ককটেল ভ্যাকসিনের পরীক্ষায় ভারত | বিশ্ব | DW | 11.08.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

ককটেল ভ্যাকসিনের পরীক্ষায় ভারত

কোভিশিল্ড এবং কোভ্যাকসিনের ককটেল পরীক্ষা শুরু করছে ভারত। ডেল্টা সংস্করণ রোধেই এই নতুন প্রচেষ্টা।

ভারতে এখন মূলত তিনটি ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে। কোভিশিল্ড, কোভ্যাকসিন এবং স্পুটনিক। সম্প্রতি দেশের ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া (ডিসিজিআই) কেন্দ্রের কাছে ককটেল ভ্যাকসিন পরীক্ষার অনুমতি চেয়েছিলেন। নীতি আয়োগ সেই অনুমতি দিয়েছে। নীতি আয়োগের স্বাস্থ্য বিষয়ক বিশেষজ্ঞ সংবাদমাধ্যমকে এ কথা জানিয়েছেন। দক্ষিণ ভারতের ভেলোরে ক্রিশ্চিয়ান মেডিক্যাল কলেজে স্বেচ্ছাসেবকদের শরীরে ককটেল টিকার পরীক্ষা হবে বলে জানানো হয়েছে।

এর আগে ইন্ডিয়ান সেন্টার ফর মেডিক্যাল রিসার্চও (আইসিএমআর) এই পরীক্ষা করেছিল। ১৮ জন স্বেচ্ছাসেবকের শরীরে সেই পরীক্ষা করার কথা থাকলেও বেশ কিছু স্বেচ্ছাসেবক নিজেদের নাম সরিয়ে নেন। ফলে বড় আকারে পরীক্ষাটি করা যায়নি। আইসিএমআর অবশ্য তাদের রিপোর্টে ককটেল টিকার গুরুত্বের কথা প্রকাশ করেছে। ডিসিজিআই জানিয়েছে, আরো বড় আকারে তারা এবার পরীক্ষা করবে।

গত কয়েকমাসে ভারতে টিকাকরণ গতি পেয়েছে। বহু মানুষেরই দুই ডোজ টিকা পেয়েছেন। কিন্তু তাতেও করোনা রোধ করা যাচ্ছে না। দুই ডোজ টিকা পেয়েও ডেল্টা সংস্করণে আক্রান্ত হয়েছেন বহু মানুষ। ভাইরোলজিস্টদের বক্তব্য, এখন যে টিকা দেওয়া হচ্ছে, তাতে ডেল্টা এবং ডেল্টা প্লাস ভেরিয়েন্টকে আটকানো সম্ভব নয়।

এই পরিস্থিতিতেই তৃতীয় ঢেউয়ের সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। ফলে নতুন ঢেউকে প্রতিহত করতে নতুন নতুন পরীক্ষা শুরু হয়েছে। তারই অন্যতম পরীক্ষা ককটেল টিকা। ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ইতিমধ্যেই ককটেল টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে। কিন্তু ভারতে এখনো তা হয়নি। ভারতে যে টিকাগুলি দেওয়া হচ্ছে, সেগুলিকে নিয়েই তাই নতুন পরীক্ষার পরিকল্পনা করা হয়েছে।

আইসিএমআর-এর রিপোর্ট বলছে, প্রথমে কোভিশিল্ড এবং পরে কোভ্যাকসিন দিলে কার্যকারিতা সবচেয়ে বেশি হতে পারে। ডেল্টা সংস্করণকে রোধ করাও সম্ভব হতে পারে। বিষয়টি নিয়ে আরো গবেষণা চলছে। ডিসিজিআই-ও সেই একই পরীক্ষা শুরু করবে। এই মাসেই ভেলোরের ক্রিশ্চিয়ান মেডিক্যাল কলেজে পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ককটেল টিকার পরীক্ষা সাফল্য পেলে বহু মানুষকেই এর সুবিধা দেওয়া যাবে। কারণ, কোভিশিল্ড নিয়ে অনেকেই এখন দ্বিতীয় ডোজের জন্য অপেক্ষা করছেন। ছয় সপ্তাহ অপেক্ষার পরে তারা দ্বিতীয় ডোজ পাবেন। এর মধ্যে নতুন পরীক্ষা সাফল্য পেলে তাদের ককটেল টিকার সুবিধা দেওয়া যাবে।

এসজি/জিএইচ (পিটিআই, এনডিটিভি)