ওয়েস্ট ব্যাঙ্ক নিয়ে ইসরায়েলকে কড়া বার্তা অ্যামেরিকার | বিশ্ব | DW | 27.10.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইসরায়েল

ওয়েস্ট ব্যাঙ্ক নিয়ে ইসরায়েলকে কড়া বার্তা অ্যামেরিকার

ওয়েস্ট ব্যাঙ্কে ইসরায়েলের বাড়ি তৈরি ভালো চোখে দেখছে না বাইডেন প্রশাসন। মঙ্গলবার তা স্পষ্ট করে দিয়েছে অ্যামেরিকা।

ইসরায়েল নিয়ে কি নিজেদের অবস্থান বদল করছে অ্যামেরিকা? এ প্রশ্ন উঠছে। কারণ, ওয়েস্ট ব্যাঙ্কে ইসরায়েলের বাড়ি তৈরির প্রকল্প অ্যামেরিকা সমর্থন করে না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে হোয়াইট হাউস। ইসরায়েলকে ওই প্রকল্প বন্ধ করার পরামর্শও দেওয়া হয়েছে। যদিও সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প এই প্রকল্পকে সমর্থন করেছিলেন। সে সময় সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ওয়েস্ট ব্যাঙ্কে এমন প্রকল্প দেখতেও গিয়েছিলেন।

সম্প্রতি একটি সরকারি টেন্ডার নোটিস প্রকাশ করেছে ইসরায়েল সরকার। যাতে বলা হয়েছে, ১৩০০ টি ফ্ল্যাটের হাউসিং তৈরি হবে ওয়েস্ট ব্যাঙ্কে। দীর্ঘদিন ধরেই ওয়েস্ট ব্যাঙ্ক দখল করে রেখেছে ইসরায়েল। কিন্তু আন্তর্জাতিক আইন এই দখলদারিকে মান্যতা দেয়নি। আন্তর্জাতিক আইনের চোখে ওই জমি ফিলিস্তিনের। কিন্তু যত দিন যাচ্ছে ওয়েস্ট ব্যাঙ্কে নিজেদের আধিপত্য বাড়াচ্ছে ইসরায়েল। এখনই সেখানে চার লাখ ৭৫ হাজার ইহুদি বসবাস করেন। ইসরায়েলের নতুন সরকারের আবাসমন্ত্রী, অতি দক্ষিণপন্থি দলের নেতা জিব এলকিন বলেছেন, ''ওয়েস্ট ব্যাঙ্কে ইহুদিদের অস্তিত্ব তৈরি করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সেই লক্ষ্যেই সরকার এগোচ্ছে।''

হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র নেড প্রাইস এর তীব্র বিরোধিতা করেছেন। মঙ্গলবার সাংবাদিকদের তিনি জানিয়েছেন, ''ইসরায়েলের এই কাজের বিরোধিতা করে অ্যামেরিকা। এর ফলে টু স্টেট সমাধানের যে চেষ্টা চলছে, তা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। ওই অঞ্চলে উত্তেজনা আরো বৃদ্ধি পাবে।''

একসময়ইসরায়েলকে অন্ধভাবে সমর্থন করতো অ্যামেরিকা। ইসরায়েলের বিরুদ্ধে কোনো বিষয়েই মুখ খুলত না মার্কিন প্রশাসন। কিন্তু ডেমোক্র্যাটদের মধ্যে এ নিয়ে ক্রমশ অসন্তোষ বাড়ছিল। বাইডেন প্রশাসনের উপর সেই চাপ যথেষ্টই ছিল বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। এবং সে কারণেই মনে করা হচ্ছে, ওয়েস্ট ব্যাঙ্ক নিয়ে প্রকাশ্যে এই সমালোচনা করল অ্যামেরিকা। বস্তুত, ফিলিস্তিনের প্রশাসনও এ বিষয়ে অ্যামেরিকার হস্তক্ষেপ দাবি করেছিল।

এসজি/জিএইচ (রয়টার্স, এপি)