ওজন অস্বাভাবিক কম হওয়ার যন্ত্রণা অনেক | বিজ্ঞান পরিবেশ | DW | 23.04.2011
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

ওজন অস্বাভাবিক কম হওয়ার যন্ত্রণা অনেক

মোটা হলে এই হয়, সেই হয়৷ কত কিছুই না শোনা যায়৷ মোটা মানুষ কীভাবে ওজন কমাতে পারে সে ব্যাপারেও অনেক পরামর্শ পাওয়া যায়৷ কিন্তু ওজন অস্বাভাবিক রকম কম হলে কী সমস্যা হতে পারে সে ব্যাপারে কিন্তু বেশি কিছু জানা যায় না৷

default

ফাইল ছবি

তরুণী গিয়াদ্রেকে দেখে তার বন্ধু ফ্রাঙ্কের মন্তব্য, ‘ইস্, আমি যদি তোমার মত হতে পারতাম!' এখানে গিয়াদ্রের ওজন অস্বাভাবিক রকমের কম৷ আর ফ্রাঙ্কের উল্টো৷ তার ওজন আবার একটু যেন বেশিই বেশি৷

সারা বিশ্বে ফ্রাঙ্কের মতো লোকের অভাব নেই৷ কিন্তু গিয়াদ্রের মতো লোকের সংখ্যা একটু কমই৷ যেমন জার্মানিতে গিয়াদ্রের মতো মহিলার সংখ্যা শতকরা মাত্র দেড় শতাংশ৷ আর পুরুষদের মধ্যে এই সংখ্যা আরও কম৷ মাত্র ০.৪ শতাংশ৷ পরিসংখ্যানটা জার্মান পুষ্টি সোসাইটির৷ জার্মানির খাদ্য, কৃষি ও কনজিউমার সংরক্ষণ মন্ত্রণালয়ের হয়ে প্রতি চার বছর পরপর তারা পুষ্টির উপর একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে৷ সেখানেই দেয়া হয়েছে এসব তথ্য৷

‘জার্মান ডায়েটারি অ্যাডভাইস অ্যান্ড ইনফরমেশন নেটওয়ার্ক' এর বিজ্ঞানীরা বলছেন একজনের ওজন কম থাকা মানে হলো তার পর্যাপ্ত পুষ্টির অভাব রয়েছে৷ যে কারণে সে নানান রোগে ভুগতে পারে৷ যেমন মাংসপেশির কার্যক্রম ব্যাহত হওয়া এবং রোগশোক থেকে মুক্তি পেতে যথেষ্ট শক্তির অভাব৷

তবে বিজ্ঞানীরা বলছেন একজন মোটা মানুষ যত সহজে ওজন কমাতে পারে, কম ওজনওয়ালা একজনের পক্ষে ততটা সহজে ওজন বাড়ানো সম্ভব হয় না৷ এর কারণ হলো যাদের ওজন কম তারা হয় বেশি খেতে অনিচ্ছুক, না হয় চাইলেও বেশি খেতে পারে না৷ আবার এমনও আছে যে, হয়তো কেউ ঘোড়ার মতো খেয়েই যাচ্ছে কিন্তু সেটার ফল শরীরে লাগছে না৷ আবার মোটা হওয়ার জন্য বেশি বেশি চর্বিযুক্ত খাবার খাওয়াও ঠিক নয় বলে জানিয়েছেন খাদ্য বিষয়ক একজন বিশেষজ্ঞ৷

কিন্তু কেন মানুষের ওজন এত কম হয়? জানা গেছে, মূলত বয়স্করাই এ ধরণের সমস্যায় ভুগতে পারে৷ কারণ হয় তাদের ক্ষুধা লাগে না বা বয়সের কারণে তারা চিবিয়ে খাওয়ার সামর্থ্য হারিয়ে ফেলেন৷ এছাড়া মারাত্মক অসুখ বা কেমোথেরাপির জন্য যে কোনো বয়সের মানুষের ওজন কমতে পারে৷ প্রচন্ড মানসিক বা আবেগজনিত চাপের কারণে তরুণদের মধ্যে এই সমস্যা দেখা দিতে পারে৷

প্রতিবেদন: জাহিদুল হক

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

সংশ্লিষ্ট বিষয়