‘করোনার র‌্যাপিড কিট শতভাগ সফল হবে’ | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 22.03.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

‘করোনার র‌্যাপিড কিট শতভাগ সফল হবে’

নিজেদের উদ্ভাবিত করোনা ভাইরাস শনাক্তকরণ কিট শতভাগ কার্যকরী হবে বলে আশাবাদী বাংলাদেশের গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী৷ উৎপাদনের পর কার্যকারিতা দেখে এর বাজারজাতের অনুমোদন নেয়া হবে বলে জানান তিনি৷

আক্রান্ত ব্যক্তির এক ফোঁটা রক্ত দিয়ে ১৫ মিনিটেই করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত করা যাবে৷ তাই গণস্বাস্থ্যের উদ্ভাবিত করোনা টেস্ট কিটের নাম রাখা হয়েছে ‘গণস্বাস্থ্য র‌্যাপিড ডট ব্লট'৷ এর দাম রাখা হবে ২০০ টাকা৷

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, তিন সপ্তাহের মধ্যে তিনি বাজারে নতুন এই কিট সরবরাহ করতে পারবেন৷ সেগুলো সাধারণ মানুষের সংগ্রহের সুযোগ থাকবে না৷ শুধু হাতপাতাল ও ক্লিনিকগুলোই কিনতে পারবে৷ প্রাথমিকভাবে এক লাখ কিট উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা তাদের৷

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি বলেন, প্রচলিত পিসিআর পদ্ধতির কারণে পরীক্ষায় কমপক্ষে পাঁচ দিন লাগে যা, তুলনামূলক ব্যয় সাপেক্ষ৷ কিন্তু র‌্যাপিড কিটে সময় এবং অর্থ দুটোই সাশ্রয় হবে৷

এই কিটের উদ্ভাবক গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রধান গবেষক ডা. বিজন কুমার শীল৷ ২০০৩ সালে তিনি সার্স ভাইরাস পরীক্ষার কিট উদ্ভাবন করেছিলেন বলে জানান জাফরুল্লাহ৷ তখন তিনি সিংগাপুরে গবেষণার কাজ করতেন৷

করোনা পরীক্ষার নতুন এই কিটের কার্যকারিতা হার কতভাগ এমন প্রশ্নের জবাবে, জাফরুল্লাহ বলেন সার্সের ক্ষেত্রে এটি শতভাগ ফলাফল দিয়েছে৷ করোনার ক্ষেত্রেও তা শতভাগ না হওয়ার কোনো কারণ নেই৷ ‘‘এখনও আমরা যে পরীক্ষা করেছি তার নমুনা সংখ্যা ছোট৷ তৈরি করার পর যখন আমরা এক হাজার স্যাম্পল করব তখন বলতে পারব এর ব্যর্থতার হার কতভাগ হতে পারে৷ তবে সেটা খুব কম হবে,’’ বলেন তিনি৷ 

ভিডিও দেখুন 11:49

করোনা ভাইরাস শনাক্ত হবে ১৫ মিনিটে

ওষুধ প্রশাসন এক বিজ্ঞপ্তিতে বলেছে, গণস্বাস্থ্যকে উৎপাদনের নয়, কাঁচামাল আমদানির অনুমতি দেয়া হয়েছে৷ এর জবাবে ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, ‘‘কাঁচামাল এনে কি আমি বসে বসে চেহারা দেখব? আমি কি পূজা করবো না ভারতে পাঠাবো? আমি উৎপাদন করব৷ তাদের বোঝার ভুল আছে৷ তবে বাজারজাত করতে আমার অনুমতি লাগবে৷ উৎপাদনের পর এর কার্যকারিতা দেখে তারপর সেই অনুমতি দেয়া হবে৷’’

এই কিটের কাঁচামাল আনা হচ্ছে যুক্তরাজ্য থেকে৷ শনিবার ছুটির দিনেও এনবিআর এলসির প্রয়োজনীয় কাজ করে দিয়েছে৷ বিশেষ ব্যবস্থায় বুধবারের মধ্যে কাঁচামাল বাংলাদেশে আসবে৷ জাফরুল্লাহ বলেন, ‘‘আমরা সর্বোচ্চ তিন সপ্তাহের মধ্যে এটা উৎপাদন করে বাজারে দিতে পারবো৷’’

তার মতে করোনা শনাক্ত করা না গেলে এর প্রতিরোধ সম্ভব নয়৷ আর সেক্ষেত্রে  দ্রুত এবং সহজে শনাক্তের জন্য তাদের কিটটি ভূমিকা রাখবে৷ 

করোনা নিয়ে এখন যা করা প্রয়োজন

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী মনে করেন, বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সীমানা আগেই বন্ধ করে দেয়া উচিত ছিলো৷ সেটি করা না হলেও যত দ্রুত সম্ভব এখন ভারতের সঙ্গে সীমান্ত সিল করে দেয়া উচিত৷ আক্রান্ত ১৭০ টি দেশে ভারতীয় নাগরিক আছে৷ অন্যদিকে দেশটির সবচেয়ে বড় সীমান্তই বাংলাদেশের সঙ্গে৷

তার দৃষ্টিতে দেশের কারাগারগুলো করোনার মারাত্মক ঝুঁকিতে রয়েছে৷ সেখানে যারা আছেন তাদের মধ্যে দাগি দণ্ডপ্রাপ্ত ও ফাঁসির আসামি ছাড়া আর সবাইকে প্যারোল বা অন্য কোনো পদ্ধতিতে ছেড়ে দেয়া উচিত৷ আদালতে আইনজীবী, আসামি, বাদী-বিবাদীর উপস্থিতিও বন্ধ করার পক্ষে তিনি৷

এছাড়া মসজিদ, মন্দির, প্যাগোডাসহ ধর্মীয় উপাসানালয় এখনই বন্ধ না করলেও সেখানে স্বাস্থ্যবিধির ব্যাপারে কড়াকড়ি আরোপ করা উচিত বলে মনে করেন তিনি৷ 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন