কম দুর্নীতি পশ্চিমবঙ্গে, সমীক্ষা নিয়ে প্রশ্ন | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 14.12.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

কম দুর্নীতি পশ্চিমবঙ্গে, সমীক্ষা নিয়ে প্রশ্ন

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশানালের সমীক্ষাকে হাতিয়ার করে রাজ্য প্রশাসনের পক্ষে জোরালো সওয়াল করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ এই সমীক্ষায় রাজ্যকে কম দুর্নীতিগ্রস্ত বলে দেখানো হয়েছে৷ প্রশ্ন উঠেছে এই সমীক্ষা নিয়ে৷

আন্তর্জাতিক সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশানাল দুর্নীতির চিত্র তুলে ধরতে যে সমীক্ষা করেছে, তাতে পশ্চিমবঙ্গ রয়েছে বেশ ভালো জায়গায়৷ এই সমীক্ষা অনুযায়ী, পশ্চিমবঙ্গ দেশের অন্যতম কম দুর্নীতিগ্রস্ত রাজ্য৷ এই সমীক্ষাকে হাতিয়ার করে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তব্য, ভারত দুর্নীতি সমীক্ষা ২০১৯ -এ ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশানাল ইন্ডিয়া এবং লোকাল সার্কেল তুলে ধরেছে, পশ্চিমবঙ্গে দুর্নীতি সবচেয়ে কম৷ আন্তর্জাতিক দুর্নীতি দমন দিবসে এ জন্য রাজ্যবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে টুইট করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ তিনি বলেছেন, ২৪৮টি জেলায় এক লক্ষ ৯০ হাজার মানুষের মধ্যে সমীক্ষায় পশ্চিমবঙ্গ ভালো জায়গায় রয়েছে৷ এই সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, পশ্চিমবঙ্গের পাশাপাশি দিল্লি, হরিয়ানা, গুজরাট, কেরল, গোয়া এবং ওড়িশায় দুর্নীতি অপেক্ষাকৃত কম৷ রাজস্থাল, বিহার, ঝাড়খণ্ড, উত্তরপ্রদেশ, পাঞ্জাব, কর্নাটক, তামিলনাড়ু ও তেলেঙ্গানায় দুর্নীতি বেশি৷

অডিও শুনুন 01:57

সমীক্ষা শুধু রাজনৈতিক নেতাদের দিকে তাকিয়ে হয়নি: বিমলশঙ্কর নন্দ

গত কয়েক বছরে একের পর এক দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে পশ্চিমবঙ্গের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে৷ বহুকোটি টাকার চিটফান্ড কেলঙ্কারি যেমন রয়েছে, তেমনই আলোড়ন তুলেছিল নারদ স্টিং অপারেশনে উঠে আসা দুর্নীতি৷ এই দুটি বিষয়ই এখন আদালতের বিচারাধীন৷ এর উপর লোকসভা নির্বাচনের পর কাটমানি বিতর্ক মাথাচাড়া দিয়েছিল৷ সব মিলিয়ে দুর্নীতির প্রশ্নে কোণঠাসা তৃণমূলের কাছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশানালের রিপোর্ট অক্সিজেন হয়ে উঠেছে৷ শাসক দলের নেতারা বলছেন, সারদা-নারদ বিরোধীদের চক্রান্ত ছাড়া কিছু নয়৷ আন্তর্জাতিক সমীক্ষায় সেটাই প্রমাণিত হয়েছে৷ যদিও রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মধ্যে এ নিয়ে মিশ্র্ প্রতিক্রিয়া রয়েছে৷

পশ্চিমবঙ্গের রাজনৈতিক স্তরে দুর্নীতি বেশি, এ কথা স্বীকার করেও রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক বিমলশঙ্কর নন্দ বলেন, ‘‘এই সমীক্ষা শুধু রাজনৈতিক নেতাদের দিকে তাকিয়ে হয়নি৷ রাজ্যের সাধারণ জনজীবনে দুর্নীতি সত্যিই কম৷ দুর্নীতি সম্পর্কে সাধারণ মানুষের মধ্যে একটা বিরূপ ধারণা আছে, যেটা অন্য রাজ্যে ততটা নেই৷ তবে যত উঁচু স্তরে ওঠা যাবে, বেশি দুর্নীতি পাওয়া যাবে৷ এটাও মানতে হবে, আমাদের রাজ্যে আর্থিক লেনদেন কম, সে জন্যে দুর্নীতিটাও কম৷ চাকরির পরীক্ষা থেকে সরকারি প্রকল্প সব ক্ষেত্রেই টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে৷ নির্বাচনে হিংসাও এক ধরনের দুর্নীতি৷ যে কোনো ভাবে ক্ষমতা ধরে রাখার চেষ্টা৷

তৃণমূল কংগ্রেসের কট্টর সমালোচক, কংগ্রেস নেতা অরুণাভ ঘোষও সমীক্ষাকে উড়িয়ে দিতে রাজি নন৷ তাঁর মতে, ‘‘ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল সেই দুর্নীতির কথা বলেছে, যার মুখোমুখি মানুষকে প্রতিদিন হতে হচ্ছে৷ অর্থাৎ, যে কোনো কাজ করাতে বা পরিষেবা নিতে গেলে টাকা লাগে৷ অন্য রাজ্যে যতটা লাগে, পশ্চিমবঙ্গে তার তুলনায় কম৷ রাজনৈতিক নেতৃত্বের দুর্নীতি নিশ্চই সাধারণ মানুষের জীবনকে প্রভাবিত করেছে, কিন্তু এই সমীক্ষায় প্রতিদিনের অভিজ্ঞতার কথা বলা হয়েছে৷’’

অডিও শুনুন 02:30

‘ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের সমীক্ষা মানি না: অম্বিকেশ মহাপাত্র

যদিও এই দুজনের ব্যাখ্যার সঙ্গে অনেকে একমত নন৷ তাঁদের বক্তব্য, পশ্চিমবঙ্গে  দুর্নীতি প্রতিদিনের অভিজ্ঞতাতেই রয়েছে৷ সারদা-সহ বিভিন্ন চিটফান্ড কেলেঙ্কারির পর নারদ স্টিং-এ তৃণমূল নেতাদের টাকা নেওয়ার ছবি (ভিডিওর সত্যতা ডয়চে ভেলে যাচাই করেনি) ধরা পড়েছিল৷ রাজনীতির শীর্ষ নেতৃত্বের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ সীমাবদ্ধ ছিল৷ সাম্প্রতিক কালে কাটমানি বিতর্কে তা প্রসারিত হয়েছে শাসকদলের তৃণমূল স্তর পর্যন্ত৷ যে কোনো সরকারি প্রকল্পের টাকা পেতে গরিব মানুষদের কাছ থেকে টাকা নিয়েছেন তৃণমূলের নিচুতলার নেতারা, এই অভিযোগ তুলে তা ফেরত পেতে একের পর এক বিক্ষোভ হয়েছে জেলায় জেলায়৷

এমন সব প্রসঙ্গ টেনে মানবাধিকার কর্মী অম্বিকেশ মহাপাত্র বলেন, ‘‘ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের সমীক্ষা মানি না৷ এতে রাশিবিজ্ঞানের কারিকুরি রয়েছে৷ রন্ধ্রে রন্ধ্রে দুর্নীতি রয়েছে এই রাজ্যে৷ প্রতিটা ক্ষেত্রে কাজ করতে গেলে টাকা দিতে হয়, রাজনৈতিক নেতাদের দুর্নীতি তো রয়েইছে৷ চাকরিতে নিয়োগ থেকে ১০০ দিনের কাজ কিংবা আবাস যোজনা, সব ক্ষেত্রে টাকা দিতে হয়৷ সরকার সেটাকে বৈধতা দিয়েছে৷ কাটমানি বিতর্ক সবটাই সামনে এনে দিয়েছে৷ তারপর কি আর বলা চলে সাধারণ মানুষ দুর্নীতির মুখোমুখি হন না?’’

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন