করোনার বিরুদ্ধে কঠোর হচ্ছে জার্মানি, ফ্রান্স ও স্পেন | বিশ্ব | DW | 16.03.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

করোনা ভাইরাস

করোনার বিরুদ্ধে কঠোর হচ্ছে জার্মানি, ফ্রান্স ও স্পেন

সারা বিশ্বে এ পর্যন্ত এক লাখ ৬৯ হাজার মানুষ করোনায় সংক্রমিত হয়েছে, মারা গেছে সাড়ে ছয় হাজারেরও বেশি মানুষ৷

ইটালির পর ইউরোপের অন্যান্য দেশেও ধীরে ধীরে বাড়ছে করোনার বিস্তার৷ ফলে দ্রুত নেয়া হচ্ছে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা

ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে ইটালির অবস্থা সবচেয়ে খারাপ৷ ২৪ হাজার ৭৪৭ জন সংক্রমিত, মৃতের সংখ্যা অন্তত এক হাজার ৮০৯৷

ইউরোপে ইটালির পর সবচেয়ে খারাপ অবস্থা স্পেনের৷ সে দেশে এ পর্যন্ত সংক্রমিত হয়েছে আট হাজার ৭৪৪ জন আর মৃতের সংখ্যা ঠেকেছে ২৯৭-এ৷ সংক্রমণ এবং মৃত্যুর দিক থেকে চীন, ইটালি আর দক্ষিণ কোরিয়ার পরেই রয়েছে তারা৷ রাস্তা এবং ট্রেন স্টেশগুলো পরিষ্কার করার কাজে নামানো হয়েছে সেনাবাহিনী৷

জার্মানিতে সংক্রমিতের সংখ্যা প্রায় পাঁচ হাজারের মতো, মৃত্যু হয়েছে এ পর্যন্ত ১২ জনের৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ইতিমধ্যে ফ্রান্স, লুক্সেমবুর্গ, সুইজারল্যান্ড, অস্ট্রিয়া এবং ডেনমার্ক সংলগ্ন সীমান্ত আংশিকভাবে বন্ধ করা হয়েছে৷

জার্মান অর্থমন্ত্রী বলেছেন, করোনার প্রভাব অর্থনীতিতেও পড়বে

জনজীবনেও পড়ছে করোনার প্রভাব৷ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা শুরু হয়েছে৷ ঘরের বাইরে, কর্মস্থলেও নেয়া হচ্ছে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা৷

জার্মানির পরিবেশমন্ত্রী স্ভেনিয়া শুলৎসে বলেছেন, জনজীবনে পরিবর্তনও জরুরি প্রয়োজন৷ তিনি বলেন, ‘‘এখন সামাজিকভাবে মেলামেশা বন্ধ রাখতে হবে৷ সবাই জানেন কেন তা প্রয়োজন৷ প্রাত্যহিক জীবনে যে-কোনো পরিবর্তন খুব চোখে পড়ে, তবে আপাতত এভাবেই চলতে হবে৷''

ম্যার্কেল সরকারের মন্ত্রীরাও করোনার ব্যাপারে সতর্ক৷ শিক্ষামন্ত্রী আনইয়া ক্লারিচেক এক সভায় অংশ নিয়েছিলেন৷ সেই সভায় উপস্থিত একজনের দেহে পরে করোনা ধরা পড়ে৷ শিক্ষামন্ত্রী এখন তাই ঘরে বসেই করছেন দাপ্তরিক সব কাজ৷

যেসব জার্মান নাগরিক এখনো ছুটি কাটাতে দেশের বাইরে তাদের ফিরিয়ে আনার জন্য লুফথহানসার সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছে ম্যার্কেল সরকার৷

ফ্রান্সের শহরগুলির রাস্তাঘাট, দোকানপাট প্রায় ফাঁকা৷ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ৷ অন্য দেশের সঙ্গে ট্রেন এবং বিমান যোগাযোগ সীমিত করা হয়েছে৷ দেশের ভেতরেও কিছু ট্রেন এবং বাস এ মুহূর্তে চলছে না৷ পাঁচ হাজারেরও বেশি মানুষের দেহে সংক্রমণ ধরা পড়া এবং ১২৭জনের মৃত্যুর আগে ‘অপ্রয়োজনীয়' বা কম জরুরি ব্যবসা বন্ধের নির্দেশ দিয়েছিল সরকার৷ তারপরও পরিস্থিতিতে দৃশ্যত তেমন কোনো পরিবর্তন আসেনি৷ করোনায় সংক্রমিত চারশ' মানুষের অবস্থা বেশ সংকটাপন্ন৷ তারা এখন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন৷তবে এমন পরিস্থিতিতেও রোববার সারা দেশে পৌর নির্বাচনের প্রথম পর্ব হয়েছে৷

এসিবি/কেএম (এএফপি, রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন