করোনার সময়ের খেলাধুলা | আলাপ | DW | 02.10.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

করোনার সময়ের খেলাধুলা

গাব্রিয়েল গার্সিয়া মার্কেজের ওই বইটির স্প্যানিশ নাম আমাদের জন্য বেশ খটোমটো, ‘এল আমোর এন লোস তিম্পোস দেল কোলেরা’৷ ইংরেজী অনুবাদটা বরং বোধগম্য, ‘লাভ ইন দ্য টাইম অব কলেরা’৷ কলেরার সময়ের ভালোবাসা৷

২৩ আগস্ট লিসবনে অনুষ্ঠিত চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনাল ম্যাচের দৃশ্য

২৩ আগস্ট লিসবনে অনুষ্ঠিত চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনাল ম্যাচের দৃশ্য

 শতবর্ষ আগের সময়টায় ওই রোগের প্রাদুর্ভাব প্রবলভাবে ছিল পৃথিবীতে৷ এখন যেমন করোনা৷

করোনার কারণে বদলে গেছে পুরো বিশ্ব৷ ক্রীড়াবিশ্বও এর বাইরে থাকে কী করে! ‘স্পোর্টস ইন দ্য টাইম অব করোনা’-র সঙ্গে আগের সময়টার তো মিল নেই কোনো! বিশুদ্ধ বিনোদনের এই জায়গায় মানুষের ভালোবাসা অফুরান৷ কিন্তু পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে বর্তমান বাস্তবতা মেনে সেই ‘মানুষ’ই যেন হয়ে পড়ছে ব্রাত্য৷

কিভাবে? দর্শকবিহীন স্টেডিয়ামে খেলা চালু করা এর সবচেয়ে বড় প্রমাণ৷ অবশ্যই সেটি করোনাকালীন সময়ের স্বাস্থ্যঝুঁকি বিবেচনা করেই৷

ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র এক ভাইরাস অদ্ভুত আঁধার নিয়ে এসেছে গোটা পৃথিবীতে৷ ক্যানভাসটা ছোট করে ক্রীড়াঙ্গনে, আরো ছোট করে বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনে নিয়ে এলেও সেই অন্ধকারের ছায়া৷ সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা যে ক্রিকেট, সেটি মাঠে ফেরানো যাচ্ছে না কিছুতেই৷ জাতীয় দলের শ্রীলঙ্কা সফরটিও তো বাতিল হয়ে গেল একই কারণে৷

অথচ এ সিরিজ নিয়ে প্রত্যাবর্তনের কী রোমাঞ্চই না খেলা করছিল বাংলাদেশের ক্রিকেটাঙ্গনে! করোনার কারণে খেলা বন্ধ সেই মার্চ থেকে৷ স্থগিত হয়েছে একের পর এক সিরিজ; বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপের মতো টুর্নামেন্ট৷ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজও স্থগিত হয়ে ছিল৷ সেটি পুনরায় আয়োজনের চেষ্টা অক্টোবরে-নভেম্বরে৷ দুই দেশের ক্রিকেট বোর্ডের মতৈক্য ছিল, কিন্তু বাধ সাধে শ্রীলঙ্কায় কোভিড১৯ নিয়ন্ত্রণের জন্য গঠিত টাস্কফোর্স৷ সে দেশ সফরে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিনে ছাড় দিতে রাজি নয় এক বিন্দু৷ সেটি আবার ক্রিকেটারদের মাঠের খেলার প্রস্তুতিতে বড় বাধা বলে মনে করেছে বিসিবি৷ বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন সে খবর জানিয়ে সিরিজটি ভবিষ্যতে স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে সুবিধাজনক সময়ে আয়োজনের ওপর ছেড়ে দিয়েছেন৷

কিন্তু সে স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে কবে ফিরবে বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গন?

ক্রিকেটের আন্তর্জাতিক সিরিজ হচ্ছে না সহসা৷ ঘরোয়া ক্রিকেট তাই চালু করতে চায় বিসিবি৷ করোনা পরিস্থিতিতে সেটিও হবে মহা চ্যালেঞ্জিং৷ আবার ক্রিকেটাররা এত দিন খেলার বাইরে থাকলে তাঁদের দক্ষতায় যে মরচে ধরবে, সে দুশ্চিন্তাও তো রয়েছে৷ আরেক চিন্তার কারণ, বাংলাদেশ শুরু করতে না পারলেও বিশ্ব ক্রিকেট তো ফেরার পর ঠিকই খুঁজে নিচ্ছে৷ ইংল্যান্ডে গিয়ে সিরিজ খেলে এসেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ, পাকিস্তান ও অস্ট্রেলিয়া৷ নিজেদের দেশের পরিস্থিতি অনুকূলে না থাকায় সংযুক্ত আরব আমিরাতে আইপিএল আয়োজন করছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড৷ তবে এ সব খেলাই হচ্ছে দর্শকবিহীন স্টেডিয়ামে৷ অবশ্য দীর্ঘ বিরতির পর টেলিভিশনে খেলা দেখার আনন্দও তো কম নয় দর্শকদের৷ অর্থপ্রবাহে স্পন্সরদের চাপে খেলা আয়োজন করা হচ্ছে, এ ‘অপবাদ’ সত্ত্বেও!

বাংলাদেশের ফুটবলপাড়া এখন ব্যস্ত নির্বাচন নিয়ে৷ করোনায় গিলে খেয়েছে পেশাদার ফুটবল লিগের একটি মৌসুম৷ বাতিল হয়েছে আন্তর্জাতিক ম্যাচও৷ আগামী ডিসেম্বর থেকে ফেডারেশন কাপ দিয়ে ঘরোয়া ফুটবল চালু হবার কথা৷ অবশ্য ততদিনে শীত জাঁকিয়ে বসবে এই ব-দ্বীপে৷ আর শীতের সময় করোনার দ্বিতীয় সংক্রমণের আশঙ্কা করা হচ্ছে দেশের শীর্ষমহল থেকে৷ ফুটবল তাই কবে মাঠে গড়াবে আবার, সেটি ভীষণ অনিশ্চিত৷

অনিশ্চয়তার সেই ঢেউ ঠেলে ইউরোপিয়ান ফুটবল ফিরেছে মাঠে৷ শীর্ষ লিগগুলোর মধ্যে পথ দেখিয়েছে জার্মান বুন্ডেসলিগা৷ স্থগিত হওয়া গত মৌসুমের খেলা সবার আগে শুরু করে তারা৷ এরপর ইংল্যান্ড, ইতালি, স্পেন সব দেশের লিগ শেষ করা হয়েছে৷ ফ্রান্সের মৌসুমটি অবশ্য বাতিলই ঘোষণা করা হয়৷ মৌসুমটা টেনে লম্বা করে চ্যাম্পিয়নস লিগ, ইউরোপা লিগও শেষ করা হয়৷ আর এ সবই দর্শকবিহীন স্টেডিয়ামে৷

দুই মৌসুমের মাঝে আড়াই-তিনমাসের বিরতি থাকে৷ এবার সেটি হওয়ার জো ছিল না৷ বিরতির সময় কমিয়ে আবার ফুটবলাররা নেমে গেছেন মাঠে; নতুন মৌসুমে৷ দর্শক-সমর্থনহীন মাঠে খেলার সঙ্গে অভ্যস্ত হয়ে উঠছেন ক্রমশ৷ বার্সেলোনার সমর্থকরা অবশ্য তাতেও বোধকরি খুশি৷ অন্তত লিওনেল মেসিহীন বার্সেলোনার সঙ্গে তো আর অভ্যস্ত হতে হচ্ছে না৷

ফিরতে শুরু করেছে অন্যান্য খেলাও৷ টেনিসের গ্র্যান্ডস্লাম ইভেন্ট ইউএস ওপেন যেমন হয়ে গেল৷ তবে তাতে অংশ নেননি পুরুষ ও মহিলা এককের ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন রাফায়েল নাদাল ও বিয়াঙ্কা আন্দ্রেস্কু৷ কোভিড-১৯ মহামারির স্বাস্থ্যঝুঁকি কারণে প্রথমজন এবং পরেরজন সে কারণেই যথাযথ প্রস্তুতি না নিতে পারায়৷ ডমিনিক থিয়েম ও নাওমি ওসাকা হয়েছেন ইউএস ওপেনের নতুন রাজা-রানি৷

বাংলাদেশেও কোভিড১৯ পরিস্থিতি সামলে ফেরার চেষ্টায় অন্যান্য খেলা৷ দাবা অলিম্পিয়াড যেমন হয়ে গেল অনলাইনে৷ জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের জিমনেসিয়ামে তায়াকোয়ান্দো ফিরেছে৷ ক্যাম্প হচ্ছে শ্যুটিং ও আর্চারির৷ কিন্তু সব কিছু স্বাভাবিক হতে নিশ্চয়ই সময় লাগবে আরো৷

কত সময়? কলেরার সময়ের ভালোবাসা নিয়ে মার্কেজের যে উপন্যাস, এর ঘটনার ব্যাপ্তিকাল ৫০ বছরেরও বেশি৷ এবার করোনার ধাক্কা পৃথিবীকে নিশ্চয়ই এত দিন সইতে হবে না! বরং ভালোবাসার ক্রীড়াঙ্গন অচিরে ফিরবে গমগমে স্বরূপে- এমন প্রত্যাশাই দর্শক-সমর্থকদের৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন