করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত গন্ধের অনুভূতি ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টা | অন্বেষণ | DW | 20.04.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত গন্ধের অনুভূতি ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টা

গন্ধ ছাড়া খাবারের স্বাদ যে পাওয়া যায় না, সর্দি-কাশি-জ্বরের সময় অনেকেই সেটা হাড়ে হাড়ে টের পায়৷ করোনা সংক্রমণের কারণেও গন্ধের অনুভূতি সাময়িক অথবা দীর্ঘমেয়াদী ভিত্তিতে লোপ পেতে পারে৷

কারেন ও হাইনার রেসে পেঁয়াজসহ রুটির মধ্যে মাছভাজা খেতে ভালবাসেন৷ তবে খাবারের স্বাদ যতই ভালো হোক না কেন, কোভিড ১৯ সংক্রমণের পর থেকে তাঁদের জিবে আর কোনো স্বাদ নেই৷

এখনো পর্যন্ত গবেষণা চালিয়ে জানা গেছে যে স্বাদের অনুভূতির সঙ্গে এমন অভিজ্ঞতার কোনো সম্পর্ক নেই৷ করোনায় আক্রান্ত হলে গন্ধের অনুভূতি প্রায়ই বিঘ্নিত হয়৷ সে কারণে স্বাদও পাওয়া যায় না৷ সংক্রমণ ঘটলে ভাইরাস নাকের মিউকাস মেমব্রেনে গন্ধের কোষ ধ্বংস করে৷ বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সেই কোষ আবার গজিয়ে ওঠে৷ কিন্তু কিছু রোগীর ক্ষেত্রে সেটা ঘটতে অনেক সময় লাগে অথবা গন্ধের অনুভূতি স্থায়ীভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়৷ কিল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ ড. মার্টিন লাউডিন বলেন, ‘‘কমবেশি দশ শতাংশ ক্ষেত্রে গন্ধের অনুভূতিতে বিঘ্ন থেকে যায় বলে মনে হচ্ছে৷ সব ক্ষেত্রে সেই অনুভূতি পুরোপুরি লোপ পায় না বটে, কিন্তু কোভিড রোগের পর গন্ধের অনুভূতি বদলে যায়৷''

গন্ধের অনুভূতির ব্যাধির উৎস খোঁজা মোটেই সহজ কাজ নয়৷ প্রত্যেকটি গন্ধ বিভিন্ন গন্ধের অণু দিয়ে তৈরি৷ গন্ধের অনুভূতি সৃষ্টি করতে প্রত্যেকটি অণুকে নিজস্ব রিসেপ্টর বা গ্রাহক খুঁজতে হয়৷ করোনা ভাইরাস গন্ধের কোষ নষ্ট করে দিলে গন্ধের কিছু অণু রিসেপ্টর খুঁজে পায় না৷ ফলে মস্তিষ্কে গন্ধের বোধ অসম্পূর্ণ থেকে যায়৷ তখন বিভ্রান্তি সৃষ্টি হতে পারে৷ করোনার রোগী হিসেবে হাইনো রেসে নিজের এক অভিজ্ঞতার উল্লেখ করে বলেন, ‘‘কিছুদিন আগে বসার ঘর থেকে বেরিয়ে মনে হয়েছিল গ্যাস লিক করছে৷ অথচ সেটা ছিল কফি বিনস গুঁড়া করে তৈরি তাজা কফির সুগন্ধ৷''

শুধু ভাইরাসের কারণে আক্রান্ত নাকের মেমব্রেনের গন্ধ কোষের কারণেই সম্ভবত গন্ধের অনুভূতিতে বিঘ্ন ঘটে না৷ প্রাণীর উপর পরীক্ষা চালিয়ে প্রমাণ পাওয়া গেছে, যে ভাইরাস গন্ধের কোষ এবং সেখান থেকে স্নায়ুর মাধ্যমে মস্তিষ্কে পৌঁছে যায় এবং সেখানে গন্ধের অনুভূতি বোধের স্নায়বিক প্রক্রিয়ায় বিঘ্ন ঘটায়৷

গন্ধের অনুভূতি বোধের উন্নতি করতে সহজ এক ট্রেনিং রয়েছে৷ একাধিক গবেষণায় তার সুফলের প্রমাণ পাওয়া গেছে৷ তার আওতায় রোগীদের নিয়মিত চারটি কড়া গন্ধওলা কাঠি শুঁকতে হয়৷ ড. মার্টিন লাউডিন বলেন, ‘‘সেই কাঠি নিজের নাকের নীচে ধরে সেই গন্ধ অনুভব করার চেষ্টা করতে হয়৷ সকাল-সন্ধ্যায়, অর্থাৎ দিনে দুই বার দশ থেকে পনেরো সেকেন্ড ধরে গন্ধ শুঁকতে হয়৷''

কাঠিগুলোতে গোলাপ, ইউক্যালিপটাস, লেবু ও লবঙ্গের গন্ধ রয়েছে৷ ইচ্ছে করলে যে কেউ পছন্দমতো অন্য গন্ধও বেছে নিতে পারে৷ যেমন সুগন্ধী তেল বা কড়া মসলা৷ এ ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট গন্ধের কোনো গুরুত্ব নেই৷ গন্ধ, পেলেও কখনো তা চেনা যায় না৷ তবে তাতে কোনো ক্ষতি নেই৷ এ ক্ষেত্রে গন্ধ চেনা মূল লক্ষ্য নয়, বরং আদৌ গন্ধ পাওয়াই হলো সাফল্য৷ ড. লাউডিন বলেন, ‘‘এখানে কোনো পদার্থের গন্ধ না চিনলেও আপনার অনুশীলন চালিয়ে যাওয়া উচিত৷ অপেক্ষা করা উচিত৷ সেটা করতে গিয়ে মস্তিষ্কে গন্ধ পৌঁছানোর পথ এবং খোদ মস্তিষ্কের অনুশীলন হয়, নতুন আন্তঃসংযোগ সৃষ্টি হয়৷ দৈনন্দিন জীবনে আবার গন্ধের অনুভূতি ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়৷''

এর ফলে অবশ্যই কিছু উন্নতি হয়েছে৷ কারেন ও হাইনো রেসে আশা করছেন, যে এই ট্রেনিং-এর মাধ্যমে তাঁরা আবার স্বাদ ও গন্ধের বোধ ফিরে পাবেন৷

টিনা রোট/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়