করোনার সময়ে বিনা চিকিৎসায় ‍মৃত্যু | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 09.05.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

করোনার সময়ে বিনা চিকিৎসায় ‍মৃত্যু

শত অনুনয়েও করোনার টেস্ট ছাড়া ভর্তি করছে না কেউ, মুমূর্ষু রোগী নিয়ে অসহায় স্বজনরা ছুটছেন এক হাসপাতাল থেকে আরেক হাসপাতালে৷ এক পর্যায়ে বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছেন রোগী৷ তাদের মৃত্যুর কারণ কিন্তু করোনা ভাইরাস নয়৷

বাংলাদেশে প্রথম করোনা ভাইরাস সংক্রমণ শনাক্তের পর গত দুই মাসে অনেকে এভাবে বিনা চিকিৎসায় মারা গেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে৷ কিছু মৃত্যুর খবর গণমাধ্যমে উঠে এসেছে৷ কেউ কেউ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্বজন হারানোর বেদনার কথা তুলে ধরেছেন, প্রকাশ করেছেন ক্ষোভ৷ কিছু মৃত্যু আড়ালেই রয়ে যাচ্ছে৷

গত ৮ মার্চ বাংলাদেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়৷ তারপর দিন দিন বাড়ছে সংক্রমণ, মৃত্যুর মিছিলও বড় হচ্ছে৷ সরকার শুরুতে প্রস্তুতি থাকার কথা বললেও স্বাস্থ্যখাতে প্রস্তুতির অনেক ঘাটতি দেখা যাচ্ছে৷

দেশের বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল একাত্তর-এ সদ্য স্বজনহারা সাইফুদ্দিন নাসির নামে এক ব্যক্তি নিজের ভয়াবহ সেই অভিজ্ঞতার কথা জানান৷

সাইফুদ্দিনের স্ত্রীর বড় বোন রেবেকা সুলতানা (৪৫) দুই সন্তান নিয়ে ঢাকার ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় বসবাস করতেন৷ কিডনি রোগে আক্রান্ত এ নারীকে নিয়মিত ডায়ালাইসিস করাতে হতো৷ বরাবরের মতো ৭ মে সকালেও রাজধানীর বিআরবি হাসপাতালে ডায়ালিসিস করাতে গিয়েছিলেন৷ কিন্তু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে জানান, রেবেকা সুলতানার হার্ট অ্যাটাক হয়েছে৷ তাদের হাসপাতালে হৃদরোগের চিকিৎসা হয় না, তাই ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনে যেতে বলা হয়৷

সাইফুদ্দিন বলেন,‘‘সকাল ৯টার দিকে ফোন পেয়ে আমি বিআরবি হাসপাতালে যাই৷ তারা আমাদের হাসপাতাল ছাড়তে বাধ্য করে৷ অ্যাম্বুলেন্সে রোগীকে নিয়ে যাই হার্ট ফাউন্ডেশনে৷ তারা বলেন, তাদের ওখানে ডায়ালিসিসের ব্যবস্থা নেই, তাই রোগী ভর্তি রাখবে না৷ সেখানে থেকে গেলাম স্কয়ার হাসপাতালে৷ তারা বললো, তাদের আইসিইউ খালি নেই৷

‘‘আয়শা মেমোরিয়ালে যোগাযোগ করলে তারা বললেন, করোনার টেস্ট ছাড়া রোগী ভর্তি করবে না৷ গেলাম ইমপালস হাসপাতালে৷ তারা বললেন, তাদের ওখানে অনেক করোনা রোগী ভর্তি আছেন, নতুন রোগী রাখবেন না৷ নিরুপায় হয়ে বারডেম হাসপাতালে গেলে ডাক্তার রোগীকে পরীক্ষা করে আইসিইউতে ভর্তি করাতে বললেন৷ কিন্তু আইসিইউর দায়িত্বে থাকা ডাক্তাররা টেস্ট ছাড়া ভর্তি করাতে রাজি হলেন না৷ অনেক অনুনয় করেছি, তদবিরও করিয়েছিলাম৷ কিন্তু কিছুতেই কাজ হলো না৷ বিকাল চারটার দিকে রোগী মারা যান৷ হাসপাতাল থেকে হৃদরোগে মৃত্যু হয়েছে বলে সনদ দেয়া হয়৷’’

এক দিন আগে রাজধানীর মুগদা জেনারেল হাসপাতালের সামনে প্রায় একই ধরনের একটি ঘটনার খবর আসে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমে৷ সেখানে এক নারী ছোট ভাইয়ের করোনা টেস্টের রিপোর্ট নিতে এসেছেন৷ ওই নারী জানান, বক্ষব্যাধিতে ভোগা তার ৩৮ বছরের ভাই সাতদিন আগে হঠাৎ করেই মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়েন৷

‘‘অনেক হাসপাতাল ঘুরেছি, কিন্তু কেউ ভর্তি করতে রাজি না৷ পরে মহাখালীর বক্ষব্যাধি হাসপাতাল বলেছে, কারোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পেলে ভর্তি করবে৷ তাই রিপোর্ট নিতে আসছি৷’’ 

রিপোর্ট দেওয়ার নির্ধারিত সময়ের আগেই লাইনে দাঁড়ানো এ নারী বারবার ফোন করে ভাইয়ের খবর নিচ্ছিলেন৷ এক সময় খবর আসে তার ভাই আর বেঁচে নেই৷

ভাইয়ের করোনা রিপোর্ট ‘নেগেটিভ’ এসেছে৷ অর্থাৎ, তার ভাই করোনায় আক্রান্ত ছিলেন না৷ রিপোর্ট হাতে ওই নারী চিৎকার করে বলছিলেন, ‘‘এই রিপোর্ট দিয়ে আমি এখন কী করবো? আমার ভাই তো আর বেঁচে নেই৷ এই রিপোর্টের জন্য কেউ ভর্তি করলো না৷’’

গত ৩১ মার্চ তারেক রিপন নামে আরেক ব্যক্তি ফেসবুকে স্ট্যাটাসে জানিয়েছিলেন, তার বোনের স্বামীকে নিয়ে ১০ দিন ধরে নানা হাসপাতালে ঘুরেও কোনো চিকিৎসা পাননি৷ অথচ ওনার করোনা পরীক্ষার ফলাফল ‘নেগেটিভ’ ছিল৷ বাড়িতে চিকিৎসা দেওয়ার চেষ্টা করেও রোগীকে বাঁচানো গেল না৷

সাভারের হেমায়েতপুরের জয়নালবাড়ী এলাকার জসিম উদ্দিনকে (৫২) একই ভাগ্য বরণ করে নিতে হয়৷ গত ১৩ এপ্রিল মারা যান তিনি৷ মৃত্যু সনদে লেখা হয় ‘স্ট্রোক’৷ অথচ করোনা আতঙ্কে পাঁচটি হাসপাতাল তাকে চিকিৎসা দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিল৷

সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল হয়ে, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, তারপর কুর্মিটোলা জেনারেল ‍হাসপাতাল৷ কুর্মিটোলার ডাক্তাররা করোনা উপসর্গ নেই বলে রোগী ভর্তি করেনি৷ নেওয়া হয় ঢাকা মেডিকেলের জরুরি বিভাগে৷ কিন্তু সেখানেও চিকিৎসা দেওয়া হয়নি৷ পরে মহানগর হাসপাতালে ভর্তির কিছুক্ষণ পর তিনি মারা যান৷

অবহেলায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগ এনে ইউনাইডেট হাসপাতালের বিরুদ্ধে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছেন ডা. জিয়াউদ্দিন হায়দার৷ তিনি ওয়ার্ল্ড ব্যাংক গ্রুপের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক৷

গত ৫ এপ্রিল তার মায়ের নিউমোনিয়া লক্ষণ এবং শ্বাসকষ্ট শুরু হলে প্রথমে পরিবারের তিন ডাক্তার সদস্য বাড়িতে রেখেই রোগীর চিকিৎসা দিচ্ছিলেন৷ কিন্তু অবস্থার অবনতি হলে উত্তরায় পরিচিত একটি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়৷ করোনা পরীক্ষার ফল নেগেটিভ এলে ১২ এপ্রিল ভর্তি করা হয় ইউনাইটেড হাসপাতালে৷ রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা অনেক কমে যাওয়ায় সেখানে তিনি লাইফসাপোর্টে ছিলেন৷

দ্বিতীয় পরীক্ষায় ফল ‘পজিটিভ’ এসেছে জানিয়ে ১৪ এপ্রিল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তার মায়ের লাইফ সাপোর্ট খুলে নিয়ে তড়িঘড়ি ছাড়পত্র দিয়ে তাদের চলে যেতে বাধ্য করেন৷ এমনকি ভেন্টিলেটর সুবিধা সম্পন্ন কোনো অ্যাম্বুলেন্সও তাদের দেওয়া হয়নি৷ ২৩ এপ্রিল কুয়েত মৈত্রী হাসপাতালে রোগীর মৃত্যু হয় বলে জানায় বাংলাদেশে ডয়চে ভেলের কনটেন্ট পার্টনার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম৷ মায়ের মৃত্যুকে অবহেলা জনিত হত্যাকাণ্ড উল্লেখ করে বিচার চাইতে আইনের দ্বারস্ত হয়েছেন ডা. জিয়াউদ্দিন৷

এসএনএল/এসিবি (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম, ৭১ টেলিভিশন)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন