করোনাভাইরাস: জার্মানি থেকে ভিয়েতনামিদের দেশে ফিরতে বিড়ম্বনা | বিশ্ব | DW | 07.04.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

করোনাভাইরাস: জার্মানি থেকে ভিয়েতনামিদের দেশে ফিরতে বিড়ম্বনা

আকাশচুম্বী বিমানভাড়া এবং কঠোর সঙ্গনিরোধ নিয়মের কারণে ইউরোপ থেকে ভিয়েতনামে ভ্রমণ দুরূহ হয়ে পড়েছে৷ ফলে ভিয়েতনামিরা ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও দেশে যেতে পারছেন না৷

অসুস্থ দাদিকে দেখতে সপরিবারের ভিয়েতনামে যেতে চেয়েছিলেন ন্যা নেওয়িন৷ কিন্তু ট্রাভেল এজেন্সি যখন তাকে খরচের হিসেব দিল তখন আর দেশে ফেরার চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলা ছাড়া আর কিছুই করার থাকলো না তার৷

নেওয়িন বলেন, ‘‘তারা বলেছে যে জনপ্রতি চারহাজার তিনশো ইউরো ভাড়া গুণতে হবে৷ আমি মনে করেছিলাম করোনার কারণে এখন হয়ত ভাড়া হবে দেড়-দুই হাজার ইউরোর মতো, যা স্বাভাবিকের চেয়ে দ্বিগুণ৷'' 

ট্রাভেল এজেন্সি যে প্যাকেজ ন্যা নেওয়িনকে দিয়েছেন তাতে শুধু যাওয়ার বিমান টিকিট রয়েছে৷ সঙ্গে সেদেশে যাওয়ার পর ১৪ দিন সঙ্গনিরোধে থাকার ব্যবস্থা এবং ভ্রমণের জন্য প্রয়োজনীয় অন্যান্য দাপ্তরিক কর্মকাণ্ডের খরচও অন্তর্ভূক্ত রয়েছে৷ তবে, তিনি যদি ভিয়েতনাম ভ্রমণ শেষে আবারো জার্মানিতে ফিরতে চান তাহলে ফিরতি টিকিটের জন্য জনপ্রতি আরো ছয়শো বা সাতশো ইউরো গুনতে হবে৷

এশিয়ার দেশ ভিয়েতনাম করোনার সংক্রমণ কমাতে দেশটিতে ভ্রমণের উপর ব্যাপক কড়াকড়ি আরোপ করেছে৷ যেকোন প্রবাসী ভিয়েতনামি নাগরিককে নিজের দেশে ফিরতে হলে একটি তালিকায় নাম অন্তর্ভূক্ত করতে হবে এবং সরকারের অনুমতির জন্য অপেক্ষা করতে হবে৷

প্রবাসী ভিয়েতনামিরা জানিয়েছেন যে দূতাবাসের মাধ্যমে নাম তালিকাভূক্ত করার পরও দীর্ঘসময় অপেক্ষা করতে হতে পারে৷ কেননা সরকার শুধুমাত্র খুব জরুরীভাবে যাদের দেশে ফিরে যেতে হবে বা শিক্ষার্থীদের তালিকায় অগ্রাধিকার দিচ্ছে৷

এমন পরিস্থিতি আশু বদলে যাওয়ার কোন সম্ভাবনা দেখছেন না ন্যা নেওয়িন৷ আপাতত তাই আরো অনেকের মতো ভিয়েতনামে যাওয়ার পরিকল্পনা বাদ দিয়েছেন তিনি৷

এআই/কেএম