করোনায় ভয়াবহ পরোক্ষ মৃত্যু | আলাপ | DW | 25.12.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

করোনায় ভয়াবহ পরোক্ষ মৃত্যু

বছর শেষ হতে এখনও এক সপ্তাহ বাকি, কিন্তু এরই মধ্যে পাওয়া তথ্য-উপাত্তে জানা যাচ্ছে, গত এক দশকের গড় মৃত্যুর চেয়ে ২০২০ অনেক বেশি প্রাণঘাতি৷ এর জন্য প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে দায়ী করোনা৷

করোনা পরোক্ষ যে প্রভাব ফেলছে, তাতেও মৃত্যু কম ঘটেনি৷

করোনা পরোক্ষ যে প্রভাব ফেলছে, তাতেও মৃত্যু কম ঘটেনি৷

করোনার প্রত্যক্ষ দায়টা বোঝাই যাচ্ছে৷ করোনা বয়স্কদের সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত করে৷ যাদের হৃদরোগ, ডায়াবেটিস বা অন্য জটিল রোগ রয়েছে, তারাও করোনার প্রথম শিকার৷ কিন্তু করোনা পরোক্ষ যে প্রভাব ফেলছে, তাতেও মৃত্যু কম ঘটেনি৷

বর্ণভেদে মৃত্যুহারেও তফাত

করোনায় কে কেমন ক্ষতির শিকার হয়েছেন, তার সঙ্গে ওতোপ্রতভাবে জড়িত অর্থনীতি৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কথাই ধরা যাক৷ দেশটিতে এবার গত পাঁচ বছরের গড়ের তুলনায় তিন লাখ বেশি মৃত্যুর আশঙ্কা করা হচ্ছে৷ এর বড় একটা অংশের জন্যই করোনা ভাইরাস দায়ী৷

কিন্তু এই দেশটিতেও করোনা সবাইকে সমানভাবে আক্রান্ত করেনি৷ বয়স্করা বেশি ঝুঁকিতে থাকলেও দেশটির একেক জাতির মানুষের ওপর এর প্রভাব পড়েছে একেকরকম৷

মার্কিন সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল জানাচ্ছে, শ্বেতাঙ্গদের তুলনায় ল্যাটিনো এবং কৃষ্ণাঙ্গদের করোনায় মৃত্যু হয়েছে দুই দশমিক আট গুণ বেশি৷ অ্যামেরিকান ইন্ডিয়ান ও আলাস্কান নেটিভদের মধ্যে মৃত্যু দুই দশমিক ছয় গুণ বেশি, এশিয়ানদের ক্ষেত্রে এটি এক দশমিক এক গুণ বেশি৷

এর কারণ কী! যদিও এখনও এ নিয়ে পর্যাপ্ত গবেষণা হয়নি, বিশেষজ্ঞরা প্রাথমিকভাবে তিনটি কারণকে চিহ্নিত করেছেন৷ প্রথমত, ল্যাটিনো, কৃষ্ণাঙ্গ এবং এশিয়ানদের বেশিরভাগই অ্যামেরিকায় ছোটখাট কাজের সঙ্গে জড়িত৷ ফলে আয় সীমিত হওয়ায় খরচ বাঁচাতে নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষাও অনেকেই করান না৷ ফলে আগে থেকেই অনেকের শরীরে নানা জটিল রোগ বাসা বেঁধে থাকতে পারে৷ এমনকি অনেকেই করোনার লক্ষণ দেখা দিলেও কাজ হারানো এবং চিকিৎসা খরচের ভয়ে তা লুকিয়ে রেখেছেন বলেও নানা সময়ে জানা গেছে৷

দ্বিতীয়ত, অর্থনৈতিকভাবে কম স্বচ্ছল হওয়ায় তারা অনেকেই গাদাগাদি করে এবং তুলনামূলক অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বাস করেন৷ ফলে করোনায় সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকিও অন্যদের তুলনায় তাদের বেশিই থাকে৷
দ্বিতীয়ত, জরুরি সেবা হিসেবে যেসব কাজকে চিহ্নিত করা হয় সেগুলোতে বেশিরভাগই অশ্বেতাঙ্গ মানুষকে চাকরি করতে দেখা যায়৷ ফলে বাসা বা কর্মক্ষেত্রের বাইরে বেশি বের হওয়ার ফলে ভাইরাসের বেশি ঝুঁকিতেও ছিলেন কৃষ্ণাঙ্গ ও ল্যাটিনোরা৷

ভবিষ্যতে বিস্তারিত গবেষণায় হয়তো আমরা আরো তথ্য জানতে পারবো৷

অর্থনীতি, মানসিক স্বাস্থ্য ও আত্মহত্যা

করোনার ফলে বিশ্বজুড়ে মানসিক স্বাস্থ্যে পড়েছে ব্যাপক প্রভাব৷ একদিকে লকডাউনের ফলে অনেকে চাকরি হারিয়েছে, ব্যবসা বন্ধ হয়ে গেছে৷ অন্যদিকে স্কুল-কলেজ বন্ধ, বাসা থেকে বের হওয়ায় নিষেধাজ্ঞার কারণে, মানুষের মধ্যে বিষণ্ণতা বেড়েছে কয়েকগুণ৷ পাশাপাশি বেড়েছে পারিবারিক সহিংসতার ঘটনাও৷

উদাহরণ হিসেবে জাপানের দিকে তাকানো যায়৷ দেশটিতে কেবল অক্টোবরে যে পরিমাণ মানুষ আত্মহত্যা করেছেন, পুরো বছরে তত মানুষ করোনাতে মারা যাননি৷ কেবল অক্টোবরেই দেশটির সরকারি পরিসংখ্যান ২,১৫৩ জনের আত্মহত্যার তথ্য জানাচ্ছে৷ নভেম্বর পর্যন্ত করোনায় মৃত্যু ছিল দুই হাজারের একটু বেশি৷

অনুপম দেব কানুনজ্ঞ, ডয়চে ভেলে

অনুপম দেব কানুনজ্ঞ, ডয়চে ভেলে

এ ধরনের পরিসংখ্যান এতো দ্রুত বেশিরভাগ দেশই আপডেট করে না৷ ফলে সার্বিক চিত্র জানা সম্ভব হয় না৷ কিন্তু বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা শুরু থেকেই করোনার মানসিক প্রভাব নিয়ে সবাইকে সতর্ক করে আসছে৷ ফলে জাপানের এই উদাহরণ দিয়ে অন্যান্য দেশের অবস্থাও অনেকটাই বোঝা সম্ভব৷

জাপানে এমনিতেও আত্মহত্যার হার অন্য অনেক দেশের চেয়ে বেশি৷ দীর্ঘ কর্মঘণ্টা, স্কুলে পড়াশোনার চাপ, সামাজিক একাকিত্ব এবং সাংস্কৃতিক চাপ ইত্যাদি নানা কারণকে অতিরিক্ত মানসিক চাপের কারণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়৷

কিন্তু সরকারের ব্যাপক উদ্যোগের ফলে গত ১০ বছর ধরে এই হার ধীরে ধীরে কমছিলো৷ করোনার ফলে আবার তা বাড়তে শুরু করায় দেশটির সরকারও ব্যাপক উদ্বিগ্ন৷

এখানেও মূল কারণটা অর্থনৈতিক৷ দীর্ঘদিন অনেকে পরিশ্রম করে দারিদ্র্য থেকে উঠে এসেছিলেন৷ কিন্তু করোনার ফলে হোটেল, রেস্টুরেন্ট, পর্যটনের মতো ক্ষেত্রেগুলো বাধাগ্রস্ত হওয়ায় অনেকেই আবার দারিদ্র্যে ফিরে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন৷ এসব কাজে নারীদের পার্টটাইম চাকরি বেশি হওয়ায় নারীদের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতাও বেশি দেখা গেছে৷

নারীর প্রতি সহিংসতা

করোনা মহামারি শুরুর পর থেকেই জাতিসংঘ হুঁশিয়ার করে আসছে নারীর প্রতি সহিংসতা বিষয়ে৷ অর্থনৈতিক চাপ, মানসিক স্বাস্থ্য, সব মিলিয়ে পরিবারগুলোতে নারীরাই হয়েছেন করোনার প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ শিকার৷ বাড়তে থাকা এই সহিংসতাকে ইউএনওমেন শ্যাডো প্যানডেমিক বা ছায়া মহামারি হিসেবেও বর্ণনা করেছে

কেবল এশিয়া-আফ্রিকার দরিদ্র দেশ নয়, ইউরোপ-অ্যামেরিকা-অস্ট্রেলিয়ার মত শক্তিশালী অর্থনীতির দেশেও ২০২০ সালে ভয়াবহ আকারে বেড়েছে নারীর প্রতি সহিংসতা৷ ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম বলছে, প্রতি ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে ছয় জন নারী তার পার্টনার বা পরিবারের সদস্যের হাতে খুন হন৷ যুক্তরাজ্যে প্রতি তিন দিনে একজন নারী খুন হচ্ছেন পরিবারের সদস্যদের হাতে৷

করোনা শুরু আগেই এ পরিস্থিতি ছিল ভয়াবহ৷ করোনার ফলে তা আরো খারাপের দিকে যাচ্ছে৷

এছাড়া শিক্ষা ও সংস্কৃতিতে করোনা যে প্রভাব ফেলছে, তাতে শিশু ও তরুণরা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন বলেও নানা সময়েই জানিয়েছে জাতিসংঘসহ অন্য আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো৷ অর্থনীতির ধাক্কা দ্রুত কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হলেও শিক্ষা ও সংস্কৃতিতে করোনার ধাক্কা একটি প্রজন্মকেই হুমকিতে ফেলবে, এমন আশঙ্কা তো থাকছেই৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন