কঠোর লকডাউনে জার্মানি | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 13.12.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

কঠোর লকডাউনে জার্মানি

করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে কঠোর লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছে জার্মান সরকার৷ আগামী বুধবার থেকে বন্ধ থাকবে দোকানপাট, স্কুল ও ডে কেয়ার সেন্টার৷

বুধবার থেকে দেশব্যাপী কড়া পদক্ষেপের ঘোষণা জার্মানর

বুধবার থেকে দেশব্যাপী কড়া পদক্ষেপের ঘোষণা জার্মানর

চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল দেশের রাজ্যপ্রধানদের সাথে বৈঠকের পর রোববার এ ঘোষণা দেন৷ আগামী বুধবার থেকে শুরু হতে যাওয়া এ নতুন বিধি জানুয়ারির ১০ তারিখ পর্যন্ত বলবৎ থাকবে৷

শীতের শুরু থেকে ইউরোপের দেশটিতে করোনার প্রাদুর্ভাব আবারো বাড়ছে৷ এ কারণে অক্টোবর মাসের শেষে দেশব্যাপী আংশিক লকডাউন ঘোষণা করা হয়৷ সংক্রমণ বাড়তে থাকায় ক্রিসমাসের সময়ে তা কীভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখা যায় সে বিষয়ে তৎপর হয় সরকার৷

রাজ্যপ্রধানদের সাথে বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে ম্যার্কেল বলেন, ‘‘করোনার বিস্তার ঠেকাতে আমাদের জরুরি পদক্ষেপ নিতে হবে৷’’

নতুন করে আরোপ করা লকডাউনের আওতায়:

  • কম গুরুত্বপূর্ণ দোকানপাট ও সেবাপ্রদান যেমন সেলুন বন্ধ থাকবে৷
  • স্কুল বন্ধ থাকবে৷ তবে অনলাইনে শিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখার কথা বলা হয়েছে৷  
  • বন্ধ থাকবে ডে-কেয়ার সেন্টার৷ তবে বাবা-মায়েরা ছেলে-মেয়েদের দেখাশুনার জন্য বেতনসহ ছুটিতে যেতে পারবেন৷                                                                                                                                                     
  • ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে তাদের কর্মীদের বাসা থেকে অফিস করার জন্য উৎসাহিত করতে বলা হয়েছে৷
  • উন্মুক্তস্থানে অ্যলকোহল পান করা যাবে না৷
  • স্বাস্থ্যবিধি মানা সাপেক্ষে উপাসনালয় চালু রাখার অনুমতি রয়েছে৷ তবে দলগতভাবে ধর্মীয় সঙ্গীত গাওয়ার মত কাজগুলো করা যাবে না৷ 
  • রাজ্য সরকারগুলো চাইলে ক্রিসমাস উদযাপনের জন্য ডিসেম্বরের ২৪ থেকে ২৬ তারিখ পর্যন্ত লকডাউন বিধি কিছুটা শিথিল করতে পারে৷ সেক্ষেত্রে একজন ব্যক্তি তার সরাসরি সম্পর্কিত আত্মীয়দের পরিবার থেকে সর্বোচ্চ চারজনকে নিজ বাড়িতে আমন্ত্রণ করতে পারবেন৷ সঙ্গে ১৫ বছরের নীচে শিশুদেরও আমন্ত্রণ করা যাবে৷
  • নতুন বছর উদযাপনে পটকা ব্যবহার করা যাবে না৷

জার্মানিতে শনিবার মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২৮ হাজার ৪৩৮ জন৷ এদিন করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৪৯৬ জন মারা যান৷ হাসপাতালগুলোতে বাড়ছে রোগীর সংখ্যা৷ দেশের কোন কোন এলাকায় হাসপাতালের আইসিইউগুলো প্রায় ভর্তি হয়ে আছে৷

অ্যালেক্স বেরি/আরআর

 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন