

সাধারণ ছুটি দিয়ে কী হবে, কোথায় লকডাউন লাগবে, কেন লাগবে তাও বৈজ্ঞানিকভাবে ঠিক করা হয়নি৷ ফলে করোনার বিরুদ্ধে সামনে থেকে বাংলাদেশ কোনো প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে তুলতে পারেনি৷ তাই এখন করোনার পেছনে দৌড়াচ্ছে বাংলাদেশ৷

সাধারণ ছুটির নামে প্রায় দুই মাস বাংলাদেশে নানা পরীক্ষা চলেছে৷ পোশাক শ্রমিকদের একবার বাড়ি পাঠানো হয়েছে আবার ঢাকায় আনা হয়েছে৷ তখন গণপরিবহন আবার বন্ধ ছিল৷ ২৬ মার্চ থেকে সাধারণ ছুটি বাড়িয়ে বাড়িয়ে ৩০ মে পর্যন্ত চালানো হয়েছে৷ এরপর সব কিছু খুলে দেয়া হলো৷ বলা হলো সীমিত পরিসরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সব কিছু চলবে৷ আগেই ঈদে বাংলাদেশের সব দোকানপাট, শপিংমল খুলে দেয়া হলো৷ এখন সারাদেশে সব কিছু খোলা৷ লঞ্চে, গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্বের কথা বলা হলেও বাস্তবে তার কোনো বালাই নেই৷

আর সবশেষ শুরু হয়েছে জোনিং পদ্ধতি৷ পুরো বাংলাদেশকে লাল, হলুদ আর সবুজ রঙে ভাগ করা হয়েছে৷ লাখে ৩০-এর বেশি আক্রান্ত হলে লাল, ৩০-এর কম হলে হলুদ আর করোনা রোগী না থাকলে সবুজ৷ রেড জোন লকডাউন শুরু হয়েছে পরীক্ষামূলকভাবে৷ তাও একটি এলাকা, ঢাকার পূর্ব রাজাবাজার ২৭ নাম্বার ওয়ার্ড দিয়ে৷
করোনায় প্রায় ৩ মাস পর এক হাজারের বেশি মৃত্যু আর প্রায় ৮০ হাজার আক্রান্ত নিয়ে বাংলাদেশ এখনো পরীক্ষা-নিরীক্ষার মধ্যে আছে৷

অডিও শুনুন 07:12

‘নেতৃত্ব দেয়ার কথা জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এবং সংক্রামক রোগতত্ত্ববিদদের’

কত কমিটি, কাজ কী?
কোভিড-১৯ নিয়ে ‘ন্যাশনাল কমিটি ফর প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোল অব কোভিড’-এর প্রধান স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক৷ করোনা নিয়ে এটিই সর্বোচ্চ কমিটি৷ পোশাক কারখানা চালু করা, মসজিদ খুলে দেয়া, সাধারণ ছুটি বাতিল করাসহ আরো অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত তাকে ছাড়াই হয়েছে বলে তার দাবি৷ সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বারবার বলেছেন, ‘‘আমি জানি না৷’’ তাই স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠেছে জানেন কে? সিদ্ধান্ত কারা নেন?

এই সর্বোচচ জাতীয় কমিটির সদস্য সংখ্যা ২৬ জন৷ কমিটিতে প্রথম ২০ জনের মধ্যে কোনো চিকিৎসক নেই৷ 

আরেকটি কমিটির নাম ‘ন্যাশনাল কো-অর্ডিনেশন কমিটি ফর প্রিভেনশন অ্যান্ড কন্ট্রোল অব কোভিড-১৯’ ৷ কমিটির প্রধান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক৷ কমিটির উপদেষ্টা মেডিসিন বিশেষজ্ঞ এবং প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ৷ তিনি বলেন, ‘‘আমাকে তো কখনোই মিটিংয়ে ডাকেনি৷ নাম দিয়ে রেখেছে৷ এই কমিটির কোনো কাজ আছে বলে আমার মনে হয় না৷ আর স্বাস্থ্যমন্ত্রী অনেক সিদ্ধান্ত কেন জানেন না তা তিনিই ভালো বলতে পারবেন৷’’

এরকম মোট ৯টি কমিটি আছে৷ তার মধ্যে জাতীয় টেকনিক্যাল পরামর্শক কমিটির প্রধান হলেন বিএমডিসির প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ৷ তিনি একজন শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ৷ এই কমিটির পরমর্শও মানা হচ্ছে না বলে অভিযোগ রয়েছে৷ তারা ৩১ মে থেকে সাধারণ ছুটি বাতিল করে সব কিছু খুলে দেয়ার বিরোধিতা করেছিলেন৷ তারা জোনিংয়ের প্রস্তাবও আগেই দিয়েছিলেন৷ আর এখন যে পরীক্ষমূলক জোনিং করা হচ্ছে তারা এটাকে বড় এলাকা ধরে করার পক্ষে৷ কিন্তু তা হচ্ছে না৷

নেতা-নেত্রীদের তুষ্ট করা?

গণস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এবং প্রিভেন্টিভ মেডিসিনের চিকিৎসক ড. লেনিন চৌধুরী বলেন, ‘‘কোভিড প্রতিরোধ ব্যবস্থায় নেতৃত্ব দেয়ার কথা জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এবং সংক্রামক রোগতত্ত্ববিদদের৷ আর আগেই ‘এপিডেমিক প্রজেকশন মডেল' তৈরি করা অত্যাবশ্যক ছিল৷ কিন্তু তা হয়নি৷ জাতীয় টেকনিক্যাল পরামর্শক কমিটির প্রধান একজন শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ৷ কোনো এলাকা লকডাউন হয় প্রশাসনিক সিদ্ধান্তে৷’’

ফলে যা হওয়ার তাই হয়েছে৷ আইইডিসিআর মাত্র  দুই হাজার টেস্টিং কিট এবং দিনে একশ'রও কম পরীক্ষা করে ফেব্রুয়ারি মাসে বলল আমরা করোনা মোকাবেলায় প্রস্তুত৷ কিন্তু করোনা প্রতিরোধের মূল কথা হলো কন্ট্যাক্ট ট্রেসিং, টেস্টিং এন্ড ট্রিটমেন্ট৷ আসলে নেতা-নেত্রী তুষ্ট করা ছাড়া করোনার জন্য কার্যকর কোনো কাজ হয়নি বলে মনে করেন তিনি৷

বাংলাদেশে প্রথম করোনা শনাক্ত হয় ৮ মার্চ৷ আর করোনায় প্রথম মৃত্যু হয় ১৮ মার্চ৷ ২৬ মার্চ যখন সাধারণ ছুটি শুরু হওয়ার আগের দিন ২৫ মার্চ পর্যন্ত মোট করোনা আক্রান্ত ছিলেন ৩৯ জন, মারা গেছেন পাঁচ জন৷

অডিও শুনুন 06:02

‘তারা মনে করেছেন, উহানের চেয়ে তাদের জ্ঞান বেশি’

কাণ্ডজ্ঞানহীন কাজ

কোনো কোনো চিকিৎসক নেতা প্রকাশ্যেই টেলিভিশন টকশো-তে বলেছেন, বাংলাদেশে করোনা আসাবে না৷ রাজনৈতিক নেতা বলেছেন, চীনের চেয়েও আমরা দ্রুত হাসপাতাল বানাতে পারি৷ আবার কেউ বলেছেন, আমরা করোনার চেয়ে বেশি শক্তিশালী৷ কিছু ধর্মীয় বক্তা বলেছেন, করোনা বাংলাদেশের মুসলমানদের আক্রমণ করবে না৷

করোনা প্রতিরোধে সার্বিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনার দিকে না গিয়ে জোর দেয়া হয়েছে বিভিন্ন পেশার মানুষের আলাদা আলাদা হাসপাতালে চিকিৎসার৷ ভিআইপিদের চিকিৎসার জন্য আলাদা হাসাপতালের প্রস্তাবও করা হয়েছিল৷ আর করোনায় আক্রান্ত হলে বিশেষ কয়েকটি পেশার মানুষকে আর্থিক প্রণোদনার ঘোষণা এক ধরনের অসাম্য তৈরি করে৷

উহান থেকে শিক্ষা না নেয়া

বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী বলেন, ‘‘আমি জানি না বললেই স্বাস্থ্যমন্ত্রী দায় এড়াতে পারেননা৷ আসলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কোনো প্রস্তুতিই নেয়নি সময়মতো৷ তারা হয়ত করোনা মহামারিকে বুঝতেই সক্ষম ছিলেন না৷ যদি বুঝতে পারতেন তাহলে ডিসি, এসপি লকডাউন করেন কিভাবে? তারা কি এটার মানে এবং উদ্দেশ্য বোঝেন? কোভিড নিয়ে চরম সমন্বয়হীনতার কারণেই এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে৷’’

‘‘উহান থেকে তারা আদৌ কোনো শিক্ষা নেয়নি৷ তারা মনে করেছেন, উহানের চেয়ে তাদের জ্ঞান বেশি’’, বললেন এই চিকিৎসক নেতা৷

প্রিয় পাঠক, আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন