করোনার বিধিনিষেধে জার্মানদের মিশ্র প্রতিক্রিয়া | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 09.04.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

করোনার বিধিনিষেধে জার্মানদের মিশ্র প্রতিক্রিয়া

করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় জার্মানির নেয়া বিভিন্ন উদ্যোগে মিশ্র প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করেছে দেশটির বাসিন্দারা৷ তবে, দাবি উঠেছে এসংক্রান্ত নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়ানোর৷

করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় পুরো দেশ লকডাউন বা সান্ধ্যআইন জারি না করলেও দু'জনের বেশি মানুষকে একসঙ্গে চলাফেরায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে জার্মানি৷ পাশাপাশি কিন্ডারগার্টেন, স্কুল এবং বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করে৷ এছাড়া সামাজিক দূরত্ব অর্থাৎ ঘরের বাইরে যেকোনো স্থানে একজন মানুষ থেকে আরেকজন মানুষের দূরত্ব দেড় থেকে দুই মিটার বজায় রাখার নির্দেশনাও জারি করা হয় এবং বন্ধ করে দেয়া হয় সীমান্ত ও জরুরি নয় এমন সব দোকানপাট৷ একইসঙ্গে প্রতি সপ্তাহে বিপুল সংখ্যক মানুষের করোনা টেস্টও করা হচ্ছে৷

জার্মানির উদ্যোগে সন্তুষ্টি, আক্ষেপ

জার্মানির কয়েকজন বাসিন্দা ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, জার্মানির এসব উদ্যোগে তারা সন্তুষ্ট৷ দেশটির সাবেক রাজধানী বন শহরের বাসিন্দা আসাদ আহমেদ টিপু এই প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘জার্মানি যদিও দেরি করে বিভিন্ন বিধিনিষেধ আরোপ করেছে, তবুও খুবই জরুরি ছিল এসব পদক্ষেপ নেয়া৷’’

৪০ বছর আগে উচ্চশিক্ষা নিতে জার্মানিতে আসেন টিপু৷ বর্তমানে তিনি অবসর জীবনযাপন করছেন৷ ডয়চে ভেলেকে টিপু বলেন, ‘‘মানুষের জীবন ব্যবসা থেকে বেশি মূল্যবান৷ তাই জার্মানিতে বর্তমানে কার্যকর নিষেধাজ্ঞাগুলো অতিশীঘ্রই তুলে দেয়া ঠিক হবে না৷ বরং নিষেধাজ্ঞা বহাল রেখে আরো কিছুদিন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে হবে৷

‘‘কিন্ডারগার্টেন-স্কুল-বিশ্ববিদ্যালয় শীঘ্রই খোলা একেবারেই উচিত হবে না৷ কারণ শিক্ষার্থীরা করোনা ভাইরাসে সরাসরি ক্ষতিগ্রস্ত না হলেও তাদের বাবা মা, দাদা দাদিরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে৷ তাদের ক্লাস এক সেমিস্টার পেছালে তেমন কোন ক্ষতি হবে না৷’’

জার্মানির তথ্যপ্রযুক্তিখাতে চাকুরিরত বেলাল ইব্রাহিম জার্মানির নেয়া উদ্যোগগুলোতে বেশ সন্তুষ্ট৷ তিনি বলেন, ‘‘ইউরোপের দেশটি প্রয়োজনের চেয়ে বেশিই করেছে যেটা আমরা পরিসংখ্যানে দেখতে পাচ্ছি৷ এদেশে করোনায় মৃতের হার অত্যন্ত কম৷’’

তবে, বনের আরেক বাসিন্দা সিন্ডি ব্যাংকমান মনে করেন, করোনা সংক্রমণের হার কমাতে বর্তমান উদ্যোগগুলো কার্যকর হলেও এটাই সঠিক পন্থা কি না তা নিয়ে প্রশ্ন তোলার সুযোগ রয়েছে৷ তিনি বলেন, ‘‘এমন কোন উদ্যোগ নেয়া দরকার ছিল যা আমাদের অর্থনৈতিক এবং সামাজিক কর্মকাণ্ড পুরোপুরি বন্ধ না করেও কার্যকর হতো৷ যেমন, এরকম উদ্যোগ যদি নেয়া হতো যে যারা বাড়ির বাইরে যাবে তারা সুরক্ষা মাস্ক ব্যবহার করবে এবং যাদের মধ্যে কোন রকম সংক্রমণের লক্ষণ দেখা দেবে তারা বাড়িতে থাকবে – তাহলে সবকিছু একেবারে বন্ধ না করলেও চলতো৷’’

জার্মানির মনোচিকিৎসা খাতে কর্মরত এই নারী বলেন, ‘‘জার্মানি সবচেয়ে বড় যে ভুলটা করেছে তাহচ্ছে সময়মতো করোনা থেকে সুরক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ম্যাটেরিয়ালের পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিত না করা৷ দেশটি এই সংকট একটা লম্বা সময় অবধি গ্রাহ্য করেনি৷’’

সাময়িক আর্থিক ক্ষতি, সহায়তা

মিশর থেকে তিন বছর আগে জার্মানিতে আসা বেলাল স্বীকার করেছেন জার্মানির আরোপ করা বিধিনিষেধের কারণে শুধু আর্থিক নয়, আরো নানাভাবে ক্ষতির শিকার হয়েছেন তিনি৷ তার কথায়, ‘‘আর্থিক ক্ষতির পাশাপাশি ফ্লাইট বন্ধ থাকায় দেশেও যেতে পারছি না৷ তবে, আমি কোন ক্ষতিপূরণ পাইনি, আমার সেটা দরকার নেই৷’’

প্রসঙ্গত, করোনার কারণে আর্থিক ক্ষতির শিকার হওয়া ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে নানাভাবে সহায়তা করছে জার্মান সরকার, এজন্য বড় অংকের উদ্ধার তহবিলও ঘোষণা করেছে দেশটি৷ জার্মানির গ্রিন পার্টির রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ভেয়ার্ল শহরের শাহাবুদ্দিন মিয়া জানিয়েছেন, করোনার কারণে তাঁর ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সরকারের কাছ থেকে নয় হাজার ইউরো ক্ষতিপূরণ পেয়েছেন তিনি৷ তবে, ব্যবসার ক্ষতি হলেও বর্তমান নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ আরো বাড়ানোর পক্ষে মিয়া৷

তিনি বলেন, ‘‘এপ্রিলের পরেও নিষেধাজ্ঞা বজায় রাখতে হবে৷ কারণ আক্রান্তের সংখা কমাতে আরও সময় লাগবে৷ আমার মনে হয় জুন মাসের শেষাবধি সম্ভব হবে৷’’

সদ্য মা হওয়া সিন্ডি ব্যাংকমানের ক্ষতিটা অবশ্য অন্যত্র৷ তার কথায়, ‘‘আমি আমার বন্ধুবান্ধব ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাত করতে পারছি না৷ আমার মা এবং ভাইবোনেরা এখনো আমার সন্তানকে দেখতে আসতে পারেনি৷’’

‘নজরদারি বাড়ানো প্রয়োজন’

জার্মানির রাজধানী বার্লিনের দুই বাসিন্দা করোনা মোকাবিলায় জার্মানির নেয়া উদ্যোগে কিছু ঘাটতি দেখছেন৷ মিতালি মুখোপাধ্যায় মনে করেন, জার্মানি সঠিক সময়ে উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারেনি৷ তিনি বলেন, ‘‘জার্মানির উদ্যোগে ততটা সন্তুষ্ট নই, যতটা হব ভেবেছিলাম৷ ইউরোপের শক্তিশালী দেশগুলোর মধ্যে জার্মানি প্রথম দিকে থেকেও নুন্যতম প্রাথমিক প্রস্তুতি নিতে পারেনি৷’’

বার্লিনের আরেক বাসিন্দা ওয়ারেসুল মাহবুব জানিয়েছেন, করোনার কারণে জার্মানিতে বিনা নোটিশে চাকুরি হারানোর ঘটনা ঘটেছে যা তিনি অতীতে কখনো দেখেননি৷

বাংলাদেশি এই শিক্ষার্থী বলেন, ‘‘আমি বেশ কয়েকদিন দেখেছি অনেকেই নিয়ম না মেনে ৩-৪ জন একসাথে ঘোরাফেরা করছেন৷ সেগুলো মনিটর করার জন্য কাউকে দেখিনি৷ এছাড়া অনেকেই বিনা নোটিশে চাকরি হারিয়েছেন৷’’

সিন্ডি ব্যাংকমানের মতে, করোনা সংকট সামগ্রিকভাবে গোটা মানবজাতিকে একটি ধাক্কা দিয়েছে৷ আর এ থেকে আমাদের শিক্ষা নিতে হবে৷ তিনি বলেন, ‘‘সবচেয়ে বড় শিক্ষাটা হচ্ছে আমাদের খুব ভালোভাবে তৈরি সামাজিক কাঠামো আসলে অত্যন্ত নাজুক এবং খুব সহজে ভেঙ্গে পড়তে পারে৷ আমাদের তাই ভবিষ্যতে বিভিন্ন সংকটকালীন পরিস্থিতি মোকাবিলায় আরো ভালো পরিকল্পনা এবং প্রস্তুতি নিতে হবে৷’’  

উল্লেখ্য, জার্মানির নানা বিভিন্ন উদ্যোগের ফলে দেশটিতে করোনা ভাইরাসে সংক্রমণের হার কমানো গেছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা৷ সরকারি হিসেবে দেশটিতে বুধবার অবধি নিশ্চিতভাবে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১০৩,২২৮৷ আর মৃতের সংখ্যা ১,৮৬১, যা মোট আক্রান্তের এক দশমিক আট শতাংশ৷ বেসরকারি হিসেবে অবশ্য আক্রান্ত ও প্রাণহানির সংখ্যা আরো বেশি৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন