ওদের ‘ক্ষমা করো হযরত’ | বিশ্ব | DW | 07.07.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

ওদের ‘ক্ষমা করো হযরত’

মেসি, রোনালদো যদি শুধু খ্রিস্টানদের জন্য ফুটবল খেলতেন তাহলে হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ বা অন্য সব ধর্মের মানুষেরা কত বড় আনন্দ থেকে বঞ্চিত হতেন, ভাবতে পারেন? দৃষ্টিভঙ্গি উদার না হলে কোনো বড় কাজ কি আর বড় থাকে?

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

কিন্তু এই কথাটাই কিছু মানুষ বোঝেন না, কিংবা বুঝলেও মনে রাখেন না৷ সব কিছুতেই দেশের, ধর্মের, বর্ণের, জাতের বা মতের অমিল বড় করে তুলে বিষোদগারে আনন্দ খোঁজেন তারা৷

বাংলাদেশের বরেণ্য সংগীত শিল্পী এন্ড্রু কিশোরের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করার সময় তার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন অনেকে৷ তার আত্মার শান্তি কামনাও করেছেন৷ কিছু মানুষের তা সহ্য হয়নি৷ একজন মুসলিম কেন একজন খ্রিস্টানের আত্মার শান্তি কামনা করলো- এই প্রশ্ন তুলে অনেক আপত্তিকর, অনেক আক্রমণাত্মক ও বিদ্বেষপূর্ণ মন্তব্য করেছেন তারা৷ 

এটা নতুন কিছু নয়৷ প্রায় সব দেশে, সব ধর্মেই এমন কিছু মানুষ ছিল এবং আছে৷

উপমহাদেশে সাম্প্রদায়িকতা তো আছে দীর্ঘদিন ধরে৷ এটা বেশি প্রকাশ পায় কিছু হিন্দুর মুসলিম বিদ্বেষ এবং কিছু মুসলিমের হিন্দু বিদ্বেষে৷

এমন মানুষদের বিরুদ্ধে খুব সোচ্চার ছিলেন কাজী নজরুল ইসলাম৷ একবার বিষয়টি নিয়ে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সঙ্গেও কথা হয়েছিল তাঁর৷ সেই কথোপকথনের বিষয়টি এক লেখায় নজরুল উল্লেখ করেছিলেন এভাবে, ‘‘একদিন গুরুদেব রবীন্দ্রনাথের সঙ্গে আলোচনা হচ্ছিল আমার, হিন্দু-মুসলমান সমস্যা নিয়ে৷ গুরুদেব বললেন: দেখ, যে ন্যাজ বাইরের, তাকে কাটা যায়, কিন্তু ভিতরের ন্যাজকে কাটবে কে?''

আবার এমন নয় যে, এমন উগ্র মানুষ শুধু অন্য ধর্মের মানুষদের বিরুদ্ধেই সক্রিয়৷

গতকাল আয়মান সাদিককে নিয়ে একটা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ডয়চে ভেলে৷ প্রতিবেদনটি ফেসবুকে পোস্ট করার সঙ্গে সঙ্গেই শুরু হয় ‘টেন মিনিট স্কুল'-এর প্রতিষ্ঠাতার বিরুদ্ধে বিষোদগার৷ আয়মান সাদিকের অভিযোগ, তাকে হত্যার হুমকি দেয়া হচ্ছে৷ তার দাবি, সমকামিতার পক্ষে দেয়া আলোচিত স্ট্যাটাসটি তার ‘এক ভিনদেশি, ভিনবিশ্বাসী' সাবেক সহকর্মীর৷ তারপরও দায় না এড়িয়ে ক্ষমা চেয়েছেন তিনি৷ তারপরও চলছে বিষোদগার আর হুমকি৷ 

ভিডিও দেখুন 03:56

কপোতাক্ষের তীরে সম্প্রীতির বন্ধন

আয়মান সাদিক বলছেন, তিনি মুসলিম, তার ‘টেন মিনিট স্কুল' কোনো ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নয়, সেখান থেকে কোনো ধর্মের বিপক্ষে কিছু করা হয় না এবং ইসলামবিরোধী কোনো কাজই করা হয়নি৷ তিনি আরো বলেছেন, তিনি এবং তার প্রতিষ্ঠান তা বোঝাতে ব্যর্থ হয়ে থাকলে সেজন্যও তিনি ক্ষমাপ্রার্থী৷

তার বক্তব্যের ভিডিওটি যে কেউ দেখতে পারেন, শুনতে পারেন৷ দেখে, শুনে অন্যায় বা সমালোচনাযোগ্য কিছু পেলে সমালোচনাও করতে পারেন৷ তাই বলে হত্যার হুমকি! এমন হুমকিকে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে সমর্থন!!

আসলে বরাবরের মতো এখনো কিছু মানুষ ধর্মের উদারতার দিকটাই ভুলে বসে আছেন৷

অথচ উদার মানুষ সব ধর্মে, বর্ণে, জাতিতে ছিল এবং আছে বলেই পৃথিবীটা বাসযোগ্য ছিল এবং এখনো আছে৷

ভেদাভেদটাকে বড় করে দেখেননি এমন উদার মানুষেরা সবসময় অন্য ধর্মেরও উপকার করেছেন৷ 

Ashish Chakraborty

আশীষ চক্রবর্ত্তী, ডয়চে ভেলে

মাত্র দু'জন বাঙালির কথা বলি৷ 

একজন গিরিশ চন্দ্র সেন৷ কেউ তাঁকে বলতেন ‘ভাই গিরিশ চন্দ্র সেন', আবার কারো কাছে তিনি ছিলেন ‘‘মৌলভী গিরিশ চন্দ্র সেন'৷ তাকে মৌলভী বলা হতো, কারণ, অমুসলিম হয়েও পবিত্র কোরান শরিফের প্রথম বঙ্গানুবাদ করেছিলেন তিনি৷

আরেকজন বিদ্রোহী কবি, বাংলাদেশের জাতীয় কবি, বিশ্বমানবতার কবি কাজী নজরুল ইসলাম৷

তার মতো ভালো ইসলামি গান আর কেউ লিখতে পারেননি৷ আবার তার মতো ভালো শ্যামা সংগীত লেখার সাধ্যও আর কারো হয়নি৷

‘মুনাজাত' কবিতায় তিনি লিখেছেন:

আমারে সকল ক্ষুদ্রতা হতে

          বাঁচাও প্রভু উদার,

হে প্রভু! শেখাও - নীচতার চেয়ে

          নীচ পাপ নাহি আর৷

 

যদি শতেক জন্ম পাপে হই পাপী,

     যুগ-যুগান্ত নরকেও যাপি,

     জানি জানি প্রভু, তারও আছে ক্ষমা-

               ক্ষমা নাহি নীচতার৷৷

 

ক্ষুদ্র করো না হে প্রভু আমার

          হৃদয়ের পরিসর,

যেন সম ঠাঁই পায়

          শত্রু-মিত্র-পর৷

 

নিন্দা না করি ঈর্ষায় কারো

     অন্যের সুখে সুখ পাই আরো,

     কাঁদি তারি তরে অশেষ দুঃখী

               ক্ষুদ্র আত্মা তার৷৷

 

কিন্তু তাঁর এমন উদারতা কিছু হিন্দু এবং কিছু মুসলমানের তখন একেবারেই পছন্দ হয়নি৷ সেই মানুষগুলো ধর্মের প্রকৃত বাণী ভুলে হিংসা, ঘৃণা, মারামারি, হানাহানির পক্ষেই নিজেদের অবস্থান জানাতো নানাভাবে৷

তাদের কথা ভেবে নজরুল ‘ক্ষমা করো হযরত' কবিতায় লিখেছেন:

তোমার বাণীকে করিনি গ্রহণ

ক্ষমা করো হযরত

ভুলিয়া গিয়াছি তব আদর্শ

তোমার দেখানো পথ

ক্ষমা করো হযরত৷

 

বিলাস বিভব দলিয়াছ পায়

ধুলিসম তুমি প্রভু

তুমি চাহো নাই আমরা হইব

বাদশাহ, নওয়াব কভু৷

এই ধরণীর ধন সম্পদ

সকলের তাহে সম অধিকার,

তুমি বলেছিলে ধরণীতে সবে

সমান পুত্রবৎ

ক্ষমা করো হযরত৷

 

তোমার ধর্মে অবিশ্বাসীদের

তুমি ঘৃণা নাহি করে,

আপনি তাদের করিয়াছ সেবা

ঠাঁই দিয়েছ তুমি ঘরে৷

 

ভিন্ন ধর্মীর পূজা মন্দির

ভাংতে আদেশ দাওনি, হে বীর!

আমরা আজিকে সহ্য করিতে

পারিনা পর মত,

ক্ষমা করো হযরত৷

 

তুমি চাও নাই ধর্মের নামে

গ্লানিকর হানাহানি,

তলোয়ার তুমি দাও নাই হাতে

দিয়াছ অমর বাণী৷

মোরা ভুলে গিয়ে তব উদারতা

সার করিয়াছি ধর্মান্ধতা,

বেহেশত থেকে ঝরে নাকো আর

তাই তব রহমত,

ক্ষমা করো হযরত৷

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন