করোনাবিধি না মানায় ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ বাতিল | বিশ্ব | DW | 06.09.2021

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্রাজিল

করোনাবিধি না মানায় ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ বাতিল

করোনা বিধি মানা হয়নি। তাই বাতিল ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের ম্যাচ। অভিযোগ, বিধি ভেঙে আর্জেন্টিনা চারজনকে খেলাচ্ছিল।

নেইমার ও মেসির সঙ্গে কথা বলছেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

নেইমার ও মেসির সঙ্গে কথা বলছেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

ফুটবল ইতিহাসে প্রথমবার এই ঘটনা ঘটলো। করোনার বিধি না মানায় আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিলের ম্যাচ বাতিল হলো। মাত্র পাঁচ মিনিট খেলা হয়। তারপরই ব্রাজিলের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা পুলিশ নিয়ে মাঠে ঢুকে খেলা বন্ধ করে দেন।

ব্রাজিলে এই ম্যচের দিকে নজর ছিল সারা বিশ্বের ফুটবল অনুরাগীদের। নেইমার বনাম মেসি লড়াই হবে  কি না, হলে কে কাকে টপকে যাবেন, তা নিয়ে গত কয়েকদিন ধরে বিতর্ক কম হয়নি। কিন্তু সেই ম্যাচই হলো না। মেসি-নেইমারের দ্বৈরথ দেখা হলো না ফুটবল অনুরাগীদের।

ঘটনা হলো, ইংল্যান্ড থেকে ব্রাজিলে আসেন আর্জেন্টিনার চার ফুটবলার এমিলিয়ানো বুয়েন্দিয়া, এমিলিয়ানো মার্তিনেস, জিওভান্নি লো সেলসো এবং ক্রিশ্চিয়ানো রোমেরো। কিন্তু ম্যাচের আগে নাম না করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়ে দেয়, ইংল্যান্ড থেকে আসা প্লেয়ারদের আগে নিভৃতবাসে থাকতে হবে। কিন্তু আর্জেন্টিনার কোচ স্কালোনি সেই নির্দেশ অগ্রাহ্য করে চারজনকে মাঠে নামান।

খেলা শুরু হয়। কিন্তু মিনিট পাঁচেক খেলা হওয়ার পরই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা মাঠে পুলিশ নিয়ে ঢুকে পড়েন। তারা জানিয়ে দেন, এই চার ফুটবলার খেলতে পারবেন না। শুরু হয় কথাবার্তা। সেটা ক্রমে তর্কাতর্কির জায়গায় চলে যায়। আর্জেন্টিনার কয়েকজন কর্মকর্তার সঙ্গে ব্রাজিলের পুলিশ কর্মীদের উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় হয়।

এরপর আর্জেন্টিনা দল মাঠ ছেড়ে চলে যায়। নেইমাররা অবশ্য মাঠ ছাড়েননি। তারা প্র্যাকটিস করতে থাকেন। কিন্তু কিছুক্ষণ পর ম্যাচ বাতিল করার ঘোষণা করা হয়।

ফিফা জানিয়েছে, যথাসময়ে এই ম্যাচ নিয়ে তাদের সিদ্ধান্তের কথা জানানো হবে। শৃঙ্খলারক্ষাকারী কমিটির কাছে রেফারি ও ম্যাচ কমিশনারের রিপোর্ট জমা পড়বে। তারপর তারা এই ম্যাচের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে।

ব্রাজিলের করোনাবিধি

ব্রাজিলের নিয়ম হলো, যুক্তরাজ্য থেকে কেউ এলে তাদের ১৪ দিন কোয়ারান্টিনে থাকতে হবে। ব্রাজিলের স্বাস্থ্য নিয়ামক সংস্থার ডিরেক্টর জানিয়েছেন, ''আর্জেন্টিনার চারজন ফুটবলার আমাদের নিয়ম মানেননি। তাদের আলাদা করে রাখা হয়েছিল। নিভৃতবাসের জন্য নিয়ে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তারা সেটা মানেননি। তারা স্টেডিয়ামে চলে আসেন। পরে মাঠেও নামেন। এটা বিধিভঙ্গ।''

আর্জেন্টিনা কোচের বক্তব্য

আর্জেন্টিনার কোচ স্কালোনি বলেছেন, তাদের আগে থেকে বিষয়টি জানানো হয়নি। কোনো লিখিত নির্দেশ আগে থেকে তারা পাননি। আর্জেন্টিনার কোচের দাবি, ''আমরা ম্যাচটা খেলতে চেয়েছিলাম। ব্রাজিলের ফুটবলাররাও খেলতে চেয়েছিলেন। আর কোচ হিসাবে প্লেয়ারদের স্বার্থ আমাকে দেখতে হয়। আমি চাই, দর্শকরা যেন সেরা প্লেয়ারদের মাঠে দেখতে পান।''

স্কালোনি বলেছেন, ''আমি কাউকে দোষ দিতে চাই না। কিন্তু যেভাবে ম্যাচে হস্তক্ষেপ করা হয়েছে, সেটা মানতে পারছি না।''

ফুটবল সংস্থার বক্তব্য

আর্জেন্টিনার ফুটবল সংস্থা জানিয়েছে, তাদের প্লেয়াররা ৩ সেপ্টেম্বর থেকে ব্রাজিলে ছিলেন। তারা যাবতীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনেছে। ফুটবল মাঠে এই ধরনের দৃশ্য একেবারেই অভিপ্রেত নয়।

ব্রাজিলের ফুটবল সংস্থা বলেছে, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের  কর্মকর্তাদের এভাবে হস্তক্ষেপ করা উচিত হয়নি। ফুটবল অনুরাগীরা এই ম্যাচ দেখতে পেলেন না বলে তারা দুঃখিত।

জিএইচ/এসজি(এপি, এএফপি, রয়টার্স)

সংশ্লিষ্ট বিষয়